শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬, ৩ রজব ১৪৪১

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামের লালদিঘী মাঠে সিপিবির জনসভা শুক্রবার

ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০ | ২:৫৭ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: ‘গণতন্ত্রহীনতা ও লুটপাট রুখো, দেশ বাঁচাও’ স্লোগানে দেশের আটটি বিভাগে ‘দেশ রক্ষা অভিযাত্রা’ কর্মসূচি শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশে কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। আগামী শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে চট্টগ্রামের লালদিঘী মাঠে জনসভার মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে এই কর্মসূচি।

বিজ্ঞাপন

জনসভাকে সামনে রেখে প্রস্তুতিসহ সার্বিক বিষয় তুলে ধরতে বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেছে সিপিবি, চট্টগ্রাম জেলা কমিটি। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এক দশকেরও বেশি সময় পর চট্টগ্রামের লালদিঘী মাঠে এই জনসভা সফল করতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন চট্টগ্রাম জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহা। তিনি জানান, চট্টগ্রাম বিভাগের সাতটি জেলা থেকে নেতাকর্মী-সমর্থকরা জনসভায় যোগ দেবেন। সংগঠিতভাবে ৪ থেকে ৫ হাজার নেতাকর্মী জমায়েতের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া চট্টগ্রাম নগরী এবং আশপাশের উপজেলা থেকে আরও কয়েক হাজার সমর্থক-সাধারণ মানুষ সভায় যোগ দেবেন বলে আশা করছেন তারা।

বিজ্ঞাপন

জনসভায় সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, প্রেসিডিয়াম সদস্য লক্ষ্মী চক্রবর্তী ও আবদুল্লাহ আল কাফি রতন বক্তব্য রাখবেন। সভাপতিত্ব করবেন সিপিবির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়ক মৃণাল চৌধুরী।

জনসভাকে সামনে রেখে প্রতিদিন পোস্টার ও লিফলেট বিলি, পথসভাসহ বিভিন্নভাবে প্রচারণা চালানো হচ্ছে জানিয়ে অশোক সাহা প্রচারণায় বাধা পাবারও অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের নেতা-কর্মীরা নগরীর হালিশহরে পোস্টার লাগাতে গেলে ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা তাদের বাধা দিয়েছে। আরও বিভিন্ন জায়গায় দলের নেতাকর্মী, ছাত্র ইউনিয়নের বন্ধুদের বাধাসহ হুমকিধমকি দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। বিনা উসকানিতে শান্তিপূর্ণ একটি গণতান্ত্রিক কর্মসূচির প্রচারেও বাধার ঘটনা প্রমাণ করে, দেশে গণতন্ত্রহীনতা আজ কোন পর্যায়ে গেছে ?’

গণতন্ত্রহীনতার সুযোগে দেশ আকণ্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘বল্গাহীন দুর্নীতি চলছে। বৃটিশ ও পাকিস্তান আমলে আমাদের দেশ থেকে সম্পদ লুট করে তাদের দেশে নিয়ে যেত। আর এখন দেশের সম্পদ লুটপাটকারীরা ওই সম্পদ পাচার করে বিদেশে বেগমপাড়া ও দ্বিতীয় বাসভূমি গড়ে তুলছে। নারীর ওপর সহিংসতা অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। শিক্ষাব্যবস্থাকে পশ্চাদপদতার দিকে নিতে নিতে ক্রমশ: পাকিস্তানি ভাবধারায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমাদের স্বাধীনতার নেতা বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষ উদযাপনের আয়োজন চলছে। অথচ আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনা করছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের উল্টোদিকে।’

‘আমরা মনে করি, বিদ্যমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য প্রগতিশীল ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকলের ঐক্যবদ্ধ মোকাবেলা প্রয়োজন। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে ক্রিয়াশীল আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন একটি জোট এবং বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বাধীন জোটের বিপরীতে বাম-প্রগতিশীল শক্তি-সমাবেশ গড়ে তোলার কাজ আমরা করছি। সেটি রাষ্ট্রক্ষমতার কথা বিবেচনায় নিয়েই করছি। নিজেদের শক্তি-সামর্থ্য নিয়ে সিপিবি মাঠে আছে এবং থাকবে। একইসঙ্গে আমরা প্রগতি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের এবং যারা শোষণ-লুটপাটের বিরুদ্ধে তাদের সবাইকে সঙ্গে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।’

জেলা সিপিবির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য নূরুচ্ছাফা ভূঁইয়া বলেন, ‘গত নভেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত সারাদেশে সিপিবি ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে প্রায় ১ হাজার ৭০০ পদযাত্রা করেছে। এর ধারাবাহিকতায় এবার দেশ রক্ষা অভিযাত্রা কর্মসূচির ডাক দেওয়া হয়েছে আটটি বিভাগীয় শহরে জনসভার মাধ্যমে।’

১৪ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে জনসভার পর ১৯ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী, ২২ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহ, ২৩ ফেব্রুয়ারি সিলেটে, ২৯ ফেব্রুয়ারি রংপুর, ১০ মার্চ বরিশাল, ২০ মার্চ ঢাকায় এবং ২৮ মার্চ যশোরে জনসভা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে।

আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সিপিবি অংশ নিচ্ছে কি না, এমন এক প্রশ্নের জবাবে অশোক সাহা বলেন, ‘আমরা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছি। ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও অংশ নিয়েছি। চট্টগ্রামের বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে বিষয়টি আমাদের বিবেচনায় আছে। জনসভার পরে আমরা বৈঠক করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও ছিলেন সিপিবির জেলা কমিটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য অমৃত বড়ুয়া ও ফরিদুল ইসলাম।

সারাবাংলা/আরডি/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন