বিজ্ঞাপন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আশার আলো নিয়ে বেকার আইডিয়া

July 22, 2020 | 11:30 am

সাহিত্য ডেস্ক

দেশে প্রথম করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ ২০২০ তারিখে। এর পরই বাংলাদেশে শুরু হয় সাধারণ ছুটি। বন্ধ হয়ে যায় সরকারি-বেসরকারি অফিস, গণপরিবহণসহ সব কার্যক্রম। ফলে ৪ মাস ধরে গৃহবন্দী জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছেন সবাই। গুরুত্বপূর্ণ কাজ ছাড়া কেউই বাইরে যাচ্ছেন না। অনেক প্রতিষ্ঠানই চলছে 'ওয়ার্ক ফ্রম হোম' পদ্ধতিতে।

বিজ্ঞাপন

এই প্রতিকূল সময়ে ভার্চুয়াল দুনিয়া হয়ে উঠেছে পরস্পর যোগাযোগ ও কর্মকাণ্ডের অন্যতম প্রধান সহায়। কিন্তু সেটিও ভরে উঠছে মানুষের কষ্ট আর শোকবার্তা দিয়ে। এমন সময়ে মানুষের মনে দুদণ্ড আশার আলো ছড়িয়ে দিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয়েছে আশাবাদের শিল্প প্রদর্শনী “বেকার IDEA” (বেকার আইডিয়া)।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আশার আলো নিয়ে বেকার আইডিয়া

বিজ্ঞাপন

২৩ তরুণ ও উদীয়মান শিল্পীর ৪৩ শিল্পকর্মের প্রদর্শনী, ‘বেকার আইডিয়া’। ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত কিং-কর্তব্য'র (king কর্তব্য) আয়োজনে ১০ জুলাই শুরু হওয়া এ প্রদর্শনী চলবে ১ আগস্ট পর্যন্ত। সহযোগী আয়োজক ইএমকে সেন্টার।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আশার আলো নিয়ে বেকার আইডিয়া

কেন এ আয়োজন...
প্রদর্শনীর উদ্দেশ্য সম্পর্কে এর মূল উদ্যোক্তা মেহেদী হাসান বলেন, ‘কোয়ারেন্টিনের এই সময়ে আমরা প্রায় সবাই ঘরবন্দী। অনেকেরই 'ওয়ার্ক ফ্রম হোম', যার কারণে আমাদের প্রতিদিন ব্যবহারের অনেক কিছুই বেকার হয়ে পড়ে আছে। কতদিন ব্যবহার হয় না হাতঘড়ি, সানগ্লাস, মেকআপ বক্সসহ অনেক কিছু, যার সবই পড়ে আছে ঘরের কোণে। এই পড়ে থাকা বেকার জিনিসগুলোকে আবার জীবন দেওয়া যায় কি না ভিন্ন কোনো রূপে, আমরা নিজেরাও এক ধরণের মানসিক চাপে আছি, সেখানেও কিছুটা স্বস্তি এনে দেওয়া যায় কি না- এমন চিন্তা থেকে এই প্রকল্পের জন্ম। যেহেতু আমরা ‘বেকার’ জিনিস নিয়েই ‘আইডিয়া’ করছি, তাই এই প্রোজেক্টের নাম বেকার আইডিয়া (বেকার idea)।

যে যে শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হচ্ছে...
অনলাইন এই প্রদর্শনীটিতে পেইন্টিং, ইনস্টলেশন, ফটোগ্রাফি, মিক্সড মিডিয়া, ডিজিটাল ও ভিডিও আর্ট- এই ছয়টি মাধ্যমের শিল্পকর্ম দেখানো হচ্ছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আশার আলো নিয়ে বেকার আইডিয়া

তরুন ও উদীয়মান এই শিল্পীরা এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে জানাতে চান যে এই দুর্যোগপূর্ণ সময়ে ও হতাশ হবার কিছু নেই। কোনোকিছুই বেকার নয়, এই সময় একদিন কেটে যাবে, আসবে আবার সুদিন। নতুন করে নিজেকে জানতে ও নতুন কিছু ভাবতে শেখানোই এই প্রদর্শনীর মূল উদ্দেশ্য।

প্রদর্শনীতে অংশ নেওয়া শিল্পীরা হলেন- শবনম শুভা, আল নাসির সবুজ, আরজিনা আহাসান, জিন্নাতুন জান্নাত, এ আর তামজিদ, তারানা হালিম, তানিয়া রহমান রোশনী, পিযুষ তালুকদার, সাদিয়া আরিফিন শান্তা, রমিজ শাহী, এন জামান বাবু, রকিব আনোয়ার, রকিবুল হোসেন রুদ্র, সারা জাবিন, মৃৎমন্দির রায়, জাহাঙ্গীর আলম, তাহসিন, অপরাজিতা রহমান, আনিকা রায়, দোলন কুণ্ডু, আজিজী ফাওমি খান, রেদোয়ান আহমেদ আরাফ ও মেহেদী হাসান।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আশার আলো নিয়ে বেকার আইডিয়া
Kingকর্তব্য সম্পর্কে
২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত চিত্র সংগ্রহশালা ‘কিং-কর্তব্য’র (King কর্তব্য) প্রধান লক্ষ্য সাধারণ মানুষের জন্য সমসাময়িক বিষয়াদির উপর শিল্পকর্ম তৈরি করা। আমাদের শিল্পকর্মগুলো দৈনন্দিন জীবন থেকে অনুপ্রাণিত যার মাধ্যমে আমরা প্রথাগত ব্যবস্থাকে চ্যালেঞ্জ করি।

সারাবাংলা/আরএফ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন