বিজ্ঞাপন

উত্তরখানে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা— অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

মার্চ ২১, ২০২০ | ৮:১৮ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রাজধানীর উত্তরখানের চামুরখান এলাকায় পুলিশের বিরুদ্ধে মনিরুজ্জামান হাওলাদার মনির (৫০) নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (২১মার্চ) ভোর ৬টার দিকে উত্তরখানের চামুরখান মনিরের বাসায় এ ঘটনা ঘটে। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এর পর পুলিশ তার মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। তবে ওই ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ অস্বীকার করেছে পুলিশ।

নিহতের ছোট ভাই মিলন হাওলাদার জানায়, তার বড় ভাই মনিরুজ্জামান চামুরখানে নিজের চারতলা বাসায় থাকতো। আর তার বাসায় ভাড়া থাকতো জয়নাল আবেদীন ও তার পরিবার। শুক্রবার ওই বাসার পাশের বাসার এক মেয়ের সঙ্গে জয়নাল আবেদীনের ছেলে জহুরুলের বিয়ে হচ্ছিল। অনুষ্ঠান হচ্ছিল মনিরুজ্জমানের বাসায়। এমন সময় সোহেল নামের এক ছেলে বিয়ে বাড়িতে এসে বলে, ওই মেয়ের সঙ্গে তার পাঁচ বছর ধরে সম্পর্ক। এ নিয়ে হট্টগোল শুরু হয়। পরে মনিরুজ্জামান কনের পরিবারের সাথে কথা বললে সোহেলের সঙ্গে বিয়ে দিতে রাজি হয়।

বিজ্ঞাপন

মিলন আরও জানায়, বিয়েতে জহুরুলের পরিবারের অনেক টাকা খরচ হয়েছে। এ জন্য টাকা নিয়ে সোহেলের পরিবারকে বাসায় আসার জন্য খবর দিতে বলে। খবর পেয়ে উত্তরখানের বাসায় আসে সোহেলের বোন ও ভগ্নিপতি। পরে দুই পরিবার কথা বলার পর সিদ্ধান্ত হয় যে, সোহেলের পরিবার জহুরুলের পরিবারকে এক লাখ টাকা দেবে। ওই রাতে সোহেল ও তার বোন চামুরখানের বাসায় থেকে যায়।

মনিরুজ্জামানের পরিবারের অভিযোগ, ভোরে উত্তরখান থানা থেকে প্রায় ২৫/২৬ জন পুলিশ তাদের বাসায় আসে। এ সময় পুলিশ জানায়, তাদের কাছে অভিযোগ আছে, ওই বাসায় পাঁচজনকে আটকে রেখে মুক্তিপণ দাবি করা হয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ তিনজনকে ধরে এবং মনিরকে মারতে মারতে চার তলার ছাদে নিয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর পুলিশ তাদের জানায়, মনির স্ট্রোক করেছে। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সে মারা যায়। পরিবারের অভিযোগ, পুলিশ মনিরকে ছাদে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে।

অভিযোগের বিষয়ে উত্তরখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হেলাল উদ্দিন জানান, ভোরে থানায় খবর আসে উত্তরখানের চামুরখান এলাকার একটি বাসায় পাঁচজনকে আটক রেখে মারধর করে মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে। এমন সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। এ সময় পুলিশ সেখান থেকে রায়হান, রাশিদুল ও রাজীব নামের তিনজনকে আটক করে। ওই সময় মনির দৌড়ে পালানোর সময় পড়ে গিয়ে আহত হন। পরে তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সে মারা যায়।

মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে ওসি বলেন, ‘তার গায়ে কোনো আঘাত করা হয়নি। সে পড়ে গিয়ে স্ট্রোক করে মারা গেছে।’

সারাবাংলা/এসএসআর/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন