বিজ্ঞাপন

‘রোগী ও সংবাদকর্মীদের ওপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন’

July 4, 2020 | 8:18 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: মুগদা হাসপাতালে করোনাভাইরাস টেস্ট করতে আসা রোগী ও দায়িত্বপালন করতে আসা সংবাদকর্মীদের ওপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন ‘ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’-এর আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম। পাশাপাশি স্বাস্থ্য খাতের ব্যাপক উন্নয়ন ও দুর্নীতি বন্ধেরও দাবি জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (৪ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে মুফতি মুহাম্মদ সৈয়দ রেজাউল করীম এসব দাবি জানান।

তিনি বলেন, ‘গতকাল (শুক্রবার, ৩ জুলাই) মুগদা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের মারধর ও সাংবাদিকেদের ক্যামেরা কেড়ে নেওয়া ও নাজেহাল করার ঘটনা কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। গণমাধ্যম কর্মীদের ওপর আনসার সদস্যদের হামলে পড়ার ন্যাক্কারজনক ঘটনার নিন্দা জানানোর ভাষা আমাদের জানা নেই। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষী আনসারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

বিজ্ঞাপন

সৈয়দ রেজাউল করীম বলেন, ‘করোনাভাইরাস মহাসংকট উত্তরণে স্বাস্থ্য খাতের ব্যাপক উন্নতি ঘটাতে হবে। সবকিছু সহজলভ্য করতে হবে। করোনা টেস্ট ফ্রি করার পাশাপাশি প্রত্যেক উপজেলায় করোনা চিকিৎসার হাসপাতাল তৈরি করতে হবে। স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাবে চিকিৎসকরাও আক্রান্ত হচ্ছেন। মানুষ বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে। তারপরও স্বাস্থ্য অধিদফতরের লুটতরাজ থেমে নেই। আমরা ব্যর্থ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে আসছি।’

বিজ্ঞাপন

সৈয়দ রেজাউল করীম বলেন, ‘এই মহামারি থেকে রক্ষা পেতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধৈর্যধারণ করতে হবে। দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গঠনে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। অন্যায় ও অসত্য কাজ থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘জাতির চরম দুর্যোগেও সরকারের সীমাহীন ব্যর্থতা, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা, ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের ত্রাণের চাল ও অর্থ আত্মসাতের মতো ঘটনা জাতিকে চরমভাবে ব্যথিত করেছে।‘

বিজ্ঞাপন

সৈয়দ রেজাউল করীম বলেন, ‘কর্মহীন এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণি সীমাহীন কষ্টে দিনাতিপাত করছে। তারা সম্মানের ভয়ে হাত পাততে পারছে না। অর্থনৈতিকভাবে দেশ অনেক পিছিয়ে পড়ছে। এ সংকট কবে নাগাদ শেষ হবে, তা কেউ জানে না।’

সরকারদলীয় তিন সংসদ সদস্যের নানা অপকর্ম দেশ-বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তিকে ধূলিসাৎ করে দিয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘সরকারদলীয় এমপিদের চরম দুর্নীতি সচেতন জনতাকে ভাবিয়ে তুলেছে। তারা নিয়োগবাণিজ্য, সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পে দুর্নীতি, ফসলি জমির মাটি কাটা, সন্ত্রাস আর দুর্নীতির মাধ্যমে দেশে-বিদেশে সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলছে। তারা অর্থ ও মানব পাচারের পাশাপাশি নানা অপকর্মে জড়িত।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেড/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন