বিজ্ঞাপন

সরকারের পূর্ণ সহায়তা পেলে ১ মাসেই হবে আকিজের হাসপাতাল

March 30, 2020 | 10:09 am

শেখ জাহিদুজ্জামান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: অর্থ নয়, প্রয়োজন সরকারের পূর্ণ সমর্থন। সেটা মিললেই আগামী একমাসের আমরা আকিজ হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের পুরোপুরিভাবে সেবা দিতে পারব। সেজন্য সবার আগে সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (২৯ মার্চ) সন্ধ্যায় সারাবাংলাকে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন আকিজ করোনা হাসপাতাল নির্মাণের অন্যতম উদ্যোক্তা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

সরকারকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে এই উদ্যোক্তা বলেন, আমরা তো কাজ করতে সাহস পাচ্ছি না। সরকারকে আমাদের সাপোর্ট দিতে হবে। এটি চালাতে হলে আমাদের প্রতিমাসে ২ কোটি টাকা খরচ হবে। আমরা সেই টাকা চাচ্ছি না। কিন্তু সরকার বললে ব্যাংকগুলোর ঋণ দেওয়ার প্রক্রিয়া সহজ হবে। তাছাড়া এখানকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও গুরুত্বপূর্ণ। আমার লোকদের নিরাপত্তা দিতে হবে। আমার লোকদের নিরাপত্তা না থাকলে তারা কিভাবে কাজ করতে যাবে? গন্ডগোল করে হাসপাতাল করার মতো বয়স আমার আর নেই।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয়রা যেন ঝামেলা না করে, সে বিষয়টিও সরকারকেই নিশ্চিত করতে হবে বলে মনে করেন ডা. জাফরুল্লাহ। তিনি বলেন, আমরা হাসপাতাল করতে চাই। আমরা জনগণের সেবার জন্যই হাসপাতালই করছি এবং উদ্যোগ নিয়েছি। কিন্তু হাসপাতাল করতে গিয়ে যদি ঝামেলায় পড়তে হয়, তাহলে কী দরকার করার? আমরা হাসপাতাল করব সব নিয়ম মেনে। আশপাশের জনগণের কোনো সমস্যা যেন না হয়, সে নিশ্চয়তা দিয়েই হাসপাতাল করব। সেভাবেই এখানে সেবা দেওয়া হবে। কিন্তু তার আগেই বাধা আসছে।

এর আগে, রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আকিজ গ্রুপের উদ্যোগে এই হাসপাতাল স্থাপনের কাজ শুরু হলেও শনিবার স্থানীয়রা সে কাজে বাধা দেন। সে কারণে শনিবার কাজ বন্ধ ছিল। তবে আকিজ গ্রুপের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রোববার ফের কাজ শুরু হয়েছে এই হাসপাতলের।

জানা গেছে, হাসপাতাল হলে স্থানীয়দের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিতে পারে— এমন আশঙ্কা থেকেই এলাকাবাসী হাসপাতাল নির্মাণের বিরোধিতা করেন। পরে শনিবার রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের হস্তক্ষেপে স্থানীয়দের সঙ্গে আলোচনা হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেই পরে গণমাধ্যমকে বলেন, স্থানীয় কাউন্সিলর ও আকিজ গ্রুপের প্রতিনিধির মধ্যে আলোচনা হয়েছে। নির্ধারিত স্থানে হাসপাতাল হলেও যে তা স্থনীয়দের স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ হবে না, তা স্পষ্ট করা হয়েছে। নির্ধারিত স্থানেই হাসপাতাল হবে।

আকিজ গ্রুপের কর্মকর্তারা বলেন, কাজ আবার শুরু হয়েছে। হাসপাতাল নির্মাণের কাজ চলছে। আশা করছি সরকার আমাদের পূর্ণ সমর্থন দেবে। আর আমরা সব নিরাপত্তা মেনেই কাজ করব, যেন আশপাশের জনগণের কোনো ধরনের কোনো সমস্যা না হয়।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য আকিজ গ্রুপ ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্যোগে তেজগাঁওয়ে ৩০১ শয্যার হাসপাতাল তৈরির কাজ শুরু হয়। রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আকিজের নিজস্ব দুই বিঘা জমিতে হাসপাতালটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। জায়গাটির অবস্থান গুলশান-তেজগাঁও লিংক রোডে শান্তা টাওয়ারের পেছনে। হাসপাতালটি নির্মাণের পর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জন্য বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

সারাবাংলা/এসজে/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন