বিজ্ঞাপন

ঊনপঞ্চাশে বাংলাদেশ, ফুল-আলো-কবিতায় বিজয় মুহূর্ত স্মরণ

December 15, 2019 | 11:22 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: আবৃত্তি ও প্রদীপ প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে একাত্তরে নয় মাসের যুদ্ধ শেষে বাঙালি জাতির বিজয়ের মাহেন্দ্রক্ষণটিকে স্মরণ করেছে চট্টগ্রামের বোধন আবৃত্তি পরিষদ।

বিজ্ঞাপন

রোববার (১৫ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় নগরীর জামালখান মোড়ে ‘এখনো ঘাতক বিক্ষত করে সোনার বাংলাদেশ’ শীর্ষক এই আয়োজনে বোধনের শিল্পীদের পাশাপাশি ছিল আমন্ত্রিতদের পরিবেশনাও।

স্বাধীন বাংলাদেশের ৪৯ বছরে পদার্পণ মুহূর্তকে স্মরণীয় করে রাখতে মোমবাতি আর ফুলের পাপড়ি দিয়ে আঁকা হয় ‘গৌরবের ৪৯’। এ সময় শুভাগত চৌধুরীর কণ্ঠে ‘আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে, এ জীবন পূর্ণ কর’ গানটিতে কণ্ঠ মেলান উপস্থিত সবাই।

এরপর আবৃত্তিশিল্পী মৃন্ময় বিশ্বাসের সঞ্চালনায় শুরু হয় আমন্ত্রিত অতিথিদের কথামালা। অংশ নেন মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান ডা. মাহফুজুর রহমান, নাট্যজন প্রদীপ দেওয়ানজী, সাংবাদিক রিয়াজ হায়দার ও ঋত্বিক নয়ন, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন এবং বোধন আবৃত্তি পরিষদের একাংশের সাধারণ সম্পাদক এস এম আবদুল আজিজ ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল চৌধুরী সোহেল।

বিজ্ঞাপন

কথামালার ফাঁকে ফাঁকে চলতে থাকে দলীয় ও একক আবৃত্তি পরিবেশনা। আবৃত্তিশিল্পী সঞ্জয় পালের গ্রন্থনা ও নির্দেশনায় বোধনের দলীয় পরিবেশনা ছিল ‘মিছিলের রাজপথ’।

একক আবৃত্তিতে অংশ নেন সুবর্ণা চৌধুরী, শুভ রক্ষিত, জসিম উদ্দিন, শংকর প্রসাদ নাথ, ইভান পাল, লিমা চৌধুরী, ইশা দে, নার্গিস ফাতেমা, স্মিতা বড়ুয়া, শ্রেষ্ঠা সেন চৌধুরী, জান্নাতুল ফেরদাউস, জান্নাতুল আয়মান, পিংকু সেন, মৌসুমী দেব, বৃষ্টি বৈদ্য, হিমাদ্রী দাশ, ঐশিকা দাশ, হাসিবুল ইসলাম শাকিল, সুচয়ন সেনগুপ্ত, সুচিত্রা বৈদ্য, ঋত্বিকা দে, গৌরি দাশ গুপ্তা, হৃদিকা দে, অরিজিৎ বড়ুয়া, সুনিপুণ সেনগুপ্তা, মুন দাশ, সৃষ্টি ভৌমিক, তানিশা চৌধুরী, সুপ্রীতি বড়ুয়া, সুপ্তি দাশ, মৌকথা বড়ুয়া, ঋতুরাজ দে, সুষ্মি অধিকারী, ওয়াহিদা নুজহাত হাবিব, শ্রেয়সী চৌধুরী, পূর্ণ বিশ্বাস, হিমাদ্রী দাশ।

এছাড়া প্রমা আবৃত্তি সংগঠন, শব্দনোঙর আবৃত্তি সংগঠন, ত্রিতরঙ্গ আবৃত্তি দল, কণ্ঠনীড়, মুক্তধ্বনি আবৃত্তি সংসদ, স্বপ্নযাত্রী, চট্টগ্রাম আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্র, অযান্ত্রিক, ছায়াতরু, বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা, নরেন আবৃত্তি একাডেমি, স্পৃহা আবৃত্তি নীড়, বিশ্ববিদ্যালয় আবৃত্তি মঞ্চ, অঙ্গন এবং দর্পণের শিল্পীরা দলীয় পরিবেশনায় অংশ নেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরডি/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন