বিজ্ঞাপন

অর্থনৈতিক ভিত্তি শক্তিশালী করতে আমিরাত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

জানুয়ারি ৭, ২০২০ | ১১:০১ অপরাহ্ণ

এমএকে জিলানী, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আগামী সপ্তাহে চার দিনের সরকারি সফরে সংযুক্ত আরব আমিরাত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১২ থেকে ১৫ জানুয়ারি সফরটি হওয়ার কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে জনশক্তি, বিনিয়োগ-বাণিজ্য, বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, বন্দর, শিল্প পার্ক, এলএনজি টার্মিনাল ও বিদ্যুৎকেন্দ্র অগ্রাধিকার পাবে। কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, একাধিক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকসহ বেশ কয়েকটি সমাঝোতা স্মারক সই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এই সফরে।

বিজ্ঞাপন

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, আমিরাত সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘জায়েদ সাসটেইনেবিলিটি অ্যাওয়ার্ড’ অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন। এছাড়া আবুধাবিতে ওয়ার্ল্ড ফিউচার এনার্জি সামিটে অংশ নেওয়া ছাড়াও আরও কয়েকটি অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে তার।

আসন্ন সফরে প্রধানমন্ত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাতের উপরাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশীদ আল-মাকতুমের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আবুধাবির যুবরাজ ও আরব আমিরাতের ডেপুটি সুপ্রিম কমান্ডার শেখ মুহাম্মদ বিন যায়েদ আল-নাহিয়ানের বৈঠক হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগে আগ্রহী আমিরাতের ব্যবসায়ীরা

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর ওই সফরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে প্রথমবারের মতো ‘ফরেন অফিস কনসালটেশন’ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই সফরে প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন, বন্দর, শিল্প পার্ক, এলএনজি টার্মিনাল ও বিদ্যুৎকেন্দ্র বিষয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে চারটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই করেছে বাংলাদেশ।

ঢাকার কূটনীতিকরা বলছেন, পশ্চিম এশিয়ার তেল সমৃদ্ধ দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এখন অতীতের যেকোনো সময়ের থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী। গত বছরের প্রথমার্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরের পর দুই দেশের সম্পর্কে যুক্ত হয়েছে বন্ধুত্বের নতুন পালক। এর ধারাবাহিকতায় সংযুক্ত আরব আমিরাতের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করবে— এমন সম্ভাবনাও উঁকি দিচ্ছে।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানাচ্ছে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করতে গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর দুবাইতে অনুষ্ঠিত হয় দিনব্যাপী ‘বাংলাদেশ ইকোনমিক ফোরাম’। ওই আয়োজনে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সরকারি প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, বিনিয়োগকারী, উদ্যোক্তাসহ প্রায় ৩০০ জন প্রতিনিধি অংশ নেন।

‘বাংলাদেশ ইকোনমিক ফোরাম’-এর একটি সূত্র সারাবাংলাকে জানিয়েছে, ফোরামটি তথ্যানুসন্ধান করে দেখেছে যে সংযুক্ত আরব আমিরাতের একাধিক বিনিয়োগকারী বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছেন। এই বিনিয়োগের পরিমাণ কমপক্ষে ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান জানান, অনেক বিদেশিই এখন বাংলাদেশে সরাসরি বিনিয়োগ করতে চায়। চীন, জাপানসহ অনেক দেশই বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছে। আরব দেশগুলোর সহযোগিতা জোট গালফ কো-অপারেশন কাউন্সিলের (জিসিসি) অন্তর্ভুক্ত দেশগুলোও বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী। কেননা বাংলাদেশে শ্রমমূল্য ও কার্যক্রম পরিচালনার খরচ কম হলেও রিটার্ন অনেক বেশি। সংযুক্ত আরব আমিরাততের বিনিয়োগকারীরা এই সুযোগ কাজে লাগাতে চান।

সারাবাংলা/জেআইএল/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন