বিজ্ঞাপন

‘ধর্মীয় অধিকার ক্ষুণ্ন হয়েছে, আমরা ক্ষুব্ধ’

January 14, 2020 | 4:45 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সরস্বতী পূজার জন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তারিখ পেছাতে দায়ের করা রিট খারিজে ক্ষোভ জানিয়েছেন বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী রানা দাশগুপ্ত। এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে বলেও জানান এই আইনজীবী।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ নির্বাচনের তারিখ পেছানোর জন্য করা একটি রিট খারিজ করে দেওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে দেওয়া বক্তব্যে তিনি এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

আদেশের পর রানা দাশগুপ্ত বলেন, নির্বাচন কমিশন ৩০ জানুয়ারি নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে। আমাদের কাছে মনে হচ্ছে, কেন যেন সবকিছু একই সূত্রে গাঁথা। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের যারা ভিন্ন ধর্মাবলম্বী তাদেরও তো ধর্মীয় অনুভূতি আছে। তাদেরও যে পূর্জা-অর্চনা করার অধিকার রয়েছে। আমার মতে এর মধ্য দিয়ে এই অধিকারগুলোকে ক্ষুণ্ন করা হচ্ছে। খর্ব করা হচ্ছে। এমনকি আমাদের যে মৌলিক অধিকার খর্ব করা হচ্ছে কিন্তু আমরা হাইকোর্টে এটি তুলে ধরেছি।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, হাইকোর্ট তিথির বিষয়টি তুলেছেন। ৩০ জানুয়ারি তিথি-লগ্ন, লগ্নতে পূজার সময় আমরা সরস্বতী পূজা করে থাকি। ৩০ তারিখ পূজার যে লগ্ন রয়েছে সেদিন সূর্যদোয়ের পর থেকে ৯টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত সরস্বতি পূজার দিন। আমরা এটা বারেবারে উপস্থাপন করেছি। কিন্তু দুঃখজনকভাবে হলেও সত্য যে, হাইকোর্টের বিচারপতিরা আদেশ প্রদানকালে ২৯ জানুয়ারি কোন কারণে ছুটি দেওয়া হলো এবং ১ ফেব্রুয়ারি স্কুল-কলেজে পরীক্ষা হচ্ছে তারা এ বিষয়টিকে নিয়েই আমাদের রিট আবেদনটি খারিজ করেছেন। কিন্তু পূজার যে ব্যাপকতা এবং পূজার সাথে যে উৎসবের আঙ্গিক এটাকে তারা তাদের আদেশে বিবেচনায় আনার প্রয়োজন মনে করেননি।

রানা দাশগুপ্ত বলেন, যেহেতু হাইকোর্ট এ আদেশ দিয়েছেন, আমরা নাগরিক হিসেবে এই আদেশের বিরুদ্ধে সংক্ষুব্ধ। কারণ উচ্চতর আদালতে এসেও যদি এদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা আইনানুগ সঠিক বিচারটি না পায়, তখন আমরা ভাবি ভবিষ্যতটা কোথায়? আমরা যাব কোথায়?

সারাবাংলা/এজেডকে/জেডএফ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন