সোমবার ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

শীতেও চুল থাক ঝলমলে

ডিসেম্বর ২, ২০১৯ | ১২:৩২ অপরাহ্ণ

শীতের আগমন বেশ ভালোভাবেই লক্ষ্য করা যাচ্ছে। গাছের ঝড়া পাতাই বলে দিচ্ছে শীত এসে গেছে। শীতকাল পিঠাপুলি ও নবান্ন উৎসবের ঋতু। তবে শীতের রুক্ষতার প্রভাব পড়ে ত্বক ও চুলে। চুলের কিছু সাধারণ সমস্যা শীতকালে বেশি হয়। যেমন খুশকি, রুক্ষতা, চুল পড়া ইত্যাদি। এজন্য দরকার বাড়তি যত্নের। চলুন, শীতকালে চুলের যত্নে কিছু কথা জেনে নেই।

বিজ্ঞাপন

পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে

শীতের রুক্ষতায় সুস্থ থাকতে হলে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। শীতে যেহেতু প্রচুর শাক-সবজি পাওয়া যায়, তাই খাবারে শাকসবজি রাখা সহজ। চেষ্টা করতে হবে প্রতিদিন তিন বা চার প্রকারের শাক-সবজি খেতে। ফুলকপি, গাজর, পালং শাক, মিষ্টি কুমড়া, মটরশুঁটি, বেগুন, ঝিঙা- এই শাক-সবজিগুলোতে প্রচুর ভিটামিন আছে।

ভিটামিন সি জাতীয় যেকোন তিন বা চারটি ফল প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখতে হবে। আর দিনে দুই থেকে তিন লিটার পানি পান করতে হবে।

বিজ্ঞাপন
মডেল- শুভ্রা শারমীন
মডেল- শুভ্রা শারমীন

চুলের সুরক্ষায়...

এসময় বাইরে বের হলে চুল খোলা না রাখাই ভালো। এতে চুলের আর্দ্রতা হারায়। ওড়না বা স্কার্ফ দিয়ে চুল ঢেকে রাখা যেতে পারে। হিজাব পরলে ঢিলেঢালাভাবে পরা উচিত। এতে মাথার ত্বক ঘেমে চুল পড়া ও খুশকির সমস্যা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না। ভেজা চুল নিয়ে বাইরে বের হওয়া ঠিক না। একটু সময় নিয়ে চুল শুকিয়ে তারপর বের হতে হবে।

ডিপ কন্ডিশনিং জরুরী

চুল শ্যাম্পু করার পর ভালো কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। বেশি গরম বা ঠান্ডা পানি চুলের জন্য ক্ষতিকর। তাই হালকা কুসুম গরম পানি চুল ধোয়ার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। সপ্তাহে অন্তত একদিন ডিপ কন্ডিশনিং প্যাক ব্যবহার করতে হবে।

সপ্তাহে কমপক্ষে ৩ দিন চুলে তেল ব্যবহার করতে হবে। এজন্য নারকেল তেল বা অলিভ ওয়েল হালকা গরম করে চুলের গোড়ায় মাসাজ করে ২ থেকে ৩ ঘন্টা পর শ্যাম্পু করতে হবে। কখনোই অপরিষ্কার চুলে তেল দেওয়া উচিত না।

ডিপ কন্ডিশনিং প্যাক হিসেবে-

মসুর ডালের গুঁড়া ২ টেবিলচামচ, মেথি গুঁড়া ২ টেবিলচামচ, ১ টি ডিম, ১ টি কলা ও পরিমাণমতো টক দই একসঙ্গে ব্লেন্ড করে চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত লাগিয়ে ১ ঘন্টা পর শ্যাম্পু করতে হবে।

মডেল- ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা
মডেল- ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা

খুশকি দূর করতে

খেয়াল করতে হবে, খুশকি কী শুধুই মাথার তালুতে নাকি চোখের পাপড়ি, ভ্রু ও লোমের গোড়াতেও আছে। যদি একাধিক জায়গায় খুশকি থাকে এবং চুলকায়, লাল হয়ে যায় বা ক্ষতের সৃষ্টি হয় তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। আর যদি তেমন কোন লক্ষণ না থাকে, তবে ঘরোয়া কিছু উপাদান ব্যবহারেই খুশকির সমাধান করা সম্ভব।

ভালো অ্যান্টিডেনড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে। Ketoconazole, Tea tree oil, Solicylic acid সমৃদ্ধ শ্যাম্পু বেছে নিতে হবে। হেড অ্যান্ড শোল্ডার, নাইজোরাল অ্যান্টি ড্রানড্রফ শ্যাম্পু, ড্যানসেল, T/sal theraputic, Redken শ্যাম্পু এই সময়ের উপযোগি।

শীতকালে চুলের ঘরোয়া প্যাক-

লেবুর রস (অর্ধেকটি)

ভাতের মাড় সমপরিমাণ

মধু ১ চা চামচ

এই তিনটি উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে তুলার বল দিয়ে চুলের গোড়ায় বিলি কেটে লাগাতে হবে। ২ ঘন্টা রেখে শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে। ভালো ফল পেতে এই মিশ্রণটি সপ্তাহে ৩ দিন ব্যবহার করতে হবে।

এই শীতে চুলে স্ট্রেটনার ও আয়রন যত কম করা যায় ততই ভালো। চুল নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে, পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে, পরিমিত ঘুম ও দুশ্চিন্তামুক্ত জীবনযাপন করতে হবে। তবেই চুল পড়া রোধ করা বা কমানো সম্ভব।

মডেল- শুভ্রা শারমীন ও ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/টিসি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন