শনিবার ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ইং

প্রাচ্যনাট শিক্ষার্থীদের ‘দেওয়ান গাজীর কিসসা’

জানুয়ারি ১৪, ২০২০ | ৯:৫১ অপরাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপন্ডেন্ট

বাংলাদেশের থিয়েটারের বিস্তারে এবং দক্ষ থিয়েটার কর্মী তৈরিতে সুদীর্ঘ ১৮ বছর ধরে কাজ করে চলেছে 'প্রাচ্যনাট স্কুল অব অ্যাকটিং অ্যান্ড ডিজাইন'। এই স্কুলের ৬ মাসের পাঠ্যসূচিতে একজন প্রশিক্ষণার্থী থিয়েটারের সকল আনুষঙ্গিক বিষয়ে একটি স্পষ্ট ধারণা পান। এরইমধ্যে এই স্কুলের ৩৬টি ব্যাচ সফলভাবে তাদের কোর্স সম্পন্ন করেছে। সমাপ্তি ঘটতে যাচ্ছে ৩৭তম ব্যাচেরও।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রাচ্যনাট স্কুল অব অ্যাকটিং অ্যান্ড ডিজাইন-এর ৩৭তম ব্যাচের সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠান। ৩৭তম ব্যাচ তাদের সমাপনী প্রযোজনা হিসেবে বের্টোল্ট ব্রেখট-এর Herr Puntilla and his man Matti অবলম্বনে ‘দেওয়ান গাজীর কিসসা’ উপস্থাপন করবে।

নাটকটি রূপান্তর করেছেন আসাদুজ্জামান নূর এবং নির্দেশনা দিয়েছেন মনিরুল ইসলাম রুবেল। এ অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন অভিনেতা সুভাশিষ ভৌমিক এবং চিত্রশিল্পী বিপুল শাহ্‌। নাট্য প্রদর্শনী ছাড়াও এদিন মিলনায়তনের বাইরে থাকবে উন্মুক্ত পোস্টার প্রদর্শনী।

বিজ্ঞাপন

‘দেওয়ান গাজীর কিসসা’ নাটক প্রসঙ্গে নির্দেশক মনিরুল ইসলাম রুবেল বললেন, ‘এটি স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশের নাট্যাঙ্গনে নাগরিক নাট্য সম্প্রদায় কর্তৃক একটি সাড়া জাগানো প্রযোজনাই শুধু নয় নাটকটিকে বাংলা নাট্য সাহিত্যের সফল সংযোজন বলে মনেকরি। তাই ব্যক্তিগত ভাবে এই নাটকটির প্রতি ভাললাগা ছিল অনেক আগে থেকেই। সে কারণেই প্রাচ্যনাট স্কুলের ৩৭তম ব্যাচের সমাপনী প্রযোজনা হিসেবে এই নাটকটিকে বেছে নিয়েছি। আর তার সঙ্গে ব্রেশটের নাটকের প্রতি বিশেষ দুর্বলতা তো আছেই।’

তিনি আরো বললেন, ‘ব্রেশটের আর সব নাটকের মতোই এই নাটকটির বিষয়বস্তুও স্থান ও কালকে ছাপিয়ে এক চিরন্তন মানবিক গল্প নিয়ে। শ্রেণি চরিত্র ও মানবিকতা-অমানবিকতার দ্বন্দ্ব আবর্তিত হয়েছে হাস্যরসের ছলে। রূপান্তরকারী তার সৃজনের স্বাধীনতার সদ্ব্যবহার করে নাটকটিকে আরো বেশি আমাদের দেখা মানুষের ও কাছের গল্প রূপে হাজির করেছেন। আমাদেরও চেষ্টা ছিল রূপটিকে যথার্থ চেহারা দেওয়া। ’

তিনি বলনে, ‘এ চেষ্টায় যারা শামিল, যারা এই নাটকের কলাকুশলী তারা সবাই নতুন। এমন একটি অভিনয় নির্ভর প্রযোজনা নির্মাণে তাদের উৎসাহ ও নিষ্ঠাই আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে। আশা করি তাদের সেই প্রচেষ্টা সকলের চোখে ও মনে সার্থক হয়ে ধরা দেবে।’

‘দেওয়ান গাজীর কিসসা’ নাটকে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন উইলিয়াম নিক্সন গোমেজ, এ. কে এম ইতমাম, ইয়াদ খোরশিদ ঈশান, রওশন আক্তার, সজীব হাজরা, স্বাতী ভদ্র, রাইয়াত আহমেদ রুপজ, খাইরুল কবির, সাদিয়া তাবাস্‌সুম মৌসুম, এলিজাবেথ ইতি মারান্ডী, আফরিন তানিয়া, নাহিদা আক্তার আঁখি, মোঃ মাহদী হাসান, আব্দুল্লাহ-আল-মামুন, মোঃ হাসানুজ্জামান, সাইফুল ইসলাম সাকিব, মোঃ আকতার - উজ – জামান, তাহমিম হাবিব খান, রঞ্জন মীর মহসীন, প্রদীপ বর্ধন, মোঃ কামাল হুসাইন, তাউসিফ-উল আলম জুলফিকার, মোঃ মাহফুজুল হক শাওন, মোঃ মুহাইমিন আহমেদ ও আব্দুস সালাম রাজ। নাটকটিতে কোরিওগ্রাফি করেছেন স্নাতা শাহরিন, সুর ও সঙ্গীতে এ বি এস জেম, মঞ্চ ও আলোতে শওকত হোসেন সজীব এবং পোশাকে প্রজ্ঞা তাসনুভা রূবাইয়াৎ।

সারাবাংলা/এএসজি/আইই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন