বিজ্ঞাপন

বর্ণাঢ্য আয়োজনে ‘সোলাস্তা’র যাত্রা শুরু

ফেব্রুয়ারি ১, ২০২০ | ১২:৩১ পূর্বাহ্ণ

রাজনীন ফারজানা, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর

ঢাকা: তরুণ প্রজন্মের জন্য নতুন ফ্যাশন ব্র্যান্ড হিসেবে যাত্রা শুরু করলো মডেল গ্রুপের সহ প্রতিষ্ঠান সোলাস্তা। বি ইউ, বি নিউ স্লোগানে যাত্রা শুরু করেছে তারা। শুক্রবার (৩১ জানুয়ারি) রাজধানীর রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেনের উৎসব হলে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে এই প্রতিষ্ঠানটি।

বিজ্ঞাপন

বিশ্ব অর্থনীতির দুরন্ত গতির সাথে পায়ে পা মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ধারাবাহিক অগ্রগতির হাত ধরে জীবনমান উন্নত হচ্ছে, বাড়ছে মানুষের ক্রয় ক্ষমতাও। বিপুল জনগোষ্ঠীর অধিকারী বাংলাদেশ এসব কারণে রূপ নিয়েছে বিশ্বের অন্যতম সম্ভাবনাময় বাজারে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে এর পরিধি। বাংলাদেশে জনমিতির সবচেয়ে অগ্রসরমনস্ক এবং এগিয়ে থাকা অংশটাই হচ্ছে বর্তমান সময়ের তরুণ প্রজন্ম সংখ্যায় যারা মোট জনগোষ্ঠীর অর্ধেকেরও বেশি। তাই তারাই সবচেয়ে বড় সম্ভাবনার নাম।

তথ্য প্রযুক্তির বিকাশ আর আকাশ সংস্কৃতির প্রভাবে অভাবনীয় বিকাশ ঘটেছে তাদের সৃষ্টিশীলতার। গোটা বিশ্ব হাতের মুঠোবন্দী থাকার সুবাদে তাদের জীবনযাপনেও প্রতিফলন ঘটছে নিত্যনতুন বৈচিত্র্যের। বাড়ছে ব্র্যান্ড সচেতনতা। বাংলাদেশের শীর্ষ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান মডেল গ্রপের অনন্য ফ্যাশন উদ্যোগ হিসেবে তিনশ’র বেশি বিশ্বমানের ডিজাইনের পোশাকপণ্য ও লাইফস্টাইল সামগ্রী নিয়ে বাজারে আসছে সোলাস্তা। বিশ্বসংষ্কৃতির আবহে দেশীয় ঐতিহ্যের গৌরবলালিত এই তরুণদের লাইফস্টাইল ও ফ্যাশন চাহিদাকে মাথায় রেখে সোলাস্তার এই আত্মপ্রকাশ।

বিজ্ঞাপন

সোলাস্তার আনুষ্ঠানিক যাত্রা উদ্বোধনে প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিজিএমইএর সভাপতি রুবানা হক। সভাপতিত্ব করেন মডেল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদুজ্জামান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সোলেস্তা’র সিইও শামসুল হক রিপনসহ অনেকেই।

অতিথিরা কেক কেটে সোলাস্তার শুভ উদ্বোধন করেন। পরে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথির হাতে চিত্রশিল্পী বীরেন সোমের আঁকা চিত্র তুলে দেওয়া হয়।

এই উপলক্ষে ছিল নানারকম আয়োজন। লেজার শোয়ের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। লেজার শোয়ের মাধ্যমেই তুলে ধরা হয় মডেল গ্রুপের দুই দশকের যাত্রা। এরপর পাঁচ দশকের বাংলাদেশের ফ্যাশন বিবর্তনের যাত্রা তুলে ধরা হয়। প্রাচ্যনাটের শিল্পীরা বিভিন্ন দশকের জনপ্রিয় গানের সঙ্গে নেচে সে সময়ের পোশাক ও সাজগোগের ধারা তুলে ধরেন।

এরপর ছিল দৃষ্টিনন্দন ফ্যাশন শো। এটির পরিকল্পনা ও পরিচালনা করেন জনপ্রিয় মডেল ও কোরিওগ্রাফার আজরা মাহমুদ। পশ্চিমা ও দেশিয় পোশাক পরে র‍্যাম্পে হাঁটেন দেশের শীর্ষস্থানীয় মডেলরা।


সোলাস্তার পোশাকে আরাম ও ফ্যাশন দুটিই প্রাধান্য পেয়েছে। ব্র্যান্ডটির প্রধান ফ্যাশন ডিজাইনার কাশফিয়া নেহরীন ও ডিজাইন ম্যানেজার সাইফুল ইসলাম সাইফ জানান, তাদের এই সংকলনের রঙ, ফেব্রিক ও কারুকার্য করা হয়েছে ঋতুভিত্তিক। সুতি, লেনিন, ভিসকস, জর্জেট, সিল্ক ইত্যাদি কাপড়ে গ্রাফিক ডিজাইন ও আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে।

মডেল গ্রুপের এমডি মাসুদুজ্জামান জানান, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব বর্ষের প্রাক্কালে নতুন প্রজন্মের কাছে সোলাস্তা ব্র্যান্ড তুলে দিতে পেরে তিনি অত্যন্ত আনন্দিত। তিনি বলেন, ‘সোলাস্তা মানে রঙের বৈচিত্র্য, মেধা ও উজ্জ্বলতা। তাই সোলাস্তা আনন্দের ও তারুণ্যের প্রতীক। তাদের উদ্দেশ্য বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের নিজস্ব পোশাক ব্র্যান্ড তুলে ধরা। আই এম হেয়ার, আই এম ফ্যাশন, আই এম সোলাস্তা- এই হোক তারুণ্যের স্লোগান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘সারা বিশ্বের নামীদামী ব্র্যান্ড বাংলাদেশ থেকে পোশাক বানিয়ে নেয় যা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। তিনি অনেক সময় মেড ইন বাংলাদেশ লেখা সেসব পোশাক কিনতে পারেন না অতিরিক্ত দামের জন্য।’

সোলাস্তা ব্র‍্যান্ড শুধু বাংলাদেশেই নয়, সারা বিশ্বের কাছেই সমাদৃত হবে এমন আশা প্রকাশ করেন বিশিষ্ট এই সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব। তিনি আশা প্রকাশ করেন শুধু তরুণরাই নয় তিনি এবং তার স্ত্রীর বয়সীরাও যেন সোলাস্তায় যেয়ে পছন্দনীয় পণ্য খুঁজে পান।

বিশেষ অতিথি রুবানা হক বলেন, ‘সারাবিশ্বে বাংলাদেশে তৈরি পোশাকের সুনাম থাকলেও সেভাবে বাংলাদেশি পোশাকের ব্র্যান্ডিং তৈরি হয়নি। আশা করি সোলাস্তা সেই জায়গাটা সৃষ্টি করতে পারবে। ভারতের জওহর কোট, মোদি কোট নিজস্ব পরিচয়ে পরিচিত হলেও আমরা মুজিব কোটকে ব্র্যান্ডিং করতে পারিনি। এভাবে জামদানি, মসলিনসহ আমাদের বাকি ঐতিহ্যগুলোও হারিয়ে না যায়।’

বিগত পঁচিশ বছর ধরে মানসম্পন্ন পোশাক উৎপাদন ও রপ্তানির মাধ্যমে বিশ্ববাজারে অতুল আস্থা অর্জন করেছে মডেল গ্রুপ। বাংলাদেশ সরকারের সিআইপি নির্বাচিত শিল্পপতি জনাব মাসুদুজ্জামানের হাতে গড়া মডেল শিল্পগ্রপ তার অধীনস্থ ২০ টি অঙ্গপ্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে নিরবচ্ছিন্ন অবদান রেখে চলেছে দেশের অর্থনীতিতে।

অনুষ্ঠানের শেষ অংশে গান গায় জনপ্রিয় ব্যান্ড চিরকুট। যাদুর শহর, আহারে জীবনসহ তাদের জনপ্রিয় ছয়টি গান গেয়ে শোনায় দলটি। এছাড়াও ছিল লাইভ মিউজিকের আয়োজন।

এসময় ফ্যাশন ডিজাইনার এমদাদ হক, অভিনেতা আরেফিন শুভসহ উপস্থিত ছিলেন দেশি-বিদেশি অতিথি। উপস্থাপনায় ছিলেন মডেল ও অভিনেত্রী নাবিলা। অনুষ্ঠানের আয়োজনে ছিল চিলি কমুনিকেশন।

সারাবাংলা/আরএফ/এমও

Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags: ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন