বিজ্ঞাপন

চবি’র করোনা সংক্রমণ ‘নিয়ন্ত্রণে’, বাড়ছে না লকডাউন

July 24, 2020 | 11:49 pm

চবি করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে উল্লেখ করে ঈদুল আজহা'র ছুটির পর আর লকডাউন না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সারাবাংলাকে জানানো হয়, টানা লকডাউনে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে। যে কারণে লকডাউন আর বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তা দেখছে না চবি কর্তৃপক্ষ।

পাশাপাশি, রোববার (২৬ জুলাই) থেকে বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) পর্যন্ত ঈদুল আজহা'র ছুটিতে ক্যাম্পাস বন্ধ থাকবে। তবে, ছুটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের কর্মস্থলে অবস্থান করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এ সময় ক্যাম্পাস ফাঁকা থাকলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে, চবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. রবিউল হাসান ভূইঁয়া সারাবাংলাকে জানান, লকডাউন শুরুর আগে (৩ জুন) বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির পাঁচ পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হন। পরবর্তীতে, বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী কোয়ার্টারে করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এভাবে, রোগী বাড়তে থাকায় প্রথমে ওই কলোনি লকডাউন ঘোষণা করা হয়।

পর্যায়ক্রমে, ক্যাম্পাসের ভেতরে কয়েকটি এলাকায় বিচ্ছিন্নভাবে রোগী শনাক্ত হওয়ায় চবি’র সিন্ডিকেট সদস্যদের সঙ্গে জরুরি আলোচনার মাধ্যমে জুন মাসের ১৪ তারিখ থেকে পুরো বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ১৪ দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা করা হয়। ক্যাম্পাসে মোট ৫০ জনের মতো করোনা রোগী শনাক্ত হয়।

প্রক্টর বলেন, ঈদুল আজহা'র ছুটিতে গেইটে এন্ট্রি করে গাড়ি ঢুকতে পারবে। ক্যাম্পাসের ভেতরে চলাচলের সময় সার্বক্ষণিক মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। প্রক্টরিয়াল বডি নজরদারিতে জারি রাখবে।

এর আগে, জুলাইয়ের ১১ তারিখ চবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারসহ তার পরিবারের পাঁচ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন