বিজ্ঞাপন

করোনা সন্দেহে ৩ হাসপাতালে ফেরত, মৃত্যু হলো মেনিনজাইটিসে

March 30, 2020 | 1:56 am

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

নওগাঁ: ঢাকার নারায়ণগঞ্জ থেকে জ্বর ও কাশিতে আক্রান্ত হয়ে নওগাঁর রাণীনগরে নিজ গ্রামে ফেরা তরুণ আল আমিন (২২) মেনিনজাইটিস রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। পরিবারের অভিযোগ, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে তিনটি হাসপাতাল তাকে ভর্তি নেয়নি। শুধু তাই নয়, নারায়ণগঞ্জ থেকে ফেরার পর তাকে গ্রামেও ঢুকতে দেওয়া হয়নি।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (২৮ মার্চ) দিবাগত মধ্যরাতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আল আমিন। আল আমিন রাণীনগর উপজেলার কালিগ্রাম ইউনিয়নের অলঙ্কারদীঘি গ্রামের কৃষক মকলেছুর রহমানের ছেলে। রোববার (২৯ মার্চ) নিজ গ্রামে তাকে দাফন করা হয়।

আল আমিনের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, বছর চারেক আগে নারায়ণগঞ্জে একটি কাপড়ের দোকানে কর্মচারী হিসাবে কাজ শুরু করেন আল আমিন। কয়েকদিন ধরে তিনি জ্বর-কাশিতে ভুগছিলেন। শনিবার সাকালে তিনি সেই অসুস্থতা নিয়েই বাড়িতে ফেরেন। এসময় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে স্থানীয় কয়েকজন তাকে গ্রামেই ঢুকতে দেননি।

বিজ্ঞাপন

তার পরিবারের সদস্যরা জানান, অসুস্থ আল আমিনকে চিকিৎসার জন্য রাণীনগর, নওগাঁ সদর ও আদমদীঘি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। তবে তিন হাসপাতালের কোনোটিতেই আল আমিনকে চিকিৎসা দেওয়া হয়নি।

আল আমিনের বাবা মকলেছুর রহমান বলেন, ছেলেকে তিনটি হাসপাতালে নিয়ে গেলেও চিকিৎসা করাতে পারিনি। পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাই। সেখানেও ডাক্তাররা ঠিকমতো ছেলের পাশে আসেনি। ওষুধ ও ইনজেকশন লিখে দিয়েছিলেন। সেগুলো দিয়েও জ্বর কমেনি কোনোভাবেই। শেষ পর্যন্ত ছেলেটা মারাই গেল।

আল আমিনের পরিবারের সদস্যরা জানান, তিনি মেনিনজাইটিসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে দেওয়া মৃত্যু সনদে সে তথ্য উল্লেখ আছে। একই কথা জানান কালিগ্রামের ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামও।

রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আল মামুন বলেন, ওই তরুণ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাননি। তিনি মেনিনজাইটিস রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তার মৃত্যু সনদে চিকিৎসক তা নিশ্চিত করে দিয়েছেন। তবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে তাকে যে গ্রামে উঠতে দেওয়া হয়নি এবং হাসপাতালগুলোতে ভর্তি নেওয়া হয়নি, এটি অত্যন্ত অমানবিক।

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন