বিজ্ঞাপন

বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে চবিতে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু

January 22, 2020 | 2:11 pm

চবি করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) দুদিনের কেন্দ্রীয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত মুজিববর্ষকে সামনে রেখে এই মহান নেতার নামে এবারের আয়োজন উৎসর্গ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিজ্ঞাপন

প্রতিযোগিতায় অ্যাথলেটিক্সের ৩৫টি ইভেন্টে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের ১১টি হলের কমপক্ষে ২০৪ জন ক্রীড়াবিদ অংশ নিচ্ছেন।

বুধবার (২২ জানুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে এই বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরিণ আখতার। এর আগে জাতীয় পতাকা, বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা, অলিম্পিক পতাকা ও প্রতিটি হলের পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে মশাল হাতে ক্রীড়াবিদদের ক্রীড়াঙ্গণে প্রবেশ ও মাঠ প্রদক্ষিণ করেন রবিউল ইসলাম ও উষা চাকমা।

উদ্বোধনী বক্তব্যে উপাচার্য শিরিণ আখতার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে যে দুইদিনব্যাপী কেন্দ্রীয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আমরা মুজিববর্ষকে উৎসর্গ করছি। খেলায় একটি সুন্দর শিক্ষা আছে। খেলধুলা মানুষকে সুস্বাস্থ্যের অধিকারী করে তোলার পাশাপাশি মানসিকভাবে জীবন যুদ্ধে জয়-পরাজয়কে মেনে নিতে শেখায়। খেলাধুলা যেমন শক্তি ও সাহস যোগায়। অন্যদিকে প্রেরণার উৎসাহও বটে। খেলাধুলার মাধ্যমে ভ্রাতৃত্ব ও বন্ধুত্বপূর্ণ মনোভাব গড়ে উঠে।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, খেলাধুলায় মন থাকলে পড়ালেখায় মনযোগ ফিরে আসে। মাদক, জঙ্গীবাদ থেকে তারা দূরে সড়ে দাঁড়ায়। পৃথিবীর অনেক দেশ ক্রীড়াক্ষেত্রে এগিয়ে গেছে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা পড়েলেখার পাশাপাশি খেলাধুলায় জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে অবদান রেখেছে। ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের তিনজন ছাত্র নেপালে অনুষ্ঠিত এস এ গেমসে রৌপ্য পদক পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় তথা দেশের গৌরব বয়ে এনেছে। আমাদের ছাত্র-ছাত্রীরা এই ধারা অব্যাহত রাখবে বলে আমি আশা করছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো দেশের অন্যকোনো বিশ্ববিদ্যালয় দীর্ঘদিন ধরে এরকম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে পারে না। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে এই পরিবেশ আছে বলে সম্ভব হয়েছে। জাতীয় জীবনে খেলাধুলার বিশেষ গুরুত্ব বিদ্যমান। খেলাধুলা সুস্থ সবল জাতি গঠন করে তারুণ্যদীপ্ত হাস্যোজ্জ্বল জীবন গঠনে অবদান রাখে। খেলাধুলায় নিয়মকানুন আছে। এই নিয়মকানুন মেনে নিয়ে ক্রীড়াবিদরা অংশগ্রহণ করবে। তাদের শৃঙ্খলা বজায় রেখে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সফলতা কামনা করছি।

এর আগে সকালে চবি পরিবার ও শিক্ষার্থীদের আয়োজনে কেন্দ্রীয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উপলক্ষে এক মাদক বিরোধী র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। এতে নেতৃত্ব দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরিণ আখতার। পরে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় শারীরিক শিক্ষা বিভাগের উপ-পরিচালক রাশেদ বিন আমিন চৌধুরী সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সেকান্দর চৌধুরী। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল অনুষদের ডিন, চবি সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্য, শিক্ষক সমিতি, প্রক্টরিয়াল বডি, সকল হলের প্রভোস্ট, শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ অনেকে।

উল্লেখ্য গত ৬ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আলাওল হলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে অন্যান্য হলসহ ১৮ দিনব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উৎসব শুরু হয়। হলভিত্তিক বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় কৃতী ক্রীড়াবিদরা দুদিনের কেন্দ্রীয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন।

সারাবাংলা/সিসি/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন