বিজ্ঞাপন

টাইগারদের কাছে ভারতের বিশ্বকাপে হারের দোষ চ্যাপেলের

June 16, 2020 | 1:17 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

২০০৭ সালে বিশ্বকাপে ভারতকে হারিয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ দল। সেদিন তারুণ্যে ভরপুর বাংলাদেশ দল দুর্দান্ত খেলেছিল। তবে ভারতের পক্ষ থেকে সে ম্যাচের গল্পটা অন্যরকম। ভারতের তারকা স্পিনার হরভজন সিংয়ের মতে ভারত দলের মধ্যে বিভাজন থাকায় বিশ্বকাপের ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পেয়েছিল। আর এই বিভাজন সৃষ্টির জন্য সেসময়কার কোচ গ্রেগ চ্যাপেল দায়ী বলেই জানালেন হরভজন।

বিজ্ঞাপন

ক্যারিবীয় দীপপুঞ্জে সেদিন শচীন, দ্রাবিড়দের কোণঠাসা করে রেখেছিল মাশরাফি, সাকিব, তামিমরা। আর বিশ্বকাপের ওই ম্যাচে হেরেই গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল রাহুল দ্রাবিড়ের নেতৃত্বাধীন ভারত। গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় ভারতের জন্য লজ্জাজনক এক পরিস্থিতি, আর এমন লজ্জার পরিস্থিতির কারণে অনেকেই হাত দেখেছেন অস্ট্রেলিয়ান কোচ চ্যাপেলের। হরভজনও সেই তালিকার বাইরের কেউ নন।

ভারতের ক্রিকেট বিশ্লেষক আকাশ চোপড়ার সঙ্গে ইউটিউবে এক সাক্ষাৎকার দেন হরভজন। সেখানেই প্রকাশ করেন এসব তথ্য। দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির কারণেই বাংলাদেশ এবং শ্রীলঙ্কার মতো ছোট দলের বিরুদ্ধে পরাজয় বরণ করতে হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

হরভজন বলেন, ‘সেবার (২০০৭ বিশ্বকাপ) আমরা খারাপ দল ছিলাম না। নিজেদের মেলে ধরতে পারিনি। মানসিকভাবে খুবই বাজে অবস্থায় ছিল পুরো দল। কেউ কাউকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। দলের মধ্যে এমন বিভাজন সৃষ্টির জন্য দায়ী ছিলেন গ্রেগ চ্যাপেল। এমন অস্থিরতার মধ্যে থাকা একটা দল স্বাভাবিকভাবেই ভালো করবে না। আমরা শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের কাছে হেরে গিয়েছিলাম। অথচ, শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশ মোটেই বড় দল ছিল না।’

৩৯ বছর বয়সী হরভজন সেবারের বিশ্বকাপের সময়টাকেই নিজের ক্যারিয়ারের সবথেকে বাজে সময় বলে আখ্যা দিয়েছেন। এই প্রসঙ্গে হরভজন বলেন, ‘২০০৭ বিশ্বকাপ আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে খারাপ সময়। আমরা তখন কঠিন একটা সময়ের মধ্যে দিয়ে চলছিলাম। গ্রেগ চ্যাপেলের মতো একজন ভুল লোক তখন জাতীয় দলের দায়িত্বে। তিনি ঠিক কি করতে চাইতেন তা নিয়ে দলের সবার মধ্যে একটা অস্বস্তি কাজ করত। দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার জন্য সময়টা সঠিক ছিল না।’

বিজ্ঞাপন

তবে হরভজন যেভাবেই বলুক না কেন সেদিন ভারতের বিপক্ষে বড় দলের মতোই খেলেছিল বাংলাদেশ। বল হাতে মাশরাফি তোপের গোলা আর রাজ্জাকের ঘূর্ণির পর ব্যাট হাতে সাইক্লোনের মতো তামিমের ব্যাট ঝড় তুলেছিল। এরপর শেষটা করেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল এবং তরুণ মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশের ইতিহাসের অন্যতম সেরা জয় তো সেটাই।

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন