রবিবার ২৬ জানুয়ারি, ২০২০ ইং

নওয়াজ উদ্দিনকে নিয়ে আবেগি ফারুকী

ডিসেম্বর ১১, ২০১৯ | ১০:৩০ পূর্বাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপেন্ডেট

পৃথিবীতে কিছু কিছু অভিনেতা নাকি জন্ম থেকেই শিল্পী। ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালে ঠিক আগ মুহুর্তে হৃদয়ে বয়ে যাওয়া বড় ঝড়ও নাকি তাকে আটকাতে পারে না। বলিউড অভিনেতা নওয়াজ উদ্দিনকে নিয়ে ঠিক এরকমই এক ঘটনার উল্লেখ করলেন মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। যা তাকে করেছে আবেগি।

বিজ্ঞাপন

ফারুকী তার এক ফেসবুক স্ট্যাটাসের মধ্য দিয়ে অন্যরকম পেশাদার নওয়াজ উদ্দিন সিদ্দিকীর কথা উল্লেখ করেন। সারা বিশ্বের ঘরহীন মানুষদের নিয়ে ফারুকী নির্মাণ করছেন ‘নো ল্যান্ডস ম্যান’। এর সহ-প্রযোজনার পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন নওয়াজ উদ্দিন। তারা বর্তমানে নিউইয়র্কে ছবিটির শুটিং করছেন।

ছবিটিতে নওয়াজ উদ্দিনের বোনের চরিত্রের নাম ‘সাইমা’। ফারুকীর ভাষ্যে ঘটনাটা এমন, ‘আমি যে দৃশ্যের কথা বলছি সেখানে তার পর্দার বোনের সাথে অভিনয় ছিলো। যার পর্দার নাম সাইমা। সে আমার কাছে জানতে চাইলো, আমি কি জানি বাস্তবেও তার বোনের নাম সাইমা। কিন্তু আমি নেগেটিভলি উত্তর দিলাম আর জানালাম আমার এ চিত্রনাট্য লেখা হয়েছে আরও পাঁচ বছর আগে। তখন আমি তার বোন সম্পর্কে কিছুই জানতাম না।’

বিজ্ঞাপন

এরপর পরই নেওয়াজ ফারুকীকে তার বোন সম্পর্কে বলেন, যে কিনা ক্যান্সারে ভুগছে আট বছর যাবত। বোনের এ লড়াইয়ে সে ভাই হিসেবে সকল প্রকার সাহায্য করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাই যখন পর্দার বোনের সাথে ফোনে কথা বলার দৃশ্যে অভিনয় করছিলো সে অতিমাত্রায় আবেগী হয়ে পড়েছিলো।

ফারুকী লেখেন, ‘আমি জানি না এ ধরনের অদ্ভুত ঘটনায় কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাতে হয়।’

এরপর শুটিংয়ের মধ্যেই দেশ থেকে নওয়াজের কাছে একটি ফোন আসে। শুটিং ইউনিটের কারো ধারণাই ছিলো না কী হয়েছে। নওয়াজ খুব সুন্দরভাবে তার দৃশ্য শেষ করলেন। আর দৃশ্য ধারণ শেষে তিনি জানান তার ক্যান্সার আক্রান্ত বোন সাইমা আর নেই। ফোনে সে খবরই তাকে জানানো হয়েছে।

ফারুকী লিখেন, ‘যদি কারো তার পরিবারের সাথে শক্ত আত্মিক সম্পর্ক থাকে তাহলে সে বুঝবে ওই সময়ে তার কেমন অনুভুতি হচ্ছিলো। আমি জানিনা কীভাবে ওইধরনের পরিস্থিতি সামলাতে হয়। কিন্তু নওয়াজ জানে।’

নওয়াজ তার বোনকে শেষবারের মত দেখতে গিয়েছেন। দেখা শেষে আবার নিউইয়র্কে এসে শুটিংও শেষ করবেন। বেশ আবেগি ভাষায় ফারুকী লিখেন, ‘খুব নীরবে হয়তোবা সে গিয়ে তার বোনের কবরের পাশে দাঁড়াবে। হয়তো খুব নীরবে তারা দুজন হাজারো শব্দে কথা বলবে। হয়তোবা ফিকশন আর বাস্তবতা, একে অপরের সাথে মিলে মিশে যাবে।’

সারাবাংলা/এজেডএস/এএসজি/পিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন