বিজ্ঞাপন

২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ২৪ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ১৬৯৪

May 22, 2020 | 2:37 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশে নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ বাড়ছেই। সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় আরও ১ হাজার ৬৯৪ জনের মধ্যে এই ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে মৃতের সংখ্যায় নতুন রেকর্ড হয়েছে। একদিনে সর্বোচ্চ ২৪ জন মারা গেছেন গত ২৪ ঘণ্টায়। এ নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেন ৩০ হাজার ২০৫ জন। মারা গেলেন ৪৩২ জন।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (২২ মে) দুপুর আড়াইটার দিকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কোভিড-১৯ সংক্রান্ত নিয়মিত বুলেটিনে সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এসব তথ্য তুলে ধরেন।

বুলেটিনে জানানো হয়, সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশ থেকে ৯ হাজার ৯৯৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। এর মধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানের ৪৭টি ল্যাবে ৯ হাজার ৭২৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ নিয়ে মোট ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৪১টি করোনা নমুনা পরীক্ষা করা হলো দেশে।

বিজ্ঞাপন

ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৬৯৪ জন। এ নিয়ে সারাদেশে মোট ৩০ হাজার ২০৫ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হলেন করোনাভাইরাসে। একই সময়ে ২৪ জন মারা যাওয়ায় কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৩২ জনে।

দেশে এখন পর্যন্ত ৬ হাজারেরও বেশি কোভিড-১৯ রোগী সুস্থ হয়েছেন বলে জানানো হয় বুলেটিনে। ডা. নাসিমা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৫৮৮ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে দেশে মোট ৬ হাজার ১৯০ জন কোভিড-১৯ রোগী সুস্থ হয়ে উঠলেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় যে ২৪ জন মারা গেছেন, তাদের বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণের তথ্য তুলে ধরে ডা. নাসিমা বলেন, ৮১ থেকে ৯০ বছর বয়সের মধ্যে একজন, ৭১ থেকে ৮০ বছর বয়সের মধ্যে দুই জন, ৬১ থেকে ৭০ বছর বয়সের মধ্যে ছয় জন, ৫১ থেকে ৬০ বছর বয়সের মধ্যে পাঁচ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সের মধ্যে দুই জন, ৩১ থেকে ৪০ বছর বয়সের মধ্যে তিন জন এবং ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সের মধ্যে পাঁচ জন মারা গেছেন।

বুলেটিনের শুরুতে ডা. নাসিমা বলেন, করোনাভাইরাসের মোকাবিলার করার বিষয়টি অনেকটা যুদ্ধের মতো। আমাদের প্রত্যেককে এই যুদ্ধে ঘরে থাকতে হবে। সামনে ঈদ আছে। কিন্তু আপনারা দয়া করে এই ঈদে বাড়ি যাবেন না। আপনজনদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলবেন না।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সবাই যুদ্ধ করে যাচ্ছি। আপনাদের রক্ষা করতে গিয়ে অনেক চিকিৎসকসহ অন্যরা আক্রান্ত হচ্ছেন, মারা যাচ্ছেন। তাই আপনারা সবাই ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন।

সারাবাংলা/টিএস/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন