বিজ্ঞাপন

প্রকাশনা সমিতিগুলো ‘চাপে রাখে’ বাংলা একাডেমিকে

ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২০ | ১০:৫২ অপরাহ্ণ

পার্থ সনজয়

একুশে সমাগত। অমর একুশে বইমেলায়ও এখন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আবাহন। পাঠক ভিড়ও বাড়ছে। বাড়ছে বিক্রিও। কর্মদিবসেও অনেক ক্রেতা-পাঠকের ভিড়ে সন্তুষ্টি প্রকাশকের।

বিজ্ঞাপন

গেল ১৬ দিনের মেলার নিজস্ব বিক্রির খতিয়ান দিয়েছে বাংলা একাডেমি। তাতে গেল বছরের চেয়ে প্রায় পাঁচ লাখ টাকা বেশি বিক্রি হয়েছে বলে জানিয়েছেন একাডেমি মহাপরিচালক হাবিবুল্লাহ সিরাজী। ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত একাডেমির নিজস্ব বিক্রি ১ কোটি ৯ লাখ ৭৯ হাজার ৭৩১ টাকা ৫০ পয়সা।

বিজ্ঞাপন

তৃতীয় সপ্তাহে পা রাখা অমর একুশে বইমেলার সার্বিক পরিস্থিতি সাংবাদিকদের জানাতে সংবাদ সম্মেলনে উঠে আসে বেশকিছু প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের পাইরেটেড ও নিম্নমানের বই বিক্রি প্রসঙ্গ। জবাবে মহাপরিচালক বলেন, গণমাধ্যম সংবাদগুলো প্রচার করলে তাদের ব্যবস্থা নিতে সুবিধা হয়। কারণ, প্রকাশকদের সমিতিগুলো এসব বিষয়ে এক অন্যের জন্য তদবির করেন এবং বাংলা একাডেমিকে ‘চাপে’ রাখেন।

মহাপরিচালকের কাছে প্রশ্ন ছিল, বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করা মেলায় ‘বঙ্গবন্ধু পাঠ’ কর্নারে যেভাবে আড্ডা দেয় দর্শনার্থীরা, তা দেখভালের দায়িত্ব কাদের? জবাবে হতাশা জানান মহাপরিচালক।

এদিনের মেলায় প্রথমবারের মতো এলেন অভিনেতা ও লেখক আবুল হায়াত। মেলায় তার তিনটি বই বেরিয়েছে। প্রিয় বাংলা প্রকাশনীর স্টলে তিনি অটোগ্রাফ দিয়েছেন আগ্রহী পাঠকদের।

এমনিতে সপ্তদশ দিনের মেলা ছিল জমজমাট। এমন মিলনমেলার হাতছানিতেই সুদূর টেমসের পাড় থেকে প্রতিবছরই আসেন বিলেতের স্ন্যাপশট খ্যাত কবি শামীম আজাদ। এবার তার কোনো বই প্রকাশিত হয়নি। বললেন, মাঝে মাঝে বিরতি নেওয়া ভালো। তাহলে পেছনটা ফিরে দেখা যায়।

১৭ দিনে নতুন বই এসেছে ২ হাজার ৬২২টি। এর মধ্যে সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের ‘গল্পসকল’ এনেছে অন্যপ্রকাশ। এখান থেকেই প্রকাশিত হয়েছে নাসরীন জাহানের উপন্যাস ‘সূর্যাস্তের শেষ রঙ’। মনন প্রকাশ করেছে সম্পাদিত বই ‘মমতাজউদদীন আহমদ: আমার শিক্ষক’। পাঞ্জেরি প্রকাশ করেছে আতিউর রহমানের ‘নাই নাই ভয় হবে হবে জয়’, মিনার মনসুরের ‘আমার পিতা নয় পিতার অধিক’ ও মঈনুল আহসান সাবেরের ‘উপন্যাস ত্রয়ী’।

হাসান মোরশেদের ‘নারী সাক্ষ্যে জেনোসাইড’ প্রকাশ করেছে বাতিঘর। অনুপ্রাণন প্রকাশ করেছে রীতা রায় মিঠুর ‘চোখ যায় যদ্দুর’। সুদূর আমেরিকায় বসবাস করা রীতা রায় মিঠু বইটিতে তার শৈশবে একাত্তরের শরণার্থী জীবনের কথা লিখেছেন ভবিষ্যত প্রজন্মকে জানাতে।

মূল মঞ্চে আলোচনার বিষয় ছিল বাংলা একাডেমি প্রকাশিত মিনার মনসুর ও দিলওয়ার চৌধুরী সম্পাদিত ‘শেখ মুজিব একটি লাল গোলাপ’ বইটি। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আমিনুর রহমান সুলতান। সভাপতিত্বে ছিলেন গবেষক সম্পদ বড়ুয়া।

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন