বিজ্ঞাপন

করোনার উৎস হতে পারে কোভিড বর্জ্য, গাইডলাইন দাবি পবা’র

July 11, 2020 | 5:12 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বাংলাদেশে নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড ১৯) পরিস্থিতিতে মেডিকেল বর্জে্যর সঙ্গে যুক্ত হওয়া কোভিড বর্জ্য করোনা ছড়ানোর উৎস হতে পারে। কোভিড বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে গাইডলাইন না থাকায় করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে। এমন অবস্থায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নীতিমালা চেয়ে অনলাইনে সংবাদ সম্মেলন করে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা)।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (১১ জুলাই) এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। পরে এ বিষয়ে গণমাধ্যমে প্রেস রিলিজ পাঠায় সংগঠনটি। প্রেস রিলিজে স্বাক্ষর করেন সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. লেলিন চৌধুরী।

অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে আলোচক ছিলেন প্রফেসর ডা. রশীদ-ই-মাহবুব, প্রফেসর ডা. শুভাগত চৌধুরী, প্রকৌশলী আ.সোবহান (সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক, পরিবেশ অধিদপ্তর), ডা. পংকজ কান্তি সূত্রধর, এমডি, হেলথ অ্যান্ড হোপ হাসপাতাল। সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন পবার চেয়ারম্যান আবু নাসের খান।

বিজ্ঞাপন

অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে কী পরিমাণ কোভিড বর্জ্য হয়েছে তার হিসাব নেই। তবে অনুমান করা যায় এটি বিশাল হবে। সঠিক ব্যবস্থাপনার আওতায় আনা না হলে এগুলো কোভিড ছড়ানোর উৎস হয়ে উঠতে পারে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সংক্রামক রোগব্যাধি ছড়ানোর একটি অন্যতম উৎস হচ্ছে মেডিকেল বর্জ্য। এর ভাঙা কাচ, ধাতব পদার্থ, সুঁই ইত্যাদি মানুষ ও প্রাণীর জন্য ক্ষতিকর। ওষুধ ও বিভিন্ন রাসায়নিক মিশ্রিত তরল-মাটি, পানি ও বায়ুর দূষণ ঘটায়। প্লাস্টিক ও প্লাস্টিকজাত দ্রব্য ও পলিথিন মাটির জন্য ভয়াবহ রকমের ক্ষতিকর। এ বর্জ্যের দ্রবণীয় ক্ষতিকর পদার্থ নানাভাবে মানুষের, স্থলচর ও জলচর প্রাণীর খাদ্যচক্রে প্রবেশ করে। পুরো ব্যাপারটিই মানুষের অসুস্থতা এবং পরিবেশের দূষণের সঙ্গে গভীরভাবে সম্পর্কযুক্ত।’

বিজ্ঞাপন

‘সাধারণ মেডিকেল বর্জ্যের সঙ্গে করোনাকালে যুক্ত হয়েছে কোভিড বর্জ্য। কোভিড বর্জ্য দুইধরনের। এক. কোভিড/সন্দেহভাজন কোভিড রোগীর ব্যবহৃত মাস্ক, গ্লাভস, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী, হাঁচি-কাশি, কফ ইত্যাদি পরিষ্কার করার কাজে ব্যবহৃত কাপড়, টিস্যু পেপার,তোয়ালে/গামছা ইত্যাদি। দুই. কোভিড রোগির চিকিৎসায় সরাসরি কিছু বর্জ্য তৈরি হয় যেমন- নেজাল ক্যানুলা, অক্সিজেন ক্যানুলা, ব্রিদিং ইনস্ট্রুমেন্ট, অক্সিজেন মাস্ক ইত্যাদি। বিগত চার মাসের করোনাকালে সারাদেশে কী পরিমাণ কোভিড বর্জ্য উৎপন্ন হয়েছে তার সঠিক কোনো হিসাব নেই। তবে অনুমান করা যায় এটির পরিমাণ বিশাল হবে। সঠিক ব্যবস্থাপনার আওতায় না আনলে এগুলো করোনা ভাইরাস ছড়ানোর উৎস হয়ে উঠবে।’

সংগঠনটি উদ্বেগ প্রকাশ করে জানায়, রাস্তার দুপাশে প্রতিদিন ফেলে রাখা শতশত মাস্ক গ্লাভস দেখা যায়। রাস্তার মোড়ে মোড়ে আবর্জনার গাদায় ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী ফেলা হয়। বাড়িতে আইসোলেশনে থাকা কোভিডবর্জ্য কীভাবে কোথায় ফেলতে হয় সেটা অধিকাংশ মানুষ জানে না। তারা বেশিরভাগই রাস্তার পাশে এসব ফেলে আসে। যেসব মহল্লায় স্থানীয় উদ্যোগে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বর্জ্য সংগ্রহ করা হয় সেখানে অন্য সব বর্জ্যের মতো কোভিডবর্জ্যকে ছেঁড়াফাটা ব্যাগে সংগ্রাহকের হাতে কোনমতে তুলে দেওয়া হয়।। যে সব ল্যাবরেটরিতে নমুনা সংগ্রহ ও করোনা পরীক্ষা করা হয় তাদের অনেকেই সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ধার ধারছে না। বিশেষকরে যেসব স্থানে করোনাপূর্ব কাল থেকেই মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ছিল না সেসব জায়গার অবস্থা ভয়াবহ। সবমিলিয়ে বলা যায়, অনেক স্থানে কোভিডবর্জ্য করোনা সংক্রমণের উৎস হয়ে উঠেছে। পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে গবেষণায় প্রমাণিত।

বিজ্ঞাপন

এই পরিস্থিতিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও জাতিসংঘের পরিবেশ কার্যক্রমের নির্দেশনা অনুযায়ী জরুরি ভিত্তিতে ‘জাতীয় মেডিকেল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা’ গাইডলাইন তৈরি করার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি। এছাড়া মেডিকেল বর্জ্য খোলা জায়গা কিংবা খাল-বিল-নদী-নালায় না ফেলার আহ্বান জানায়। প্রয়োজনে নিয়ম লঙ্ঘন করে দোষীদের জরিমানা কিংবা শাস্তির আওতায় আনার সুপারিশ করে সংগঠনটি।

এ ছাড়া উপজেলা পর্যায়ে মেডিকেল বর্জে্যর জন্য ডাম্পিং স্টেশন কিংবা বিজ্ঞানসম্মত চুল্লি স্থাপনের অনুরোধ জানায় সংগঠনটি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরএফ/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন