বিজ্ঞাপন

৮ বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে মক্তবের শিক্ষক কারাগারে

মার্চ ১২, ২০২০ | ৮:২৬ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আট বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে রাজধানীর পল্লবী এলাকায় কুর্মিটোলা পূর্বপাশক্যাম্প জামে মসজিদের ইমাম ও মক্তবের শিক্ষক নাজির হোসেনের (২০) বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) শুনানি শেষে ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস এ আদেশ দেন।

এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পল্লবী থানার এসআই আকলিমা আখতার আসামিকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করে।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) শিশুটির মা বাদী হয়ে পল্লবী থানায় মামলাটি দায়ের করেন। নাজির হোসেন ব্রাহ্মণবাড়ীয়া সদরের সহিলপুরের আব্দুল্লাহ খলিলের ছেলে।

বাদী অভিযোগে বলা হয়, তার মেয়ে আরবী শিক্ষার জন্য প্রতিদিন কুর্মিটোলা পূর্বপাশক্যাম্প জামে মসজিদের মক্তবে যায়। নাজির হোসেন সেখানে আড়াই মাস যাবৎ পাঠদান করে আসছেন। পাঠদানের শুরু থেকে আসামি বিভিন্ন সময় ভিকটিমের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয় এবং বিভিন্নভাবে তাকে ফুসলায়।

বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ৬টার দিকে বাদীর মেয়ে মক্তবে যায়। নাজির হোসেন ভিকটিমকে মসজিদ থেকে পল্লবী থানাধীন সেকশন-১২ ব্লক-ই কুর্মিটোলা বস্তি পূর্বপাশ ক্যাম্প রাজু মিয়ার বাড়ীর পিছনে খালি প্লটে নিয়ে যায়। সেখানে ভিকটিমকে ধর্ষণ করে ইমাম নাজির হোসেন। ভিকটিমের চিৎকারে আশে-পাশের লোকজন এসে ইমামকে আটক করে। এলাকার লোকজন তাকে মারধর করে এবং বাদীকে খবর দেয়। বাদী এসে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

বর্তামানে শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে পল্লবী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকলিমা আক্তার জানান, শিশুটি পরিবারের সঙ্গে কালশী এলাকায় থাকে। তার বাবা একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। প্রতিদিনের মতো শিশুটি ওই এলাকায় মসজিদে মক্তবে পড়তে যায়। পড়া শেষে ওই মক্তবের শিক্ষক নাজির হোসেন মসজিদের পাশে বাউন্ডারির বাইরে একটি খালি জায়গায় নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে।

এসআই আরও জানান, শিশুটি বাসায় এসে তার বাবা-মায়ের কাছে বিস্তারিত বললে পরিবার দ্রুত থানায় যায়।

সারাবাংলা/এআই/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন