বিজ্ঞাপন

শরীর ডিটক্স করার সহজ উপায়

August 2, 2020 | 9:33 pm

লাইফস্টাইল ডেস্ক

শরীর ডিটক্স বা ক্ষতিকর উপাদানমুক্ত করার ব্যাপারটি অনেকটাই আমাদের ঘরবাড়ি পরিষ্কার রাখার মতো। ঘরবাড়ি পরিষ্কার রাখতে আমরা সময় ব্যয় করলেও শরীরের ক্ষেত্রে তা অনেকটাই অবহেলিত থাকে। শরীরের ক্ষতিকর উপাদান বের করে দিলে নানা রোগ থেকে মুক্ত থাকা যায়। এছাড়া ওজনও থাকে নিয়ন্ত্রণে।

বিজ্ঞাপন

কুরবানি ঈদ উপলক্ষে প্রত্যেকেই নিশ্চয় প্রচুর মাংস খাচ্ছেন। সেই সঙ্গে ঈদের মিষ্টান্ন ও অন্যান্য তেল-মসলাযুক্ত খাবার তো আছেই। এসময়ে তাই শরীরে অতিরিক্ত চর্বি ও অন্যান্য ক্ষতিকর জমা হয়। এসময়ে তাই প্রয়োজন শরীর ডিটক্স বা বিষমুক্ত করা। আসুন জেনে নেই ডিটক্স করার কিছু উপায়।

১. এক সপ্তাহ প্রোটিন ও কার্বোহাইড্রেট নিয়ন্ত্রণ করুন
শরীর ডিটক্স করতে এক সপ্তাহের জন্য ডায়েট পরিষ্কার রাখুন। খাদ্যতালিকা থেকে লাল মাংস, চিনি, সোডা, ক্যাফেইন, অ্যালকোহল, বাদাম, বীজ ও যেকোনো প্রক্রিয়াজাত খাবার যতটা সম্ভব বাদ দিন। তবে এর মানে এই নয় যে এসব খাবার একেবারে বাদ দিতে হবে- এর মানে হল বিপাক প্রক্রিয়ার অবস্থা বুঝে এগুলো খেতে হবে। শুধু যে মেপে খাবেন তাই না, স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে কম খাবেন। পেট ভরার জন্য খাদ্যতালিকায় রাখুন সবুজ শাক-সবজি, মাছ, ও খাদ্যআঁশে ভরপুর শস্য রাখুন পাতে। সঙ্গে প্রচুর পানি পান করুণ। এমন ডায়েটে ওজনও কিছুটা কমতে পারে। সেই সঙ্গে নিয়মিত হাঁটুন। এবং সম্ভব হলে ব্যায়াম করুন।

২. কোলন পরিষ্কার করুন
ডিটক্সের প্রথম ধাপ হলো কোলন বা মলাশয় পরিষ্কার করা। কারণ কোলন পরিষ্কার না হলে লিভার বা পিত্তথলি পরিষ্কার হবে না। প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস লেবু পানি ও হারবাল চা পান করুণ। সেই সঙ্গে সালাদ, শাকসবজি ও আঁশজাতীয় খাবার খান। কোলন হাইড্রোথেরাপিও করতে পারেন।

বিজ্ঞাপন

৩. মূত্রনালি পরিষ্কার
এ কাজেও দিনভর প্রচুর পানি পান করতে হবে। তাজা ফল ও পাতার জুস গান প্রতিদিন। তবে যেকোনো জুস খাওয়ার আগে নিশ্চিত হতে হবে যে, এটি বিশুদ্ধ ও চিনিমুক্ত।

৪. লিভার পরিষ্কার
লিভার পরিষ্কার করতে বিট, আদা ও লেবুজাতীয় খাবার খেতে হবে। এছাড়া রান্না করা প্রত্যেক খাবারে হলুদ যুক্ত করতে পারেন। খাবারের তালিকায় গাজর, পালং শাক, সবুজ যেকোনো শাক- সবজি খেলে লিভার পরিষ্কার হয়।  এসব খাবার শরীরের ফাইবারের পরিমাণ বাড়ায় এবং শরীর থেকে টক্সিন বের হতে সাহায্য করে।

৫. লসিকাগ্রন্থি পরিষ্কার
একাজে প্রতিদিন শুকনো ত্বক ব্রাশ ও রিবাউন্ডিংয়ের চর্চা থাকলে কাজে আসে। প্রতিবার শাওয়ারের আগে একটি ব্রাশ নিন পা থেকে শুরু করে শরীর ব্রাশ করুন। তবে মুখ ও বুকে ব্রাশ করবেন না। লসিকা নালীতে তরলের প্রবাহ নিয়মিত রাখতে রিবাউন্ডিং খুবই কাজের। শরীর মাসাজ করুন। এছাড়া কিছু হারবাল থেরাপিও নিতে পারেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আইই/আরএফ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন