বিজ্ঞাপন

অটোরিকশা থেকে জীবিত শিশুকে ছুড়ে ফেলা হলো রাস্তায়

ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০ | ৫:২৯ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: একটি মেয়ে শিশু। বয়স আনুমানিক সাত কি আট মাস! পৃথিবীতে আসার পর বাস্তবতা বুঝে ওঠার আগেই তাকে শিকার হতে হল এক নির্মম বাস্তবতার। চলন্ত সিএনজি অটোরিকশা থেকে শিশুটিকে ছুড়ে ফেলে দেওয়া হয় একটি কবরস্থানের পাশে সড়কে। দেখতে পেয়ে পুলিশ গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে। মুমূর্ষু অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নগরীর খুলশী থানার নাসিরাবাদ এলাকায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অদূরে কবরস্থানের পাশে সড়কে শিশুটিকে ফেলে দেওয়া হয়।

খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রনব চৌধুরী সারাবাংলাকে জানান, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এলাকায় টহল ডিউটিতে ছিলেন থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) হিরণ মিয়া। দুপুরে পৌনে ১টার দিকে তিনি দেখতে পান, পলিটেকনিকের অদূরে মডেল কলেজের পাশে কবরস্থানের সামনে একটি অটোরিকশা দাঁড়িয়ে কিছু একটি ছুড়ে ফেলছেন রাস্তায়। হিরণ দৌড়ে সেখানে যেতেই অটোরিকশাটি দ্রুতগতিতে চলে যায়। এর পর তিনি দেখেন, একটি শিশু রাস্তায় পড়ে কাঁদছে।

বিজ্ঞাপন

এরপর এএসআই হিরণ মিয়া ওসিকে বিষয়টি অবহিত করেন। পরে ওসির নির্দেশে দ্রুত শিশুটিকে নিয়ে যাওয়া হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। শিশুটি এখন হাসপাতালের ৮ নম্বর শিশু ওয়ার্ডে চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে আছে।

ওসি প্রনব সারাবাংলাকে বলেন, ‘অটোরিকশার ভেতরে কারা ছিল, সেটা এএসআই হিরণ সঠিকভাবে দেখতে পাননি। আমাদের ধারণা, শিশুটি মারা যাবে ভেবে কবরস্থানের পাশে ফেলে যাওয়া হয়েছে, যাতে মৃত্যুর পর বেওয়ারিশ হিসেবে ধরে দাফন করে ফেলতে পারে। একটি শিশুর সঙ্গে এমন নির্মম আচরণ কল্পনাও করা যায় না।’

শিশুটি মুমূর্ষু অবস্থায় আছে জানিয়ে ওসি বলেন, ‘শিশুটির বয়স ৭-৮ মাসের মতো হবে। ডাক্তার জানিয়েছেন, শিশুটি পানিশূন্যতা ও অপুষ্টিতে ভুগছে। তাকে স্যালাইন দেওয়া হয়েছে। তবে তাকে বাঁচানো যাবে বলে ডাক্তাররা আশ্বাস দিয়েছেন। শিশুটি সুস্থ হওয়া পর্যন্ত পুলিশ তত্ত্বাবধান করবে। এর মধ্যে পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা হবে। পরিচয় না পেলে আদালতের শরণাপন্ন হব।’

ঘটনাস্থলে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় সংরক্ষিত ফুটেজ থেকে অটোরিকশাটির গন্তব্য অনুসন্ধানের চেষ্টা চলছে বলেও জানান ওসি।

সারাবাংলা/আরডি/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন