বিজ্ঞাপন

রাতে পৃথক ম্যাচে মাঠে নামছে ম্যানচেস্টার সিটি ও লিভারপুল

July 8, 2020 | 4:42 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

নিয়মরক্ষার ম্যাচ হলেও পূর্ণ শক্তিধর দল নিয়েই লিভারপুল খেলে যাচ্ছে নিয়মিত। অন্যদিকে ম্যানচেস্টার সিটির মৌসুমের এই পর্যায়ে অধারাবাহিক পারফরম্যান্স। রাতে দুই দলই মাঠে নামছে পৃথক দুই ম্যাচে। প্রথম বুধবার (৮ জুলাই) রাত ১১টায় ম্যানচেস্টার সিটি আতিথ্য দেবে নিউক্যাসেল ইউনাইটেডকে। অন্যদিকে বাংলাদেশ সময় রাত ১টা ১৫ মিনিটে (বৃহস্পতিবার-৯ জুলাই) ব্রাইটনের মাঠে খেলবে ইপিএল চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল।

বিজ্ঞাপন

ম্যাচ শুরুর আগে খুব বেশি সুখকর অবস্থায় নেই ম্যানচেস্টার সিটি। লিভারপুলের কাছে শিরোপার হারানোর পর ঘরের মাঠেই অল রেডদের ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত করে তারা। আর এরপরের ম্যাচেই ক্রিস্টাল প্যালেসের কাছে ১-০ গোলের ব্যবধানে হেরে বসেছে সিটিজেনরা। তবে নিউক্যাসেলের বিপক্ষে নিজেদের অতীত পরিসংখ্যান আশা দেখাচ্ছে গার্দিওলার দলকে। নিউক্যাসেলের বিপক্ষে শেষ ১৫ ম্যাচে অপরাজিত সিটি, আর টানা ১০ ম্যাচেই জয় পেয়েছে সিটি। তাই নিউক্যাসেলের বিপক্ষে আত্মবিশ্বাসী হিসেবেই মাঠে নামবে তারা।

সার্জিও আগুয়েরোর অনুপস্থিতি বেশ ভুগাচ্ছে গার্দিওলাকে। কেভিন ডি ব্রুইন, রিয়াদ মাহারেজ, ডেভিড সিলভা কিংবা রহিম স্টার্লিং দুর্দান্ত ফর্মে থাকলেও আগুয়েরোর অনুপস্থিতি খুব করে অনুভব করছে সিটি। তবে এখনই আগুয়েরোকে পাচ্ছে না গার্দিওলা। ভরসা রাখতে হচ্ছে এই আক্রমণ ভাগের ওপরেই।

বিজ্ঞাপন

রাতে পৃথক ম্যাচে মাঠে নামছে ম্যানচেস্টার সিটি ও লিভারপুল

অন্যদিকে শিরোপা নির্ধারণ হয়ে যাওয়ায় বেশ ফুরফুরে মেজাজে লিভারপুল। যদিও শিরোপা নির্ধারণ হওয়ার পরের ম্যাচেই লজ্জাজনক হারের সামনে পড়তে হয়েছিল তাদের। এরপরে অবশ্য নিজেদের গুছিয়ে নিয়েছে অল রেডরা। নিজেদের শেষ ম্যাচে অ্যাস্টন ভিলাকে ২-০ গোলের ব্যবধানে হারিয়ে আবারও জয়ে ফিরেছে ইয়্যুর্গেন ক্লপের দল।

ব্রাইটনের বিপক্ষে শেষ আট ম্যাচের সবক'টি ম্যাচেই জয় পেয়েছে লিভারপুল। যার মধ্যে পাঁচ ম্যাচই ছিল লিগের। তবে পরিসংখ্যান যাই বলুক না কেন করোনা পরবর্তী সময়ে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছে ব্রাইটন। পুনরায় লিগ শুরু হওয়ার পর ব্রাইটন নিজেদের চার ম্যাচের মধ্যে দুটিতে জিতেছে, একটি ড্র এবং একটিতে হার। অন্যদিকে লিভারপুল লিগের ৩৩ ম্যাচের মধ্যে ২৯টিতেই জিতেছে।

দুর্দান্ত ফর্মে থাকা লিভারপুলের লক্ষ্য লিগের বাকি থাকা ম্যাচগুলোতে জয় নিয়েই লিগ শেষ করা। অন্যদিকে ইপিএলের গোল্ডেন ব্যুটের দৌড়ে বেশ খানিকটা পিছিয়ে পড়েছেন সাদিও মানে এবং মোহাম্মদ সালাহ। ইপিএলের সর্বোচ্চ গোলদাতা লেস্টার সিটির জেমি ভার্দি (২২ গোল), দুইয়ে আছেন আর্সেনালের অবমেয়ং (২০ গোল), তিনে সাউদাম্পটনের ড্যানি ইংস (১৮ গোল), চারে মোহাম্মদ সালাহ (১৭ গোল) এবং পাঁচে সাদিও মানে (১৬ গোল)।

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন