বিজ্ঞাপন

লকডাউন কিন্তু ছুটি নয়, স্মরণ করিয়ে দিলেন শচীন

মার্চ ২৬, ২০২০ | ৪:১১ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

বিশ্বব্যাপী হুঁ হুঁ করে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। ইউরোপে মহামারি আকার ধারণ করেছে ভাইরাসটি। জনসংস্পর্শে ছড়ায় বলে করোনার বিস্তার ঠেকাতে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়ে আসছেন চিকিৎসকরা। ফলে বিশ্বের বহু দেশের মতো ভারতেও লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) থেকে ভারতে তিন সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু কে শোনে কার কথা!

বিজ্ঞাপন

ছুটি পেয়ে আড্ডা ফূর্তিতে মেতে উঠেছে অনেকে। এলাকার খেলার মাঠগুলোতে লোকে লোকারণ্য। লোকেরা মন খুলে খেলার যেন ফুরসত পেয়েছে! এসব অচেতনদের সচেতন করতে এগিয়ে এলেন শচীন টেন্ডুলকার।

একটি ইউটিউব চ্যানেলে করোনাভাইরাস নিয়ে কথা বলেছেন ভারতের ব্যাটিং কিংবদন্তি। লকডাউন মানে যে ছুটি নয় সবাইকে সেটা বোঝার আহ্বান জানিয়েছেন ভারতীয় কিংবদন্তি।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী সরকার ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা ঘরে থাকার অনুরোধ করেছেন আমাদের। ঘরের বাইরে না বেড়াতে অনুরোধ করছেন। তবুও আমি শুনতে পাচ্ছি যে, মানুষ এটাকে গুরুত্ব দিচ্ছে না। এমনকি কিছু ভিডিওতে দেখেছি মানুষজন ক্রিকেট খেলছে! আমি জানি, আমার মতো সবারই ইচ্ছে করছে বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে দেখা করতে। কিন্তু এই মুহূর্তে এটা করা গোটা জাতির জন্য সত্যিই ক্ষতিকর। এই লকডাউনকে ছুটি ভেবে ভুল করা উচিত নয়।’

শচীন বলেন, ‘দয়া করে মনে রাখুন, আমরা হলাম অক্সিজেন, আর করোনাভাইরাস হলো আগুন। আরও অনেক জীবন কেড়ে নেওয়া থেকে এই ভাইরাসকে আটকানোর একমাত্র উপায় হলো এর অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া। অর্থাৎ বাড়ির বাইরে পা দেওয়া যাবে না।

শচীন পরিবারের সঙ্গে নিজেকে হোম কোয়ারেনটাইনে বন্দি রেখেছেন। আরও কয়েকদিন থাকবেন জানিয়ে সবাইকে সাবধান হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন, ‘করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাওয়া সাহসী ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্যদের জন্য কমপক্ষে যেটুকু আমরা করতে পারি, সেটা হলো তাদের নির্দেশনা মেনে চলা। আমি ও আমার পরিবার গেল ১০ দিনে আমাদের বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করিনি। আগামী ২১ দিনও এটাই করতে থাকব। এটাকে পরিবারের সঙ্গে ভালো সময় কাটানোর সুযোগ হিসেবে দেখুন। এই ভাইরাস থেকে নিজেকে বাঁচান, এই সমাজ, আমাদের দেশ ও গোটা বিশ্বকে বাঁচান। ধন্যবাদ।’

উল্লেখ্য, ভারতে এখন পর্যন্ত ছয়শর বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছেন ১০জন মানুষ।

সারাবাংলা/এসএইচএস/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন