বিজ্ঞাপন

দুর্দিনে সুখবর, চালু হচ্ছে বন্ধ সিনেমা হল

জানুয়ারি ২৬, ২০২০ | ৪:৫৫ অপরাহ্ণ

আহমেদ জামান শিমুল

নব্বই দশকের শেষের দিকে অশ্লীলতা নামক এক কালো থাবা গ্রাস করেছিলো দেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিকে। সেই থাবা থেকে অনেক কষ্টে চলচ্চিত্রকে উদ্ধার করা গেলেও ইতোমধ্যে তা কেড়ে নিয়েছে অনেক কিছু— দর্শক, সিনেমা হল, ভালো ছবি।

বিজ্ঞাপন

হল মালিকরা গত এক দশক ধরে অভিযোগ করে আসছেন ছবি চলে না, তাই তারা হল চালু রাখতে পারছেন না। ১২শ সিনেমা হল থেকে এখন দেশে চালু হল রয়েছে মাত্র দেড়শ। সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির এ দুর্দিনে সারাবংলা তার পাঠকদের জানাতে চায় একটি সুখবর।

চট্টগ্রামের কাজির দেউরিতে চল্লিশ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো ‘ঝুমুর সিনেমা হল’। সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির সুসময়ে রমরমা ব্যবসা করেছে হলটি। হলের মালিক যুক্ত হয়েছিলো সিনেমা প্রযোজনায়ও। সালমান শাহ্ অভিনীত বিখ্যাত ছবি ‘সত্যের মৃত্যু নেই’ তাদেরই প্রযোজনা। কিন্তু ২০১৫ সালে দর্শক খড়ায় ও ক্রমাগত লোকসানের কারণে হলটি বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন মালিক আবুল হোসেন।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু যে হলের সাথে চল্লিশ বছরের ভালোবাসা, তার সাথে এত সহজে কি বিচ্ছেদ হয়। ভালোবাসার টানে ‘ঝুমুর সিনেমা হল’ আবার চালু করলেন আবুল হোসেন। তবে এবার নতুন নামে—‘সুগন্ধা সিনেমা হল’।

ভালোবাসার হলটিকে আবুল হোসেন নতুন করে সাজিয়েছেন। এনেছেন নতুন সিট, প্রজেকশন। করেছেন শীততাপ নিয়ন্ত্রনের ব্যবস্থা। তবে কমিয়েছেন আগের চেয়ে সিট সংখ্যা। বর্তমানে সিট ২১৬টি, টিকেট মূল্য ২০০ টাকা। প্রতিদিন শো চলবে চারটি।

আবুল হোসেন সারাবাংলাকে বলেন, ‘আমরা আগামীকাল (২৭ জানুয়ারি) থেকে হলটি নতুন করে চালু করছি। আশা করছি দর্শক আমাদেরকে হতাশ করবেন না।’

বর্তমানে হলটির দেখা শোনা করবেন আবুল হোসেনের ছেলে শাহাদাত হোসেন। নতুন যাত্রা নিয়ে তিনি বেশ আশাবাদী। বললেন, ‘জানি এখন সিনেমার ব্যবসা নেই। কিন্তু আমাদের পারিবারিক ব্যবসা এটি। যতই লস হোক আমরা এটি ছাড়বো না। আমি বিশ্বাস করি একদিন দিন ফিরবে।’

তিনি স্বপ্ন দেখেন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সিনেমা হলটি হবে তাদের। এবং এ স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবেন আগামী পাঁচ বছরের মধ্যেই।

‘সুগন্ধা সিনেমা হল’ উদ্বোধন হচ্ছে নিয়ামুল মুক্তা পরিচালিত ‘কাঠবিড়ালী’ দিয়ে। আগামীকাল বিকেল ৩টায় হবে উদ্বোধনী শো। শাহাদাত হোসেনের আশাবাদ দর্শকরা ছবিটি ভালো ভাবে নিবেন।

সারাবাংলা/এজেডএস/পিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন