বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামে ফোর জি নেটওয়ার্ক ৬০ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা রবি’র

January 25, 2020 | 9:35 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: ২২ বছর ধরে নিরবচ্ছিন্নভাবে সঙ্গে থাকার জন্য গ্রাহকদের প্রতি ‍কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ‘ধন্যবাদ চট্টগ্রাম’ নামে ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠান করেছে বেসরকারি মোবাইল অপারেটর ‘রবি’। অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানটির ঊর্দ্ধতনরা জানিয়েছেন চট্টগ্রামে রবি’র বিশাল কর্মযজ্ঞের কথা। গান, কথামালাসহ বিভিন্ন আয়োজনে উপভোগ্য হয়ে ওঠে পুরো অনুষ্ঠান।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (২৫ জানুয়ারি) বিকেল চট্টগ্রামের হোটেল রেডিসন ব্লু বে ভিউতে এই অনুষ্ঠান হয়েছে। এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- রবি’র এমডি অ্যান্ড চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার মাহতাব উদ্দীন আহমেদ, চিফ কমার্শিয়াল অফিসার শিহাব আহমেদ এবং চিফ এন্টারপ্রাইজ বিজনেস অফিসার আদিল হোসেন।

বক্তারা বলেন, ‘দুই যুগ আগে এই চট্টগ্রাম থেকেই রবির যাত্রা শুরু হয়েছিল। এরপর ‘জ্বলে উঠুন আপন শক্তিতে’ স্লোগানকে সামনে রেখে ডিজিটাল বাংলাদেশের আলো জ্বালাতে রবি নিরলসভাবে কাজ করে গেছে। সেই চট্টগ্রামবাসীকে ধন্যবাদ দেয়ার জন্যই আজকের এই আয়োজন। গ্রাহবান্ধব কোম্পানি হিসেবে যুগের চাহিদা অনুযায়ী সম্প্রতি আমরা গ্রহণ করেছি নতুন স্লোগান ‘লাইফ-এ নতুন এক্সপেরিয়েন্স’।’

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামে ফোর জি নেটওয়ার্ক ৬০ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা রবি’র
ঊর্দ্ধতনরা জানান, চট্টগ্রামে মার্কেট লিডার থেকে রবির নেটওয়ার্ক ৩০ শতাংশ বেশি বিস্তৃত। চট্টগ্রাম শহরের প্রতি বর্গকিলোমিটার এলাকায় যেখানে রবির ৪টি সাইট আছে, সেখানে অন্যদের তিনটি সাইটও নেই। শীর্ষ ডিজিটাল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে চট্টগ্রাম শহরের ৯৪ শতাংশ এলাকা রবির ৪জি-৩জি কভারেজের আওতায় আছে। গ্রামীণফোনের তুলনায় চট্টগ্রামে রবির ৪জি সাইটের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ। শুধু তাই নয়, ঘরের ভেতরে নেটওয়ার্ক পেতে আপনাদের যাতে সমস্যায় পড়তে না হয়, সেজন্য রবি চট্টগ্রামে U900 প্রযুক্তি ব্যবহার করে, যা অন্য কোনো অপারেটর করে না। এর ফলে চট্টগ্রামে রবির ইনডোর কাভারেজ প্রতিযোগীদের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি। শুধু চট্টগ্রাম শহর নয়, পুরো চট্টগ্রাম বিভাগেই রবির নেটওয়ার্কের ধারে-কাছে কেউ নেই। বিস্তৃত এ নেটওয়ার্কের কারণেই চট্টগ্রামে রবির ৪ জি মার্কেট শেয়ার ৭৮ শতাংশ।

চলতি বছরের মধ্যেই চট্টগ্রাম শহরে রবির ৪জি সাইটের সংখ্যা আরও ২০ শতাংশ এবং পুরো চট্টগ্রাম বিভাগে এ সংখ্যা আরও ৬০ শতাংশ বাড়ানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরডি/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন