বিজ্ঞাপন

নদীতে বিলীন ঘরবাড়ি, ভাঙন আতঙ্কে দিশেহারা মানুষ

August 2, 2020 | 4:36 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

মুন্সীগঞ্জ: জেলার সিরাজদিখানে ধলেশ্বরী নদীর পানি কমার সাথে সাথে ভাঙন দেখা দিয়েছে। গত দুই দিনে নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের প্রায় ২০টি বাড়ি। হুমকির মুখে পড়েছে আরও শতাধিক ঘর এবং ইসলামপুর কামিল মাদরাসা।

বিজ্ঞাপন

এতে নদী ভাঙনকবলিত এলাকার মানুষ আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে এসব এলাকায় কোনো সহায়তা দেওয়া হচ্ছে না, বলে ভাঙনকবলিত লোকজনের অভিযোগ। অনেক পরিবার তড়িঘড়ি করে তাদের ঘরবাড়ি অন্য এলাকায় সরিয়ে নিয়েছে।

রোববার (২ আগস্ট) ধলেশ্বরী নদীর ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তরা বলছেন, ‘হঠাৎ নদীতে পানি কমে স্রোতের তোরে ভাঙনের মুখে কোনো মতে বেঁচে আছি। বসতভিটা সবই নদীতে চলে গেছে। হঠাৎ হঠাৎ বড় বড় পাড় ভেঙে পড়ছে।’

বিজ্ঞাপন

উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশ্রাফ আলী শেখ জানান, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থদের সংখ্যা প্রতিদিন বাড়ছে। নদীতে পানি কমার সাথে সাথে তীব্র স্রোতের কারণে ব্যাপক ভাঙন দেখা দিয়েছে। এখন পর্যন্ত ৩ দিনে প্রায় ২০টি বাড়ি নদীতে ভেঙে নিয়েছে। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে একটি মাদ্রাসাসহ প্রায় শতাধিক বাড়িঘর নদীতে বিলীন হয়ে যাবে।

ইসলামপুর কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো. জহুরুল হক বলেন, ‘বিদ্যালয়ে সবমিলে এক হাজার শিক্ষার্থী লেখাপড়া করে। আমরা এখন খুবই আতঙ্কের মধ্যে আছি। ভাঙন অব্যহত থাকলে আর কয়েক দিনের মধ্যে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশফিকুন নাহার বলেন, ‘প্রাথমিক পর্যায়ে আমরা ভাঙন এলাকায় বালুর বস্তা দিয়ে ভাঙনরোধের চেষ্টা করছি। এছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের সাথে কথা হয়েছে। তারাও আজ ভাঙন কবলিত এলাকা পরির্দশন করবেন।’

সারাবাংলা/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন