বিজ্ঞাপন

আশা করি শিগগিরই ক্রিকেট ফিরবে: মিঠুন

July 13, 2020 | 3:52 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

করোনার প্রবল দাপটে একে একে বাংলাদেশের সব সিরিজই স্থগিত হয়ে গেল। প্রথমে পাকিস্তান সিরিজ, এরপরে আয়ারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও সবশেষ শ্রীলঙ্কা সিরিজটিও স্থগিতাদেশ দেখল। তবে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ গুলো স্থগিত হলেও জাতীয় দলের অনেক ক্রিকেটারই আশা করেছিলেন অন্তত এশিয়া কাপ মাঠে গড়াবে। শেষমেষ সেটাও যখন স্থগিত হয়ে গেল তখন তাদের অনেকেরই মন ভেঙেছে, ভর করেছে হতাশা।

বিজ্ঞাপন

তাদের মন ভেঙেছে এ কারণে যে প্রায় একটি বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটহীন থাকতে হচ্ছে। কেননা অক্টোবরে ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি হবে কিনা তা নিয়েও যথেষ্ট সন্দেহ আছে। তবুও আশাবাদী মোহাম্মদ মিঠুন। লাল-সবুজের এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান প্রত্যাশা করছেন খুব শিগগিরই তারা ক্রিকেটে ফিরতে পারবেন। ক্রিকেট থেকে তাদের লম্বা বিরতির কথা চিন্তা করে বিসিবি অনতিবিলম্বেই মাঠে ক্রিকেট ফেরাতে উদ্যোগী হবে বলেও মত তার। আর একবার ক্রিকেট ফিরলেই তিনি ও তার সতীর্থরা সকল হতাশা ও বিষন্নতা থেকে বেরিয়ে আসতে পারবেন বলেও মত তার।

সোমবার (১৩ জুলাই) সারাবাংলা'র সঙ্গে আলাপকালে কথাগুলো বলছিলেন মিঠুন।

বিজ্ঞাপন

তিনি বললেন, 'আশা করছি শিগগিরই ক্রিকেট ফিরবে। তাহলে আমরাও মানসিকভাবে বলেন আর শারীরিকভাবে বলেন, সবদিক দিয়েই আমাদের যে টেনশন আছে সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে পারব।'

তবে মিঠুনের সঙ্গে কথা বলে মনে হলো, এশিয়া কাপ স্থগিত হয়ে যাওয়ায় কিছুটা হলেও হতাশ এই ডানহাতি মিডল অর্ডার।

বাংলাদেশ 'এ'

'স্থগিত হয়ে যাওয়াটা অবশ্যই আমাদের কাছে খারাপ লাগার। কতগুলি সিরিজই তো স্থগিত হয়ে গেল। ফলে আমরা এশিয়া কাপের দিকেই তাকিয়ে ছিলাম যে অন্তত এটা হতে পারে। সেটাও হলো না। এখন এই বছরে আপাতত আমি কোনো আন্তর্জাতিক খেলা দেখছি না। টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপও হবে কিনা সন্দেহ আছে। একটা বছর আমাদের ক্রিকেটছাড়া চলতে হবে। এটা ভেবেই খারাপ লাগছে।'

একজন পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে এক বছরে এতগুলো সিরিজ ও এশিয়া কাপের মতো হাই ভোল্টেজ টুর্নামেন্ট স্থগিত হওয়া দেখে তার খারাপ লাগাটা অমূলক নয়। এবং এতে করে তার ক্রিকেটীয় চিত্তেও নিশ্চয়ই ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। তবে তার সেই ক্ষতে কিছুটা হলেও প্রলেপ পড়েছে করোনাকালে বিসিবি'র নেওয়া নানাবিধ পদক্ষেপে।

কেননা করোনাকালে ক্রিকেটারদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের দিকটি বিবেচনা করে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি। বিসিবি'র মেডিকেল বিভাগ থেকে প্রতিনিয়তই দেওয়া হচ্ছে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষা টিপস। তাছাড়া ক্রিকেটারদের সঙ্গে কোচিং স্টাফদের ভার্চুয়াল সভার আয়োজন করছে বিসিবি'র ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগ। ঘরবন্দী এই সময়ে বিসিবি'র এমন পদক্ষেপ কিছুটা হলেও তাদের মনোবল বাড়াতে সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করছে বলে মনে করেন মিঠুন।

সারাবাংলা/এমআরএফ/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন