সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২২ জমাদিউস-সানি ১৪৪১

৬০ পদে কর্মী নিচ্ছে ২০ প্রতিষ্ঠান, মেলায় আগ্রহীদের ভিড়

জানুয়ারি ২৭, ২০২০ | ১১:৪৩ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: মেলায় এসে চাকরি প্রার্থীরা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিজের জীবন বৃত্তান্ত (সিভি) জমা দিচ্ছেন। কেউ অংশ নিচ্ছেন ওয়াক-ইন-ইন্টারভিউয়ে। অনেকেই জেনে নিচ্ছেন নানা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে। বাজারে নিজের জন্য উপযুক্ত চাকরি রয়েছে কি না— সে সম্পর্কে জানার আগ্রহও দেখা গেছে কারও কারও মধ্যে।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর ফার্মগেটে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক ক্যাম্পাসে চলমান ইউএপি ক্যারিয়ার ফেয়ারে এ চিত্র দেখা গেছে। এনআরবি জবস ও ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক যৌথভাবে এ মেলার আয়োজন করেছে। চলমান এই মেলা শেষ হবে আগামীকাল (২৮ জানুয়ারি)।

মেলার আয়োজক প্রতিষ্ঠান এনআরবি জবসের ম্যানেজার (কন্টেন্ট ডেভেলপার) তৌহিদুর রহমান সারাবাংলাকে বলেন, মেলায় ২০টি কোম্পানি অংশ নিচ্ছে। ৬০টি পদে চাকরির অফার দেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান সিভি সংগ্রহের পর শর্ট লিস্ট করবে। সেই লিস্ট অনুযায়ী আগামীকাল (মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি) তাদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে। মেলায় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রচুর সাড়া পাওয়া যাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

রিয়েল এস্টেট প্রতিষ্ঠান বিপ্রপার্টি ডটকম বিভিন্ন পদে লোকবল নিচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি এক্সিকিউটিভ, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ, সেলস অ্যাডভাইজর, জুনিয়র এক্সিকিউটিভ, এক্সিকিউটিভ কাস্টমার সার্ভিসসহ বিভিন্ন পদে আগ্রহী প্রার্থীদের সিভি জমা নিচ্ছে। এছাড়াও যোগ্য প্রার্থী খুঁজতে ওয়াক-ইন-ইন্টারভিউ (তাৎক্ষণিক সাক্ষাৎকার) নিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিপ্রপার্টির ম্যানেজার (রিক্রুটমেন্ট) মাহফুজুর রহমান চৌধুরী সারাবাংলাকে বলেন, আমরা রিক্রুটমেন্ট অ্যাসেসমেন্ট টেস্ট নিচ্ছি। ট্যাবের মাধ্যমে এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এখন পর্যন্ত ২০টি সিভি জমা পড়েছে।

মেলায় বেশ কয়েকটি পদে চাকরি অফার করছে সিএসএল সফটওয়্যার রিসোর্সেস লি.। এইচআর, প্রোগ্রামার, ডেভেলপার, ইমপ্লিমেন্টর, সেলস কো-অর্ডিনেটর পদে একদম সদ্যস্নাতকদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

প্রতিষ্ঠানটির অ্যাসোসিয়েট বিজনেস অ্যানালিস্ট শিমুল পারভেজ সারাবাংলাকে বলেন, আমরা সফটয়্যার সার্ভিস, এইচআর সফটওয়্যার, ইআরপি ও ভ্যাট সফটওয়্যার তৈরি করে থাকি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আমাদের সফটওয়্যার রফতানি হয়ে থাকে। ইথিওপিয়া, কম্বোডিয়া, শ্রীলংকা, হংকং, ভারত ও জর্ডানে এইচআর (কর্মী) সফটওয়্যার আমরা রফতানি করছি। মেলায় আমরা ফ্রেশারদের সুযোগ দিচ্ছি। বিভিন্ন ক্ষেত্রে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর শেষ করেছেন— এমন শিক্ষার্থীরা চাকরির জন্য আবেদন করতে পারবেন। এরই মধ্যে ১২টি সিভি জমা পড়েছে। আগামীকাল (মঙ্গলবার) তাদের ভাইভা অনুষ্ঠিত হবে।

ব্র্যাক তাদের প্রতিষ্ঠানে অফিসার অ্যাকাউন্টস, সেলস সুপারভাইজর,  অফিসার (প্রোডাকশন), অ্যাসিসট্যান্ট অফিসার (প্রোডাকশন) ও এরিয়া সেলস ম্যানেজার পদে লোকবল নিচ্ছে। মেলায় তাদের স্টলও রয়েছে।

ব্র্যাকের ডেপুটি ম্যানেজার রিয়াদ মো. তানভীর সারাবাংলাকে বলেন, স্নাতক ও স্নাতকোত্তর উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের জন্য ব্র্যাকে জব অফার দেওয়া হচ্ছে। আমাদের এখানে ১৫টির মতো সিভি জমা পড়েছে। এছাড়া অনেকেই অনলাইনে আবেদন করছেন। সবমিলিয়ে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন জব সম্পর্কে জানার আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

তিনি আরও বলেন, শিগগিরই আমাদের ম্যানেজমেন্ট ট্রেনিং পোগ্রাম আসছে। সেখানে তরুণদের প্রশিক্ষিত করে তোলা হবে। তাদের আলাদা নার্সিং করা হবে, যেন তারা ব্র্যাকের ফিউচার লিডার হতে পারে। এ পদে ‘হ্যান্ডসাম’ স্যালারিও রয়েছে বলে জানালেন তিনি।

আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠান অগমেডিক্স মেলায় লোক নিচ্ছে স্ক্রাইব পদে। প্রতিষ্ঠানটি আমেরিকান চিকিৎসকদের মেডিকেল ডক্যুমেন্টাশেনে সাহায্য করে থাকে। ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে রোগীর বিভিন্ন তথ্য রেকর্ড করা হয়, আর ঢাকায় বসে কর্মীরা তা করে থাকেন।

প্রতিষ্ঠানটির এইচআর এক্সিকিউটিভ তাজভীর আহমেদ সারাবাংলাকে বলেন, আমাদের এখানে স্ক্রাইবরা গুগল গ্লাস (ইন্টারনেটে সংযুক্ত বিশেষ ধরনের চশমা) ব্যবহার করেন। আমেরিকায় একজন চিকিৎসক যখন রোগীর সঙ্গে কথা বলেন, তখন ঢাকায় বসে স্ক্রাইবরা গুগল গ্লাসের মাধ্যমে তা লাইভ দেখতে পান। তারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো কম্পিউটারে লিপিবদ্ধ করেন। রোগীর সঙ্গে কথা বলা শেষেই ডাক্তার তা ডিজিটাল ফরম্যাটে দেখতে পান। এতে ডাক্তারদের সময়ের সাশ্রয় হয়।

তাজভীর জানান, মেলায় ৯টির মতো সিভি জমা পড়েছে। এছাড়াও প্রতি মঙ্গলবার ও শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় তাদের অফিসে রিক্রুটমেন্ট সেশন অনুষ্ঠিত হয়। সেই সেশন থেকে দক্ষদের নিয়োগ দেওয়া হয়ে থাকে।

মেলায় রক্সি পেইন্টসও বিভিন্ন পদে জনবল নিচ্ছে। দুপুর পর্যন্ত ৯টি সিভি জমা পড়েছে তাদের কাছে। লিডস সিস্টেম নামে একটি আইটি ও সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠান ইঞ্জিনিয়ার ও সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারসহ বিভিন্ন পদে লোকবল নিচ্ছে মেলায়।

মেলায় চারটি প্রতিষ্ঠানে সিভি জমা দিয়েছেন ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স (ইইই) বিভাগের শিক্ষার্থী সৈয়দ রাইসুল ইসলাম। সারাবাংলাকে তিনি বলেন, বর্তমানে আমি ফাইনাল ইয়ারে পড়ছি। কয়েকদিন পরই লেখাপড়া শেষ হবে। এখন থেকেই চাকরির বাজার সম্পর্কে ধারণা নেওয়ার চেষ্টা করছি। মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে একেবারে নতুন করে নানা তথ্য জানতে পেরেছি। চারটি প্রতিষ্ঠানে সিভিও জমা দিয়েছি। আগামীকাল ভাইভা নেওয়ার কথা আছে।

বিশ্ববিদ্যালের বিবিএ’র শিক্ষার্থী অনন্যা মাহবুব বলেন, দু’টি প্রতিষ্ঠানে সিভি জমা দিয়েছি। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জেনে রেখেছি। এ ধরনের মেলা আয়োজন করায় ব্যক্তিগতভাবে আমি উপকৃত হয়েছি। দেশে আরও বেশি বেশি জব ফেয়ার হওয়া উচিত বলে মনে করেন তিনি।

সারাবাংলা/ইএইচটি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন