শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ৪ রজব ১৪৪১

বিজ্ঞাপন

যেভাবে এগুচ্ছে পদ্মাসেতুর সড়কপথ

জানুয়ারি ১৬, ২০২০ | ২:১৬ অপরাহ্ণ

সাব্বির আহমেদ, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

প্রকল্প এলাকা থেকে ফিরে: শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্ত থেকে পদ্মাসেতুর ওপর দিয়ে সড়ক আসছে মুন্সিগঞ্জের মাওয়ার দিকে। প্রায় ৩ হাজার রোডওয়ে স্লাব বসানোর পর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মাসেতু দুটি জেলার মধ্যে সংযোগ স্থাপন করবে। এতে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হবে।

বিজ্ঞাপন

সেই লক্ষ্যে এখন পর্যন্ত পদ্মাসেতুর ১৮৬ টি স্লাব বসানো হয়েছে। ফলে জাজিরা অংশে সেতুর ওপর সড়কপথ এখন দৃশ্যমান। আর এই নির্মাণযজ্ঞ দ্রুত এগিয়ে নিতে যোগ দিচ্ছে আরও তিনটি দেশি-বিদেশি টিম।

১৪ জানুয়ারি পদ্মাসেতুর সড়কপথ ঘুরে দেখা গেছে, একটি দলে কয়েকশ শ্রমিক ভাগ হয়ে একেকটি রোডওয়ে স্লাব বসানোর কাজ করছেন। প্রথমদিকে দিনে একটি স্লাব বসানো হলেও এখন দিনে সর্বোচ্চ সাতটি রোডওয়ে স্লাব বসাতে পারছেন তারা। এ ধরণের আরেকটি দল কাজ শুরু করেছে মাঝনদীর ওপর স্থাপন করা স্প্যানে। এছাড়া আরও দুটি দল যুক্ত হলে দিনে অন্তত ১৫টির বেশি স্লাব বসানো যাবে বলে জানিয়েছেন কর্মরত শ্রমিকরা।

বিজ্ঞাপন

প্রকল্প এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, দিনরাত মিলিয় ২৪ ঘণ্টাই চলে পদ্মাসেতুর রোডওয়ে স্লাব বসানোর কাজ। একটি রোডওয়ে স্লাব প্রথমে ক্রেনে উপরে তুলে পদ্মাসেতুর সড়কপথে রাখা একটি ট্রাকে বসানো হয়। ট্রাকটি সেটা টেনে সামনের দিকে নিয়ে যায়। তারপর লিফটের মাধ্যমে এটি বসিয়ে দেওয়া হয়। আর এ কাজে যুক্ত থাকেন দেশি-বিদেশি কয়েশ শ্রমিক ও প্রকৌশলী।

সরেজমিনে দেখা গেছে, এখন একটা রোডওয়ে স্লাব বসাতে তিন থেকে চার ঘণ্টা সময় লাগে। এভাবেই দিনে এখন সাতটা স্লাব বসানো যায়। তবে সামনের দিনগুলোতে আরও বেশি বসানো যাবে বলে জানিয়েছেন কর্মরত শ্রমিকরা। রোডওয়ে স্লাব মূলত সেতুতে তোলার পর আরেকটি স্প্যানের সঙ্গে জায়ান্ট দেওয়া হয়। এভাবে একটু একটু করে এগিয়ে যেতে থাকে সড়কের পাটাতন বসানোর কাজ। এই পাটাতনের ওপর নির্মাণ হবে পিচঢালা সড়ক।

দেশের এই মেগা প্রকল্পের প্রক্ল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান, পদ্মাসেতুতে মোট ৪১টি স্প্যান বসানো হবে। এর মধ্যে মাওয়া কনস্ট্রাকশন গ্রাউন্ডে এসেছে ৩৫টি স্প্যান। যেখান থেকে ২১টি স্প্যান স্থাপন করা হয়েছে। এতেই দৃশ্যমান হয়েছে ৩ হাজার ১৫০মিটার। চীনে বর্তমানে বাকি স্প্যান তৈরির কাজ চলছে। যদিও এরই মধ্যে দুটি স্প্যান সুমদ্রপথ দিয়ে বাংলাদেশের দিকে আসছে। সবগুলো স্প্যান আগামী মার্চের মধ্যে বাংলাদেশে এসে পৌঁছবে। আর এগুলো জুলাইয়ের মধ্যে পিলারে বসিয়ে দেওয়া হবে।

প্রকল্প অনুযায়ী, মূলসেতু গড়ে উঠছে ৪২টি পিলারের ওপর। এর মধ্যে ৩৬টি পিলারের কাজ শতভাগ শেষ হয়েছে। বাকি ছয়টির কাজ আগামী এপ্রিলের মধ্যে শেষ হবে। আর ২০২১ সালের জুনে শেষ হবে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় নির্মাণ প্রকল্প পদ্মাসেতুর কাজ।

সেতু প্রকল্প সূত্র জানায়, এ বছরের ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত মূলসেতুর বাস্তব কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৮৫ দশমিক ৫০ শতাংশ। এতে আর্থিক অগ্রগতি ৮০ দশমিক ৩৭ শতাংশ। পদ্মার মূলসেতুতে খরচ হবে ১২ হাজার ১৩৩ দশমিক ৩৯ কোটি টাকা। এ পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে ৯ হাজচার ৭৫১ দশমিক ১৯ কোটি টাকা। এছাড়া পদ্মাসেতুর নদীশাসন কাজের বাস্তব অগ্রগতি ৬৬ শতাংশ। এর আর্থিক অগ্রগতি হয়েছে ৫২ দশমিক ৪৭ শতাংশ। নদী শাসন কাজের চুক্তিমূল্য ৮ হাজার ৭০৭ দশমিক ৮১ কোটি টাকা। এ পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে ৪ হাজার ৫৬৯ দশমিক শূন্য ৪ কোটি টাকা।

সেতু প্রকল্প সূত্র আরও জানায়, সংযোগ সড়ক ও সার্ভিস এরিয়ার বাস্তব কাজের অগ্রগতি শতভাগ শেষ হয়েছে। সংযোগ সড়ক ও সার্ভিস এরিয়ার জন্য মোট খরচ ধরা হয়েছিল ১ হাজার ৪৯৯ দশমিক ৫১ কোটি টাকা। এছাড়া ভূমি অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসনে ব্যায় হয়েছে ৪ হাজার ৩৪২ দশমিক ২৬ কোটি টাকা। এছাড়া প্যানেল অব এক্সপার্ট, পরামর্শক, সেনানিরাপত্তা, ভ্যাট ও আয়কর, যানবাহন, বেতন ও ভাতাদি এবং অন্যান্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৫১০ দশমিক ৪২ কোটি টাকা। প্রকল্পের সর্বমোট বাজেট ৩০ হাজার ১৯৩ দশমিকক ৩৯ কোটি টাকা। এ পর্যন্ত সর্বমোট ব্যয় হয়েছে ২১ হাজার ৩৩৪ দশমিক ৫৩ কোটি টাকা; যা মোট ব্যয়ের ৭০ দশমিক ৬৬ শতাংশ। আর প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৭৬ দশমিক ৫ শতাংশ।

সারাবাংলা/এসএ/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন