বিজ্ঞাপন

গাজীপুরে চিরনিদ্রায় শায়িত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর স্ত্রী

June 29, 2020 | 6:15 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

গাজীপুর: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ বানুর দাফন শেষ হয়েছে। জোহরের নামাজের পর গাজীপুর সিটি করপোরেশন কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয় তাকে। এর আগে কবরস্থান সংলগ্ন বায়তুল মোয়াজ্জাম জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (২৯ জুন) সকালে মারা যান লায়লা আরজুমান্দ বানু। পরে তার মরদেহ গাজীপুরে নিয়ে যাওয়া হয়।

আরজুমান্দ বানুর জানাজায় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, ,যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন সবুজ, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমতউল্লাহ খাঁন, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার, গাজীপুরের জেলা প্রশাসকসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা অংশ নেন। জানাজায় ইমামতি করেন প্রয়াত আরজুমান্দ বানুর একমাত্র ছেলে এ টি এম মাজহারুল হক তুষার।

বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে ১৩ জুন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোহাম্মেল হক ও তার স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ বানু ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি হন। এর মধ্যে মন্ত্রী সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরলেও তার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থা ছিল সংকটাপন্ন। শেষ পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার সকালে মারা গেছেন তিনি।

১৯৪৯ সালের ৬ জানুয়ারি গাজীপুরে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে লায়লা আরজুমান্দ বানু জন্ম নেন। তার বাবা শেখ মোবারক জান, মা লাল বানু। ব্যক্তি জীবনে অত্যন্ত ধর্মপ্রাণ লায়লা আরজুমান্দ বানু ১৯৭৩ সালে আ ক ম মোজাম্মেল হকের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। লায়লা আরজুমান বানু ২ কন্যা, এক পুত্র এবং ৬ জন নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন