বিজ্ঞাপন

৩ সিনিয়র সিটিজেনের বাড়িতে গিয়ে ক্ষমা চাইবে প্রশাসন

March 28, 2020 | 1:10 pm

গোলাম সামদানী, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: মাস্ক না পরার কারণে লাঞ্ছিত হওয়া যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার তিন সিনিয়র সিটিজেনের বাড়িতে গিয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষমা চাইবেন মনিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। এরই মধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে মনিরামপুরের ইউএনও’কে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (২৮ মার্চ) সকালে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয় সচিব শেখ ইউসুফ হারুন সারাবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মাস্ক না পরার কারণে গতকাল শুক্রবার (২৭ মার্চ) বিকেলে মণিরামপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) বা এসি (ল্যান্ড) সাইয়েমা হাসান উপজেলার চিনাটোলা বাজারে তিন সিনিয়র নাগরিককে কান ধরে উঠবস করান। এ ঘটনার ছবিও তোলেন তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে এ ঘটনা ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়। নেটিজেনদের তোপের মুখে পড়েন এসি (ল্যান্ড) সাইয়েমা। সমালোচনার মুখে শনিবার সকালে সহকারী কমিশনার সাইয়েমাকে প্রত্যাহার করে তাকে খুলনা বিভাগী কমিশনারের কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- তিন বৃদ্ধকে কান ধরিয়ে সমালোচনার মুখে এসিল্যান্ড

তবে সাইয়েমাকে প্রত্যাহার করেই ক্ষান্ত হচ্ছে না জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। যে তিন সিনিয়র সিটিজেন নিগ্রহের শিকার হয়েছে, তাদের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমাও চাওয়া হবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। জনপ্রশাস সচিব বলেন, মনিরামপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাকে ওই তিন জন সিনিয়র সিটিজেনের বাড়িতে গিয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষমা চাওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি মনিরামপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার সাইয়েমা হাসানকে কমিশনার অফিসে সংযুক্ত করা হয়েছে। অফিস খুললে তার বিরুদ্ধে তদন্ত করতে বলা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সচিব শেখ ইউসুফ হারুন বলেন, মনিরামপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাকে আরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, ওই তিন সিনিয়র সিটিজেনের যদি খাদ্য সহায়তা কিংবা মাস্ক অথবা অন্যকিছুর প্রয়োজন হয়, তারা যেন সেসবের ব্যবস্থা করেন।

তিনি বলেন, মণিরামপুরের সহকারী কমিশনার সাইয়েমা হাসান একজন জুনিয়র কর্মকর্তা। তিনি হয়তো এটা আবেগে করে ফেলেছেন। তারপরও আমরা বলব, এটা তিনি কোনোভাবেই করতে পারেন না। এটা গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা বিষয়টিকে সহজভাবে দেখছি না।

অকর্মকর্তাসুলভ আচরণ না করার নির্দেশনা

এদিকে, দেশের কোথাও যেন প্রশাসনের কোনো পর্যায়ের কর্মকর্তাই নাগরিকদের সঙ্গে অকর্মকর্তাসুলভ আচরণ না করেন, সে বিষয়েও কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসকদের এ নির্দেশনা মাঠ পর্যায়ে পৌঁছে দিতে বলা হয়েছে।

সচিব শেখ ইউসুফ হারুন বলেন, এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন ভবিষ্যতে না ঘটে, সেজন্য সব জেলা প্রশাসককে নির্দেশদনা দেওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসকদের আরও বলা হয়েছে, কেউ যেন কোনো নাগরিকেরে সঙ্গে এ ধরনের অকর্মকর্তাসুলভ আচরণ না করেন। মাঠ পর্যায়ের সব কর্মকর্তাদের কাছে এ নির্দেশনা পৌঁছে দিতে বলা হয়েছে জেলা প্রশাসকদের।

এক প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, দায়িত্ব পালনের সময় দেশের সব নাগরিকের সঙ্গে যেন কর্মকর্তাসুলভ আচরণ করা হয়, আমাদের নিজস্ব হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে সে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে আমাদের অভ্যন্তরীণ ফেসবুক গ্রুপেও এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এই দুইটি গ্রুপে কোনো নির্দেশনা দেওয়া হলে সেটা সবার কাছে পৌঁছে যায়।

সারাবাংলা/জিএস/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন