বিজ্ঞাপন

চুরির অপবাদে কিশোরের গলায় জুতার মালা-নির্যাতন, থানায় মামলা

জানুয়ারি ২০, ২০২০ | ১১:২৫ অপরাহ্ণ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুরে চুরির অপবাদ দিয়ে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে এক কিশোরকে (১৬) মারধর, ঝাড়ু ও জুতার মালা গলায় পরিয়ে নির্যাতন চালানো হয়েছে। নির্যাতনের সেসব ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হলে এলাকায় নিন্দার ঝড় ওঠেছে। এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন স্থানীয়রা। সোমবার (২০ জানুয়ারি) সকালে ভুক্তভোগীর নানী আলেয়া বেগম থানায় মামলাও দায়ের করেছেন।

বিজ্ঞাপন

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই কিশোর জানায়, ছয় মাস ধরে স্থানীয় রাশেদের চামড়ার দোকানে শ্রমিকের কাজ করতো সে। দীর্ঘদিন কাজ করা হলেও তাকে বেতন দেওয়া হয়নি। যে কারণে মালিকের অগোচরে নিজের পাওনা টাকাই সে নিয়েছে। এ ঘটনায় মালিক রাশেদ ক্ষিপ্ত হয়ে চুরির অপবাদ দিয়ে তার গলায় জুতার মালা পরিয়ে নির্যাতন করে।

কিশোরের নানাী আলেয়া বেগম জানান, এ ঘটনায় তাদের সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়েছে। সালিশি বৈঠকে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর শিপন, সালিসদার ইসমাইলসহ মাতব্বররা তার নাতিকে দোষী সাব্যস্ত করে ৩০ হাজার টাকা জরিমানাও করেছে। এসময় জরিমানা দিতে না চাওয়ায় তাকে মারধর করা হয়। পরে অবস্থার বেগতিক দেখে স্থানীয়রা ওই কিশোরকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে, সে এখনো চিকিৎসাধীন।

বিজ্ঞাপন

তবে ঘটনা সম্পর্কে অবহিত নন বলে দায় এড়িয়ে যান লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শিপন ও সালিশদার ইসমাইল। তারা বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। এমন কিছুর সঙ্গেই তারা জড়িত নন।’

সদর হাসপাতালে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন জানান, যে বীভৎসভাবে তাকে নির্যাতন ও মারধর করা হয়েছে তা শাস্তিযোগ্য। ওই কিশোরের চিকিৎসা চলছে। ভালো হতে সময় লাগবে।

সদর থানার ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আজিজুর রহমান মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, এক কিশোরকে নির্যাতনের ঘটনায় ৪ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলেও জানান তিনি।

সারাবাংলা/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন