বিজ্ঞাপন

ফলাফল নয়; ম্যাচ ধরে এগোতে চাই: আকবর আলী

January 2, 2020 | 3:08 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

আকবর আলীর নেতৃত্বে দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ দল। ২০২০ সালের জানুয়ারির ১১ থেকে শুরু হয়ে চলবে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। তবে বাংলাদেশ দলের প্রথম ম্যাচে ১৮ জানুয়ারি, আর এর আগে ৪ জানুয়ারি জোহানেসবার্গে পৌঁছে যাবে বাংলাদেশ। পরের দিক ৫ তারিখ থেকেই প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ১৬ দল নিয়ে আয়োজিত এবারের যুব বিশ্বকাপে বাংলাদেশের গ্রুপ সি’তে আরও আছে জিম্বাবুয়ে, স্কটল্যান্ড এবং পাকিস্তান।

বিজ্ঞাপন

গেল বছরে আকবর আলীর নেতৃত্বেই বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ দল দারুণ একটি বছর কাটিয়েছে। ব্যাট হাতে ব্যাটসম্যানরা যেন রাজত্ব করেছে বিশ্ব যার প্রমাণ বছরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় সবার উপরেই বাংলাদেশের যুবা। তবে এবার লক্ষ্যটা বিশ্বকাপ। আর বিশ্বকাপ নিয়েই টাইগার অধিনায়কের লক্ষ্যটা ম্যাচ ধরে ধরে এগিয়ে যাওয়া।

এই ব্যাপারে টাইগার যুবা অধিনায়ক আকবর আলী বলেন, ‘আমরা সম্প্রতি বেশ ভালো খেলেছি আর এই কারণেই সমর্থকদের প্রত্যাশা বাড়ছে। আমরা ফলাফলের দিকে তাকাচ্ছি না। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে প্রত্যেকটি ম্যাচ ধরে ধরে এগিয়ে যাওয়া। তাই তো এখনই বহুদূরে দেখতে চাচ্ছি না কারণ সেটা আমাদেরকে বাড়তি চাপের মধ্যে ফেলতে পারে। শেষ তিন চার মাসে যে প্রক্রিয়াটি অনুসরণ করেছি বিশ্বকাপেও সেটাই ধরে রাখবে।‘

বিজ্ঞাপন

গেল বছর জুড়েই বাংলাদেশ যুবা দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন আকবর আলী। আর নেতৃত্বেই ইংল্যান্ডের মাটিতে দারুণ পারফরম্যান্স ছিলো বাংলাদেশ দলের। সেই সঙ্গে কিউইদের তাদের মাটিতে হারিয়েই জিতেছিল সিরিজ। তাই তো এবারেও দায়িত্বটা তার কাঁধেই। নিজের অধিনায়কত্ব নিয়ে আকবার বলেন, ‘অধিনায়কত্ব আমি উপভোগ করি। এটাকে বাড়তি চাপ হিসেবে নিতে চাই না। যখন আমি মাঠে থাকি চিন্তা করি যতটা সম্ভব উপভোগ করার। উইকেটকিপিং আর অধিনায়কত্ব দুটোই আমি মাঠে উপভোগ করি। বাড়তি চাপ হিসেবে নেই না। অন দ্য ফিল্ড ও অফ দ্য ফিল্ড আমি উপভোগ করি।‘

দক্ষিণ আফ্রিকার কন্ডিশনের কথা মাথায় রেখেই বাংলাদেশ দল শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) দক্ষিণ আফ্রিকার উদ্দেশে রওনা দিচ্ছে। আর ৫ জানুয়ারি থেকে খেলবে দু’টি প্রস্তুতি ম্যাচও। আর দক্ষিণ আফ্রিকার আবহাওয়া যে বাংলাদেশ দলের জন্য বেশ দু:শ্চিনার বিষয় হবে তা অকপটেই স্বীকার করে নিয়েছেন অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘আমরা বগুড়ায় তিন সপ্তাহের একটা ক্যাম্প করেছিলাম। আশা করি দক্ষিণ আফ্রিকায় একটা সিমিং কন্ডিশন পাবো। বগুড়ায় ঘাসের উইকেটে ব্যাটিং করার সুযোগ পেয়েছি এবং ওখানকার যে কন্ডিশনের কথা বলছেন সেটা আমরা দুই সপ্তাহ সময় পাবো মানিয়ে নেওয়ার জন্য। আমি মনে করি কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার জন্য এই সময়টাই যথেষ্ট।‘

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন