বিজ্ঞাপন

যুবলীগ নেতা খুনের মামলায় জামিনে বেরিয়ে চাঁদাবাজিতে ধরা

July 3, 2020 | 1:22 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: যুবলীগ নেতা মেহেদী হাসান বাদল হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাদ্দাম জামিনে বেরিয়ে ফের চাঁদাবাজিতে জড়িয়ে ধরা পড়েছে। শুক্রবার (৩ জুলাই) ভোরে নগরীর বায়েজিদ বোস্তামি থানার শেরশাহ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

নগর পুলিশের বায়েজিদ বোস্তামি জোনের সহকারি কমিশনার পরিত্রাণ তালুকদার সারাবাংলাকে বলেন, 'সাদ্দামকে কয়েক বছর আগে গোয়েন্দা পুলিশ গ্রেফতার করেছিল। পরে সে জামিনে বেরিয়ে আসে। কয়েকদিন ধরে তার বিরুদ্ধে ব্যাপক চাঁদাবাজির অভিযোগ পাচ্ছিলাম। ব্যবসায়ী, ভবন মালিকসহ শেরশাহ, বাংলাবাজার, আরেফিন নগর, ঢেবার পাড় এলাকার বাসিন্দাদের টেলিফোনে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা আদায়ের একাধিক অভিযোগ আমরা পেয়েছি। এরপর তাকে গ্রেফতার করেছি।'

গ্রেফতার গোলাম রসুল সাদ্দাম (৩০) স্থানীয়ভাবে যুবলীগের কর্মী হিসেবে নিজেকে পরিচয় দেন।

বিজ্ঞাপন

বায়েজিদ বোস্তামি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রিটন সরকার সারাবাংলাকে বলেন, ‘জামিনে এসে চাঁদাবাজির জন্য অস্ত্র সংগ্রহ করে সাদ্দাম। এসব অস্ত্র হাতে নিয়ে প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করতো। ফেসবুকে ছবিসহ স্ট্যাটাসও দিত। গ্রেফতারের সময় তার কাছে একটি কার্তুজ ভর্তি এলজি পাওয়া গেছে।’

২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর রাতে নগরীর শেরশাহ কলোনীর বাসায় ফেরার পথে যুবলীগ নেতা মেহেদী হাসান বাদলকে গুলি করে খুন করে দুর্বৃত্তরা।

গত ১ সেপ্টেম্বর রাতে বাসায় ফেরার পথে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন যুবলীগ নেতা মেহেদী। মেহেদী চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

হত্যাকাণ্ডের পর মেহেদীর পরিবার দাবি করেছিল, স্থানীয় সন্ত্রাসী শফি, কুদ্দুস, সাদ্দাম ও তাদের অনুসারী সন্ত্রাসীরা মেহেদীকে হত্যা করেছে। আর মেহেদীর অনুসারীরা দাবি করেছিল, সাদ্দামই মেহেদীকে গুলি করে হত্যা করেছে।

মেহেদী খুনের তিনদিন পর তার স্ত্রী মোবাশ্বেরা বেগম বায়েজিদ বোস্তামি থানায় সাদ্দামকে প্রধান আসামি করে ২২ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা আরো চার-পাঁচজনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় ২০১৬ সালে জানুয়ারিতে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ থেকে সাদ্দামকে গ্রেফতার করেছিল চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশ। চার মাস আগে সাদ্দাম ওই মামলায় জামিনে ছাড়া পায়।

সারাবাংলা/আরডি/টিসি

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন