শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৮ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৬ জমাদিউস-সানি ১৪৪১

বিজ্ঞাপন

ভৈরবে বোয়ালের আশায় বড়শি ফেলে ৮ মণের স্টিং রে

জানুয়ারি ২১, ২০২০ | ১০:০০ অপরাহ্ণ

এম এ হালিম, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

ভৈরব: বিশালাকৃতির এক স্টিং রে মাছ নিয়ে হৈ চৈ পড়েছে ভৈরবের আশুগঞ্জে। মেঘনা নদীতে বড়শি ফেলে মাছটি ধরেছেন কাজল মিয়া নামের এক জেলে। এটির  ওজন আট মণ, বিক্রি হয়েছে ৪৫ হাজার ৫ শ টাকায়।

বিজ্ঞাপন

বিগত দু মাস ধরে বোয়াল মাছ ধরতে মেঘনায় বড়শি ফেলে চলছেন জেলে কাজল মিয়া। মাছের আহার হিসেবে বড়শিতে দিতেন পুঁটি মাছ। তবে কাজল মিয়ার কপাল ফিরল মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে।

পাঁচ ইঞ্চি বড়শিতে হঠাৎ ধরা পড়ল স্থানীয়ভাবে পানপাতা নামে পরিচিত স্টিং রে মাছটি। এত বড় মাছ একা কাবু করা সম্ভব হচ্ছিল না কাজল মিয়ার পক্ষে। অন্য জেলা ও স্থানীয় লোকসহ অন্তত ২০ জন তাকে সাহায্য করতে আসে। কিন্তু তাতেও কাজ হচ্ছিল না দেখে মাছ শিকারের কোচ দিয়ে আঘাত করে স্টিং রেটি দুর্বল করে ডাঙায় তোলা হয়।

বিজ্ঞাপন

পরে মাছটিকে আশুগঞ্জ বাজারে নিয়ে আসেন তিনি। তবে আশানুরূপ দাম না পাওয়া বিকেলে ভৈরবের ঐহিত্যবাহী মৎস্য আড়তে ৪৫ হাজার ৫শ টাকায় মাছটি বিক্রি করা হয়। মাছটি কিনেন বাজারের নদীয়া মৎস্য আড়তের স্বত্বাধিকারী মো. পারভেজ মিয়া।

বড় এই মাছটি শিকার করতে পারায় তার দরিদ্র সংসারে উপকার হবে বলে জানান কাজল মিয়া। উপর-ওয়ালার কাছে শুকরিয়া আদায় করে তিনি জানান, খুচরা বাজারে এটির আরও বেশি দাম পাওয়া যাবে।

এদিকে মাছের ক্রেতা পাইকার পারভেজ মিয়া বলেন, এসব মাছ বছরে দু একবার বাজারে উঠে। কেজি প্রতি বিক্রি করলেও মাছটি অনন্ত ৭০ থেকে ৮০হাজার টাকা বিক্রি হবে। মূলত লাভের আশা করেই তিনি মাছটি কিনেছেন।

বাজারে এত বড় মাছ উঠাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন, ভৈরব মৎস্য আড়ৎ এর সভাপতি মো. মজিবুর রহমান। তিনি জানান, বাংলাদেশের ২য় বৃহত্তর মৎস আড়ৎ হিসেবে এ বাজারটি সারাদেশে পরিচিত। আজকে ‘পানপাতা’ মাছ দেখতেও অনেক মানুষের ভিড় জমেছে। এতে করে বাজারের সুনাম বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সারাবাংলা/এনএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন