বিজ্ঞাপন

সুখবর নেই প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে

May 30, 2020 | 8:12 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

বিজ্ঞাপন

ঢাকা: সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক ৩০ মে’র  পর থেকে সাধারণ ছুটির মেয়াদ শেষ। করোনাভাইরাসের সংক্রমন রোধে এর আগে তা দফায় দফায় বাড়ানো হলেও আর বাড়ছে না। ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্যতীত সবকিছিই ৩১মে থেকে স্বল্প পরিসরে খুলে দেওয়া হচ্ছে। স্বাভাবিক কর্মকাণ্ডে ফিরে যাচ্ছে দেশ। এমতাবস্থায় প্রশ্ন উঠতেই পারে, অন্যান্য সেক্টরের মত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও কি তাহলে স্বাস্থ্যবিধি নেমে ঘরোয়া ক্রিকেট শুরু করতে যাচ্ছে? না, এমন কোন সুখবর দিতে পারেনি লিগের নিয়ন্ত্রক কর্তপক্ষ ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্টোপলিশ–সিসিডিএম।

কেননা সেজন্য সরকারি নির্দেশনার দিকে তাকিয়ে আছে তারা। সরকারের সবুজ সংকেত পেলে ১২টি ক্লাবের সঙ্গে সভায় বসবে তবেই চূড়ান্ত হবে খেলা মাঠে ফিরবে কি না। এর আগে লিগ নিয়ে কোন ধরনের আলোচনায় বসার প্রয়োজনীয়তাই তারা দেখছেন না।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (৩০ মে) সংবাদ মাধ্যমকে এতথ্য দিলেন সিসিডিএম সদস্য সচিব আলী হোসেন।

তিনি জানালেন, ‘খেলা চালু নিয়ে সরকারি নির্দেশনা পেলেই আমরা ক্লাবের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বসব। তার আগে আলোচনা করে তো লাভ নেই। খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তাই আমাদের কাছে মুখ্য। আইসিসির গাইডলাইন থাকবে। ক্লাবের সঙ্গে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

বিজ্ঞাপন

তাছাড়া সরকারি নির্দেশনা পেলেই যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে লিগ মাঠে গড়াবে, বিষয়টি এত সহজও নয় বলেও করেন সিসিডিএস সদস্য সচিব আলী। কেননা করোনায় সৃষ্ট স্থবির অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে দেশের ক্লাবগুলো প্লেয়ারদের খরচ বহন করতে পারবে কিনা অতীব গুরুত্বপূর্ণ সেই বিষয়টিও তাদের ভাবতে হচ্ছে। সেক্ষেত্রে বিসিবির প্রনোদনা না পেলে হয়তো কয়েকটি ক্লাবের পক্ষে লিগের সমুদয় খরচ বহন করা সম্ভবপর হয়ে উঠবে না। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ২০১৯-২০২০ মৌসুমের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ মাঠে গড়াবে কিনা তা নিয়ে শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

বলে রাখা ভাল প্লেয়ার ও ক্লাব কর্মকর্তাদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে ঈদের পরে প্রিমিয়ার লিগ ফেরাতে গেল ১০ মে সিসিডিএমকে চিঠি দিয়েছিল ক্রিকেটাদের ভালমন্দ দেখভাল করার সংগঠন-কোয়াব। কিন্তু দিন দিন করোনার সংক্রমন বাড়তে থাকায় সেই চিঠির কোন সদুত্তর দিতে পারেননি সিসিডিএম।

বিজ্ঞাপন

প্রসঙ্গত,  মার্চের ১৫ তারিখ মাঠে গড়িয়েছিল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটের ২০১৯-২০২০ মৌসুমের খেলা। কিন্তু ওই মাসের শুরুতেই দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বাড়তে থাকলে প্রথম রাউন্ড শেষে অনির্দিষ্টকালের জন্য লিগ বন্ধ ঘোষণা দেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। ১৯ মার্চ বিসিবিতে সংক্ষিপ্ত সভাশেষে দেওয়া এই ঘোষণার সময় তিনি আরো বলেছিলেন, দেখি ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হয় কীনা। যদি হয় তাহলে ভেবে দেখব খেলা ফেরানো যায় কীনা। কিন্তু তখনও পরিস্থিতির উন্নতি হলো না বলে সিসিডিএম নিজেরদের মধ্যে আলোচনা করে আবার অনির্দিষ্টকালের জন্য লিগ স্থগিত করে দেয়। যা আজও বলবৎ আছে।

সারাবাংলা/এমআরএফ/জেএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন