বিজ্ঞাপন

হোম কোয়ারেনটাইন: সবুজের ছোঁয়ায় ভালো কাটুক সময়

April 4, 2020 | 10:00 am

লাইফস্টাইল ডেস্ক।।

সামাজিক জীব হওয়ার কারণে ঘাপটি মেরে ঘরে থাকা মানুষের একদমই সয় না। তাই হোম কোয়ারেনটাইন একঘেয়েমি চলে আসাই স্বাভাবিক। কিন্তু করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক এই মহামারিতে আমরা চরম বিপদে আছি। তাই ঘরে থাকাই এখন সবচেয়ে নিরাপদ।

বিজ্ঞাপন

এই যখন পরিস্থিতি, তখন খানিকটা সুন্দর সময় কাটাতে গাছের পরিচর্যা করতে পারেন। অনেকেই বাড়ির ছাদে, ঘরের আনাচা-কানাচে কিংবা বারান্দায় গাছ লাগিয়েছেন। এখন হাতে প্রচুর সময়। ফলে গাছের বিশেষ পরিচর্যা করার ব্যাপারে মনোযোগ দিতে পারেন। অন্যসময় ব্যস্ততার কারণে গাছের পরিচর্যায় যে কাজগুলো করা কঠিন হয়, এই সময় সেগুলো অনায়াসেই করতে পারেন।

আসুন জেনে নেই, হোম কোয়ারেনটাইনে গাছের বিশেষ ধরনের পরিচর্যা করবেন যেভাবে-

বিজ্ঞাপন

আগাছা পরিষ্কার করুন
আগাছা গাছের শত্রু। আগাছা পরিষ্কার করতে তেমন সময় লাগে না। শুধু একটু ধৈর্য নিয়ে করলেই হয়ে যাবে।

সার দিন
১৫ দিন অন্তর গাছে জৈব সার দেয়া ভালো। কেনা সারের চেয়ে ঘরে বানানো সার গাছের জন্য বেশি উপকারি। সবজির খোসা, ব্যবহৃত চা পাতা ও মাছের আঁশ গাছের সার হিসেবে খুব ভালো। ফলে ১৫ দিন পর পর এগুলোর মিশ্রণ গাছের গোড়ায় দিতে পারেন।

কীটনাশক কখন দেবেন
গাছে যদি পোকা লাগে তাহলে অবশ্যই কীটনাশক স্প্রে দিতে হবে। তবে কোন গাছে কতটুকু পরিমাণে কীটনাশক কার্যকরী, তা জেনে নিতে হবে।

ঘরের গাছে রোদ লাগান
আলো, বাতাসেই গাছ হয়ে ওঠে সজীব। যে গাছগুলো ঘরে রাখেন, মাঝে মাঝে সেগুলো বারান্দা বা ছাদে দিতে পারেন। নিয়মিত রোদ পেলে গাছ আরও ভালোভাবে বেড়ে উঠবে।

সুন্দর থাকুক টব
টবের গায়ে লেগে থাকা মাটি মাঝে মাঝেই পরিষ্কার করা উচিত। অন্যান্য সময় কাজের ব্যস্ততায় এরকম ছোট-খাটো বিষয় অনেকসময় খেয়াল থাকে না। তবে এখন সেসব করতে পারবেন নিশ্চয়ই।

পানি কিন্তু দু’বেলা
চৈত্র মাসের খরতাপে গাছের গোড়া শুষ্ক হয়ে যায়। তাই নিয়ম করে দু’বেলা পানি দিতেই হবে। তবে যদি বৃষ্টি হয় বা গাছের গোড়ায় পানি জমে থাকে তখন পানি দেয়ার দরকার নেই। মনে রাখা ভালো, গাছের জন্য পানি দরকার। তবে প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি দেয়া যাবে না। এতে গাছ মরে যেতে পারে।

এই ইট পাথরের শহরে যাদের এক টুকরো বাগান আছে অথবা নিদেনপক্ষে হাতে গোনা ৫/৬ টি গাছও লাগিয়েছেন, তারাও এই সময় গাছ পরিচর্যার পেছনে কিছুটা সময় দিতে পারেন। এতে মন ভালো থাকবে। একঘেয়েমি দূর হবে।

মডেল: ফাহমিদা হায়দার সোমা
ছবি:  শহীদ উল্লাহ 

সারাবাংলা/টিসি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন