বিজ্ঞাপন

সহজ কৌশলে ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ নিরাপদ করবেন যেভাবে

July 3, 2020 | 9:09 am

লাইফস্টাইল ডেস্ক

আপনি যদি এই মহামারির সময়ে বাড়ি থেকে (ওয়ার্ক ফ্রম হোম) অফিসের কাজ করে থাকেন তাহলে হয়ত ক'দিন পরেই দেখবেন কাজ করা কষ্টকর এবং এতে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দেখা দিয়েছে। অনেকের বাসা-বাড়িতে অফিসের চেয়ার থাকে না ফলে লম্বা সময় ধরে কফি টেবিলে, খাবার ঘরের চেয়ারে বসে কাজ করতে হয়। এটি স্বাস্থ্যের পক্ষে খুব একটা ভালো নয়।

বিজ্ঞাপন

আমেরিকান ফিজিক্যাল থেরাপিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের মুখপাত্র এরিক রবার্টসন প্রখ্যাত সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি'কে জানিয়েছেন, বাসা-বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করতে দরকার 'বসার ভঙ্গি' এবং কাজের 'সূচি' সম্পর্কে আরও সচেতন হওয়া। এতে শারীরিক সুবিধার পাশাপাশি কাজের ফলে সৃষ্ট মানসিক চাপকেও আরও ভালোভাবে মোকাবিলা করা যাবে।

বোস্টন ইউনিভার্সিটি অফ হেলথ এন্ড রিহ্যাবিলিটেশন সায়েন্স- এর অধ্যাপক ক্যারেন জ্যাকবস বলেন, ওয়ার্ক ফ্রম হোম সেটআপে খুব সহজ, সৃজনশীল ও সস্তা কিছু কৌশল অবলম্বন করলেই আরামদায়ক, স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ করা যায়। বাসা-বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করার সময় কিভাবে পিঠের ব্যথা থেকে মুক্ত থাকবেন এবং বসার স্থান কিভাবে আরামদায়ক করে তুলবেন এই প্রতিবেদনে তা তুলে ধরা হয়েছে। আমেরিকান ফিজিক্যাল থেরাপিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের মুখপাত্র এরিক রবার্টসন এবং বোস্টন ইউনিভার্সিটি অফ হেলথ এন্ড রিহ্যাবিলিটেশন সায়েন্স- এর অধ্যাপক ক্যারেন জ্যাকবসের  পরামর্শ মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি প্রকাশ করেছে।

বিজ্ঞাপন

নিয়মিত বসার ভঙ্গি পরিবর্তন করুন

বসার ভঙ্গি নিয়মিত পরিবর্তন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সারাদিন একই পজিশনে বা একই চেয়ারে বসে থাকার কারণে পিঠ, ঘাড় এবং কাঁধে ব্যথা হয়। যেমন, আপনি রান্নাঘরের টেবিলে বসে দিন শুরু করতে পারেন তারপর কোনো স্থায়ী জায়গায় বা নরম বিছানায়ও বসতে পারেন। প্রতি ঘণ্টায় বসার অবস্থান বদলানো উত্তম।

বসার জায়গায় একটি বালিশ রাখুন

একটি পাতলা বালিশ রেখে সাধারণ চেয়ারটিকে অনেক বেশি আরামদায়ক বানানো যায়। যদি পাতলা বালিশ না থাকে তবে একটি তোয়ালে ভাঁজ করে চেয়ারে রেখেও কাজ চালানো সম্ভব। চেয়ারের পেছনে একটি নরম তোয়ালে রাখার মত ছোট একটি বিষয়ও চেয়ারটিকে আরও বেশি আরামদায়ক করে তুলতে পারে।

মেরুদণ্ডের নিচের দিকে সাপোর্টের জন্য একটি তোয়ালে রাখতে পারেন

যদি আপনি আগে থেকেই পিঠের ব্যথায় ভোগে থাকেন তবে মেরুদণ্ডের নিচের দিকের সাপোর্টের জন্য একটি বালিশ সেখানে রাখতে পারেন। এতে বসে দীর্ঘ সময় কাজ করতে গেলে মেরুদণ্ডের সমস্যা হওয়া থেকে মুক্তি পাবেন। এছাড়া এটি বসার সময় জায়গাটিকে আরামদায়ক করে তুলবে। আপনাকে এই কাজের জন্য আলদা কোনো বালিশ কিনতে হবে না। একটি তোয়ালেকে গোল ভাঁজ করে বসার জায়গায় মেরুদণ্ডের নিচের দিক (ল্যাম্বার) এবং চেয়ারের মধ্যকার জায়গায় রাখতে পারেন।

পা উপরে তুলুন

তুলনামূলক একটি উঁচু স্থানে আপনার পা রাখুন যাতে নিচে ঠেস দেওয়া অবস্থায় থাকে। পা এরকম রাখার ফলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে। এটি কাজের সময় আপনাকে সুন্দর অনুভূতি এনে দেবে। সাধারণত যখন চেয়ারে বসা হয় তখন কোমর এবং উরু ৯০ ডিগ্রি কোণ গঠন করা উচিত। তবে বসে পা সামনে-পিছনে নেওয়ার সুযোগ থাকা ভালো। এ কাজে যদি আপনার চেয়ারটি সাহায্য করে তাহলে খুব ভালো।

ল্যাপটপ উঁচুতে রাখুন

ল্যাপটপ কম্পিউটার কখনই আরামদায়ক এবং স্বাচ্ছন্দ্যে কাজের জন্য উপযোগী নয়। কারণ এর মনিটর খুব নিচু এবং কিবোর্ড থাকে বেশি উঁচুতে। সাধারণত, বসে কাজ করার সময় মনিটর এবং চোখের লেভেল সমান হওয়া উচিত যাতে কাজ করার সময় আপনার ঘাড়ে চাপ না পড়ে। আপনি যদি লম্বা সময় ধরে কাজ করেন তবে ল্যাপটপটিকে উঁচুতে রাখুন যাতে এটি চোখের সমান হয়। আবার আপনি যখন টাইপ করবেন তখন এটিকে এমনভাবে নামিয়ে ফেলুন যেন আপনার হাতগুলি শরীরের সঙ্গে ৯০ ডিগ্রি কোণে বেঁকে থাকতে পারে।

নিয়মিত বিরতি নিন

বেশিরভাগ লোকই অফিসে বিরতি নেন এবং হালকা হাঁটাহাঁটি করেন। কিন্তু বাড়িতে কাজ করার সময় 'কাজে অধিক মনোযোগ' দিতে গিয়ে এই বিরতি নেওয়ার বিষয়টি ভুলে যেতে পারেন।

বাড়িতে কাজ করার সময় প্রতি ৩০ মিনিট অন্তর অন্তর তিন থেকে পাঁচ মিনিটের জন্য বিরতি নিন। এ জন্য একটি টাইমার সেট করে নিতে পারেন। বিরতি নিয়ে একটু হেঁটে আসুন অথবা আপনার ডেস্কেই হাত-পা লম্বা করে একটু বিশ্রাম নিন। প্রতিদিনের কাজে এই অভ্যাসটি যুক্ত করলে আপনার শারীর সুস্থ রাখতে এবং পিঠের ব্যথা প্রশমিত করতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

যদি একটি চেয়ার কিনতে চান

যদি বাড়ি থেকে অফিসের কাজ দীর্ঘ সময় ধরে করতে হয় তবে কাজ করার উপযোগী একটি চেয়ার কিনতে পারেন। আপনার বসার উচ্চতা, পিছনের হেলান, হাতল এবং ল্যাম্বার (মেরুদণ্ডের নিচের অংশ) সাপোর্ট, এসব বৈশিষ্ট্যপূর্ণ একটি চেয়ার কেনা উচিত। চাকাযুক্ত একটি চেয়ার কম্পিউটার বা টেবিলের সঙ্গে নিয়মিত দূরত্ব কমাতে-বাড়াতে সুবিধা দেবে। সাধারণত, কম্পিউটারের পর্দা থেকে হাত মুঠো করে একহাত সমান দূরত্বে বসা উচিত।

সারাবাংলা/আইই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন