বিজ্ঞাপন

নাঈমের ঘূর্ণিতে টেস্টের প্রথম দিন টাইগারদের

ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০ | ৪:৪৫ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

মিরপুর হোম অব ক্রিকেটে বাংলাদেশ এবং জিম্বাবুয়ের মধ্যকার একমাত্র টেস্ট মাঠে গড়ায় শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে। টস জিতে আগে বাংলাদেশকে ফিল্ডিংয়ে পাঠায় জিম্বাবুয়ে। প্রথম দিনের ৯০ ওভারের খেলা শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ২২৮ রান তোলে জিম্বাবুয়ে। টাইগারদের হয়ে চারটি উইকেট তুলে নেন স্পিনার নাঈম হাসান আর বাকি দু'টি উইকেট ঝুলিতে পুরেন পেসার আবু জায়েদ রাহী। জিম্বাবুয়ের হয়ে শতক হাঁকান অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন। দিন শেষে উইকেটে আছেন রেগিস চাকাভা (৯) এবং ডোনাল্ড তিরিপানো (০)।

বিজ্ঞাপন

টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে উইকেট কামড়ে ধরে থাকেন দুই ওপেনার। যেন বাংলাদেশকে দেখাচ্ছিলেন কিভাবে টেস্ট খেলতে হয়। সেই সঙ্গে দিচ্ছিলেন ধৈর্য্যের চরম পরীক্ষাও। প্রথম চার ওভারে নেননি কোনো রানই। দেখে শুনে বেশ ভালোই খেলছিলেন দুই ওপেনার।

কিন্তু তাতে বাঁধ সাধেন আবু জায়েদ রাহি। নাইম হাসানের তালুবন্দি করে কেভিন কাসুজাকে ২ রানেই সাজঘরে ফেরান এই পেসার। সে সময় জিম্বাবুয়ের স্কোরবোর্ডে মাত্র ৭ রান।

বিজ্ঞাপন

এরপর অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিনকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন মাসভাউরে। সচল রাখেন দলের রানের চাকা। সেই সাথে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ২য় অর্ধশতক। দুই জনে মিলে বাংলাদেশকে ইঙ্গিত দিতে থাকেন বড় সংগ্রহের। এই দুই ব্যাটসম্যান মিলে ১১১ রানের বড় জুটি গড়ে দলকে সঠিক পথে রাখেন।

বড় জুটি গড়েই মধ্যাহ্ন বিরতিতে যায় সফরকারীরা। আর মধ্যাহ্ন বিরতির পর রানের গতি আরো বাড়িয়ে দেয় ক্রেইগ-কাসুজা। সেই গতিতে দ্রুতই উঠে আসে দলীয় শতক। কিন্তু বাঁধ সেধে বসেন নাঈম হাসান। সেট হয়ে বসা মাসভাউরেকে ৬৪ রানে ফিরিয়ে ব্রেক থ্রু নিয়ে আসেন এই স্পিনার। জিম্বাবুয়ের দলীয় ১১৮ রান দ্বিতীয় উইকেট পতন ঘটে। আর সেই সঙ্গে ক্রেইগ এবং কাসুজার ১১১ রানের জুটিও ভাঙেন নাঈম।

তবে অন্য প্রান্তে উইকেট আগলে ধরে দলের হয়ে দ্বিতীয় অর্ধশতক তুলে নেন দলপতি ক্রেইগ আরভিন। মাসভাউরের বিদায়ের পর আরভিনকে সঙ্গ দিতে এসেছিলেন অভিজ্ঞ ব্রেন্ডন টেইলর। কিন্তু উইকেটে পোক্ত হওয়ার আগেই দলীয় ১৩৪ এবং ব্যক্তিগত ১০ রানে নাইমের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরেতে হয় তাকেও।

এরপর সিকান্দার রাজাকে সঙ্গে নিয়ে ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন ক্রেইগ আরভিন। চা বিরতি পর্যন্ত দু'জন  মিলে বড় জুটি গড়ার স্বপ্নই দেখাচ্ছিল জিম্বাবুয়েকে। তবে বিরতি থেকে ফিরে আবারো ব্রেক থ্রু এনে দেন সিনার নাঈম হাসান। সিকান্দার রাজাকে ১৮ রানেই ফিরিয়ে দেন এবার। আর তাতেই দলীয় ১৭৪ রান চতুর্থ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। নাঈমের তৃতীয় শিকার হওয়ার আগে আরভিনের সঙ্গে ৪০ রানের জুটি গড়েন সিকান্দার।

সিকান্দার ১৭৪ রানে ফিরলে জিম্বাবুয়ের রানের চাকা থেমে যায় কিছুটা। তবে টেস্ট মেজাজে টিমিসেন মারুমাকে নিয়ে নতুন জুটি গড়েন ক্রেইগ আরভিন। এই দুইয়ে মিলে ২৫ রানের জুটি ভাঙেন প্রথম উইকেট শিকারি আবু জায়েদ রাহী। দ্বিতীয় নতুন বল আসার ঠিক আগের ওভারেই উইকেট হারিয়ে ফেলে আরভিনের দল। দলীয় ১৯৯ রানে ব্যক্তিগত মাত্র ৭ রানে ফেরেন টিমিসেন মারুমা।

দলের অন্যরা যখন যাওয়া আসার মিছিলে তখন এক প্রান্ত আগলে রেখে দলকে কক্ষপথে রাখেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন। দলকে বড় সংগ্রহের পথে ধরে রেখে নিজেও তুলে নেন শতক। তবে প্রথম দিনের খেলা শেষের মাত্র দুই ওভার বাকি থাকতে নাঈমের চতুর্থ শিকারে পরিণত হন জিম্বাবুইয়ান অধিনায়ক। ব্যক্তিগত ১০৭ রান করে ফেরেন তিনি। তবে যখন ফিরছেন তখন সফরকারীদের স্কোরবোর্ডে সংগ্রহ ২২৬।

টাইগারদের হয়ে ৩৮ ওভারে ৮ মেইডেনে ৬৮ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট তুলে নেন নাঈম হাসান। এছাড়া১৬ ওভারে ৪ মেইডেনে ৫১ রান দিয়ে ২টি উইকেট তুলে নেন আবু জায়েদ রাহী। এছাড়া বাকি দুই বোলার এবাদত হোসেন এবং তাইজুল ইসলাম থাকেন উইকেট শূন্য।

এখন পর্যন্ত টেস্টে ১৬ বার মুখোমুখি হয়েছে দু'দল। যেখানে বাংলাদেশের জয় জয় ৬টিতে আর জিম্বাবুয়ের জয় ৭টি। বাকি একটি ম্যাচে ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে দু'দলকে।

বাংলাদেশ একাদশ- 

তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), নাঈম হাসান, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহী, এবাদত হোসেন।

জিম্বাবুয়ে একাদশ- 

প্রিন্স মাসভাউরে, কেভিন কাসুজা, ক্রেইগ আরভিন (অধিনায়ক), ব্র্যান্ডন টেলর, টিমিসেন মারুমা, সিকান্দারা রাজা, রেগিস চাকাভা (উইকেটরক্ষক), চার্লটন শুমা, ডোনাল্ড তিরিপানো, এইন্সলে এনডিলোভু, ভিক্টর নায়াউচি।

সারাবাংলা/এনএ/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন