বিজ্ঞাপন

বোল পাল্টেছে পাকিস্তান, সিরিজের ভাগ্য নির্ধারণ বৃহস্পতিবার

January 8, 2020 | 9:38 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

পাকিস্তান সফর নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড চাইছিলো আপাতত তিন ম্যাচ সিরিজের টি-টোয়েন্টি খেলে ছেলেরা দেশে ফিরুক। দুই ম্যাচ সিরিজের টেস্ট পরে নিরপেক্ষ কোনো ভেন্যুতে খেলবে। পক্ষান্তরে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) চাইছিলো টি-টোয়েন্টির সঙ্গে দুই ম্যাচ সিরিজের টেস্টও তাদের মাটিতেই হোক। কিন্তু হঠাৎ করেই বোল পাল্টেছে পিসিবি। এখন তারা বলছে যেহেতু টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ গুরুত্বপূর্ণ সেহেতু আগে টেস্ট সিরিজটি হোক। টি-টোয়েন্টি সিরিজ না হয় পরে খেলা যাবে।

বিজ্ঞাপন

পাকিস্তানের দেওয়া নতুন এই প্রস্তাবের পর বুধবার (৮ জানুয়ারি) রাত পর্যন্ত সংবাদ মাধ্যমকে চুড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত জানাতে পারেননি বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সিদ্ধান্ত জানাবেন পরদিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) পরিচালকদের সঙ্গে আলোচনা শেষে।

বিসিবি সভাপতি জানিয়েছেন, ‘এখন পর্যন্ত যেটা হচ্ছে যে আমরা তাদেরকে জানিয়েছি টি-টোয়েন্টি খেলে টিম চলে আসতে চায়। টেস্ট পরে একটা সময় রিশিডিউল করা যায় কি না এটা নিয়ে ওদের সাথে আলাপ করছিলাম। ওদের নজর টেস্টের দিকেই। ওরা এটা নিয়েই বেশি আগ্রহী। যেহেতু আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ, তারা বলছে আমরা টেস্টটাই আগে খেলি। টি-টোয়েন্টি পরে খেললেও অসুবিধা নেই। এই পর্যন্তই আছে। আমার ধারণা কালকের মধ্যেই একটা সিদ্ধান্ত জানাতে পারব।‘

বিজ্ঞাপন

এদিকে পাকিস্তান সিরিজে খেলতে কারো কোনো অসুবিধা আছে কিনা সেটা জানতে বুধবার (৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের বেশ কয়েকজন সিনিয়র সদস্যের সঙ্গে সভাপতি পাপন বিসিবিতে বসেছিলেন। মুশফিকুর রহিম যথারীতি অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। আর অন্যরা জানিয়েছেন, সফর সংক্ষিপ্ত হলেই তাদের জন্য ভালো।

‘মুশফিক প্রথম থেকেই যেতে চায়না। অন্য যারা আছে তারা বলছে সফর সংক্ষিপ্ত হলেই ভালো হয়।’

বিজ্ঞাপন

এর মধ্যে আরেকটি অবাক করার মতো ঘটনা ঘেটে গেছে। জাতীয় দলের হয়ে পাকিস্তান সফরে যেতে অস্বীকৃতি জানালেও পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) জন্য নাকি এদেশের বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার ইতোমধ্যেই নাম পাঠিয়েছে। ক্রিকেটারদের এমন দ্বৈত আচরণ পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে সন্দিহান করে তুলেছে। তাদের ভাষ্য হলো, জাতীয় দলের হয়ে সাকুল্যে ১৫ দিনের জন্য যারা পাকিস্তানে আসতে চায় না, তারা পিএসএলে কি করে ৩৫ দিন থাকবে?

অতীব গুরুত্বপূর্ণ সেই বিষয়টি জানতে বিসিবি সভাপাতি ক্রিকেটারদের সঙ্গে বসেছিলেন। তারা তাদের ব্যাখ্যায় জানিয়েছেন, ‘আমরা ড্রাফটে নাম দিয়েছি মানে তো এই না যে পিএসএলে ডাক পেয়েছি। এখানে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের ডাকার ব্যাপার আছে। সর্বপরি বিসিবি থেকেও অনাপত্তিপত্র পাওয়ার ব্যাপার আছে।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এমআরএফ/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন