বিজ্ঞাপন

ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালেও সফল রাশিয়ার করোনা ভ্যাকসিন!

July 13, 2020 | 2:50 am

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সব ধাপ পেরিয়ে এবার ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালেও শেষ করেছে রাশিয়ার গামালেই ইনস্টিটিউট অব এপিডেমিওলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজির তৈরি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিন। সেচেনাভ ফার্স্ট মস্কো স্টেট মেডিকেল ইউনিভার্সিটিতে এই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল শেষে গবেষকরা জানিয়েছেন, এই ভাইরাসটি মানবদেহের জন্যও সম্পূর্ণ নিরাপদ।

বিজ্ঞাপন

এর ফলে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন হিসেবে বাজারে আসার জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত হয়ে গেলে এই ভ্যাকসিন। সেক্ষেত্রে এটিই বিশ্বের প্রথম বাণিজ্যিক ভ্যাকসিন হিসেবে বাজারে আসতে পারে। যদিও এই ভ্যাকসিনের বাণিজ্যিক উৎপাদন কবে নাগাদ শুরু হবে, সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি ভ্যাকসিন উৎপাদনকারীদের পক্ষ থেকে।

রোববার (১২ জুলাই) রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা তাস ও স্পুটনিক এ খবর দিয়েছে। গবেষকদের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়েছে, দুই ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালই শেষ করেছে সেচেনাভ ইউনিভার্সিটি। তবে যেসব স্বেচ্ছাসেবকের ওপর এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছে, তারা এখনো ছাড়া পাননি। ছাড়া পেলেও তাদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হবে।

বিজ্ঞাপন

সেচেনাভ ফার্স্ট মস্কো স্টেট মেডিকেল ইউনিভার্সিটিতে এই ট্রায়ালের গবেষক দলের প্রধান ও বিশ্ববিদ্যালয়টির সেন্টার ফর ক্লিনিক্যাল রিসার্চ অন মেডিকেশনের প্রধান ইলিনা স্মলিয়ারচুক সংবাদ সংস্থা তাস’কে বলেন, ভ্যাকসিন নিয়ে গবেষণা শেষ হয়েছে এবং এটি নিরাপদ হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবীদের একটি দলকে ১৫ জুলাই ও আরেকটি দলকে ২০ জুলাই ছাড়পত্র দেওয়া হবে।

স্বেচ্ছাসেবীদের প্রথম দলটিতে আছেন ১৮ জন। গত ১৮ জুন তাদের শরীরে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছিল। অন্যদিকে ২০ জনের দ্বিতীয় স্বেচ্ছাসেবী দলের সদস্যদের শরীরে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয় গত ২৩ জুন।

এদিকে, সেচেনাভ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ট্রান্সলেশনাল মেডিসিন অ্যান্ড বায়োটেকনোলজির পরিচালক ভাদিম তারাসভ সংবাদ সংস্থা স্পুটনিককে বলেন, করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের প্রথম সফল ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সফলভাবে শেষ করেছে সেচেনাভ বিশ্ববিদ্যালয়।

সেচেনাভ ইউনিভার্সিটির ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল প্যারাসাইটোলজি, ট্রপিক্যাল ও ভেকটর-বর্ন ডিজিজেসের পরিচালক আলেক্সান্দার লুকাশেভ বলেন, ভ্যাকসিন নিয়ে গবেষণার এই ধাপটির লক্ষ্য ছিল এটি মানবশরীরে নিরাপদ কি না— সেটি জানা। আর সে উদ্দেশ্য সফল হয়েছে। ভ্যাকসিনটি নিরাপদ— সেটি নিশ্চিত হওয়া গেছে। বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধের জন্য যেসব ভ্যাকসিন রয়েছে, করোনার এই ভ্যাকসিনটির নিরাপত্তা সেগুলোর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।

লুকাশেভ জানান, এরই মধ্যে বর্তমান মহামারি পরিস্থিতি বিবেচনা করে কিভাবে ভ্যাকসিনটি বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনে যাওয়া যায়, তা নিয়ে কাজ শুরু হয়ে গেছে। তবে কবে নাগাদ এটি বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাবে কিংবা কবে নাগাদ এটি বাজারে আসবে— সে বিষয়ে তিনি বা অন্য কেউই কিছু জানননি।

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন