বিজ্ঞাপন

সিডনিতে ‘ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা

February 18, 2020 | 9:28 am

সারাবাংলা ডেস্ক

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সামনে রেখে সিডনি বাঙালি কমিউনিটি মুজিব বর্ষের প্রথম অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠানের প্রথমেই ছিল ‘ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভূমিকা এবং অবদান’ শীর্ষক আলোচনা সভা। রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ইংগেলবার্ন কমিউনিটি হলে এই আয়োজন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

আলোচনা সভার শুরুতেই ১৯৪৮ থেকে ১৯৫২ পর্যন্ত সংগৃহীত বিভিন্ন আলোকচিত্র, পত্রিকার রিপোর্টসহ অন্যান্য তথ্যাবলী প্রদর্শন করা হয়। আলোকচিত্র প্রদর্শন ও তথ্য উপস্থাপনসহ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সেলিমা বেগম। তথ্যসমূহ ও ছবি দিয়ে সহায়তা করেন মুক্তিযুদ্বের ইতিহাস সংগ্রাহক আমি রহমান পিয়াল ও বিশিষ্ট সাংবাদিক পীর হাবিব।

দ্বিতীয় পর্বে নতুন প্রজন্মের কিশোর-কিশোরীদের বাংলা ভাষা ও সাংস্কতিক অঙ্গনে বিশেষ অবদান রাখার জন্য সার্টিফিকেট ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

বিজ্ঞাপন

আলোচনা পর্বে অংশ নেন নতুন প্রজন্মের অনুভা আহমেদ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক ফেডারেল এমপি লরি ফার্গাসন বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা প্রতিষ্ঠার জন্য বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে ১৯৪৮ থেকে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত যে সমস্ত তথ্য ও ছবির প্রদর্শন করা হয়েছে এটাই সবচেয়ে সহজতর উপায়।’

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ফেডারেল এমপি এনি স্ট্যানলি জানান, অস্ট্রেলিয়ায় আদিবাসীদের অনেক মাতৃভাষা হারিয়ে গেছে চর্চা ও সংরক্ষণের অভাবে। এসময় তিনি অস্ট্রেলিয়ান বাংলাদেশি শিশু-কিশোরদের মধ্যে বাংলা ভাষা শিক্ষা ও বাংলা সাংস্কতিক চর্চার এই উদ্যোগটি পরিচালনার জন্য সিডনি বাঙালি কমিউনিটির প্রশংসা করেন।

আলোচনায় আরও অংশ নেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি সিরাজুল হক এবং সংগঠনের সভাপতি অজয় দত্ত।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরুর আগে ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। সম্মিলিত কণ্ঠে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ গান গেয়ে সাংস্কৃতিক পর্ব শুরু করা হয়।

অস্ট্রেলিয়ায় বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্মের শিশু কিশোরদের সংগঠন ‘কিশোর সংঘ’ মাতৃভাষা দিবসের গান ও নাচ পরিবেশন করে। এছাড়াও অর্পিতা সোমের চৌকষ নাচের দল তাদের নাচের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ও বাংলাভাষা নিয়ে বেশ কয়েকটি পরিবেশনা উপহার দেয়। সবশেষে সম্মিলিতভাবে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত গেয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়।

সারাবাংলা/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন