শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ৪ রজব ১৪৪১

বিজ্ঞাপন

শিশু ধর্ষণের সাজা মৃত্যুদণ্ড কেন নয়, হাইকোর্টের রুল

জানুয়ারি ২০, ২০২০ | ১২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ১৬ বছর বা তার কম বয়সী শিশু ধর্ষণের শিকার হলে ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে আইন করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

বিজ্ঞাপন

ধর্ষণ আইনের সাজা নিয়ে এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে রোববার (১৯ জানুয়ারি) বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন। একই ইস্যুতে আদালত আরও কয়েকটি রুল দেন।

ধর্ষণ মামলার দ্রুত নিষ্পত্তি করতে বিশেষ আদালত গঠনের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, ধর্ষকের ডিএনএ টেস্ট সংরক্ষণের জন্য ডেটাবেজ (তথ্যভাণ্ডার) তৈরির কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, প্রতিটি জেলায় ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারের মাধ্যমে ভিকটিমকে সহায়তা দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, ভিকটিমের ছবি গণমাধ্যমে প্রচার-প্রকাশের ক্ষেত্রে কেন সতর্কতা অবলম্বন করার নির্দেশ দেওয়া হবে না— এসব বিষয়ও রুলে জানতে চান আদালত।

বিজ্ঞাপন

আইন, স্বাস্থ্য, স্বরাষ্ট্র ও মহিলা বিষয়ক সচিব, পুলিশের আইজিসহ মামলার সংশ্লিষ্ট বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি অন্তবর্তীকালীন একটি নির্দেশনাও দিয়েছেন আদালত।

সারাদেশে ধর্ষণ প্রতিরোধ এবং ভিকটিমকে সুরক্ষা, নিরাপত্তা ও সহায়তা দিতে একমাসের মধ্যে আইন মন্ত্রণালয়কে একটি কমিশন গঠনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ধর্ষণ প্রতিরোধে একটি সুপারিশমালা তৈরি করে আগামী ছয় মাসের মধ্যে তা আদালতে দাখিল করতে হবে এই কমিশনকে।

আইন মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে এ কমিশনে চিকিৎসক, বিচারক, মানবাধিকারকর্মী, নারী অধিকারকর্মী, শিক্ষাবিদ ও সাংবাদিকদের রাখতে বলা হয়েছে।

রাজধানীর কুর্মিটোলা এলাকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হলে হাইকোর্টে রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খন্দকার এম এস কাউসার। শিশু ধর্ষণের ক্ষেত্রে ধর্ষকের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড চাওয়া হয় ওই রিটে। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী রাবেয়া ভূঁইয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

সারাবাংলা/এজেডকে/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন