Sarabangla 4th-anniversary Sarabangla 4th-anniversary
বিজ্ঞাপন

ক্রিকেটার আর কোচিং স্টাফরা পাকিস্তানে যেতে চায় না: পাপন

December 26, 2019 | 4:04 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

২০২০ সালে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি আর দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ দলের পাকিস্তান সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নাজমুল হাসান পাপন জানিয়ে দিলেন বাংলাদেশ কেবল পাকিস্তানে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতেই যাবে। টেস্ট খেলতে হবে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে।

বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান এহসান মানি কয়েকদিন আগেই বাংলাদেশকে বেশ হুঁশিয়ারি বাণী শুনিয়েছেন। বলে দিয়েছেন যদি বাংলাদেশ এখানে টেস্ট না খেলে তাহলে আইসিসির স্মরণাপন্ন হবেন তিনি। আর সেই সঙ্গে জানিয়ে দিয়েছিলেন পাকিস্তানের বিরুদ্ধে টেস্ট খেলতে হলে অবশ্যই সেটা পাকিস্তানেই খেলতে হবে।

তবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন বাংলাদেশ দল কেবল টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতেই সেখানে যাবে। তিনি জানান, ‘এই সফরে দলের বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার ও বিদেশি কোচিং স্টাফরা যেতে চান না। এই সফরে নিয়ে ক্রিকেটারদের পরিবারও উদ্বিগ্ন। এমনকি বিসিবিও শঙ্কিত।‘

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে এহসান মানির সতর্কার প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বিসিবি প্রেসিডেন্ট জানান, ‘দেখুন ওরা কি ভাবছে বা বলছে তাতে আমাদের কিছু আসে যায় না। আমাদের কাছে সবার আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট, ক্রিকেটার আর কোচিং স্টাফদের নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। এই সফরে আমরা কোনো ক্রিকেটার বা কোচিং স্টাফদের জোর করবো না।‘

পাকিস্তান সফরে জন্য দেশের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে নিরাপত্তার ছাড়পত্র নিতে হচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে। এই প্রসঙ্গে নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘সরকার নিরাপত্তা ছাড়পত্র দিলেই কেবল আমরা খেলতে যাবো। যেহেতু ওই ঘটনার পর এটাই আমাদের প্রথম পাকিস্তান সফর তাই আমরা সঙ্গে করে ডিজিএফআই আর এনএসআই সদস্যদের সঙ্গে করে নিয়ে যেতে চাই।‘

বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড এবং মিসবাহ উল হক বলেছেন পাকিস্তানে নিরাপত্তা নিয়ে কোনো শঙ্কা নেই। তারা জানিয়েছেন আমরা প্রথম শ্রেণির নিরাপত্তা দিচ্ছি ক্রিকেটারদের এমনটাই জানিয়েছেন পাকিস্তানের টেস্ট দলের অধিনায়ক আজাহার আলী। এই কথার সঙ্গে একমত হয়েছেন বিসিবি প্রধানও। তিনি জানিয়েছেন, ‘পাকিস্তানের নিরাপত্তা দেওয়ার ধরন নিয়ে আমাদের কোনো সমস্যা নেই। তারা বেশ ভালো নিরাপত্তা দিয়েছে। তবে সেখানে একটা শঙ্কা থেকেই যায়। আর ক্রিকেটাররাও এমন কড়া নিরাপত্তার মধ্যে কত দিন থাকতে পারবে সেটা নিয়ে চিন্তিত।‘

সারাবাংলা/এমআরএফ/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন