বিজ্ঞাপন

আগস্ট ষড়যন্ত্রের মাস, চোখ-কান খোলা রাখুন: নানক

August 5, 2020 | 7:31 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, আগস্ট মাস এলেই জাতি আতঙ্কিত হতে থাকে। এই আগস্ট মাসেই আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে যতপ্রকার ষড়যন্ত্র হয়েছে। একটি দল জনগণের কাছে স্থান হারিয়ে ষড়যন্ত্রের পথে হাঁটছে। ১৫ আগস্টে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করে ক্ষ্যান্ত হয়নি তারা। আগস্ট মাসেই নেত্রীর ওপর গ্রেনেড হামলা, সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলা চালিয়েছিল তারা। তাই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের চোখ কান খোলা রাখতে হবে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার ( ৫ আগস্ট) বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ শেখ কামালের ৭১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির সভা পরিচালনা করেন।

জাহাঙ্গীর কবির নানক শহীদ শেখ কামালের বহুমুখি প্রতিভা স্মরণের পাশাপাশি করোনা মহামারীতে জনগণের প্রতি দলীয় নেতাকর্মীদের ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। নানক বলেন, ‘বাংলাদেশে করোনাকালীন মাননীয় নেত্রীর নির্দেশে দলের নেতা-কর্মীরা কাজ করে যাচ্ছে।’

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ‘আগস্ট মাস এলেই জাতি আতঙ্কিত হতে থাকে। আগস্ট মাসেই আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে যতপ্রকার ষড়যন্ত্র হয়েছে। একটি দল জনগণের কাছে স্থান হারিয়ে ষড়যন্ত্রের পথে হাঁটছেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করে ক্ষ্যান্ত হয়নি তারা। এ আগস্ট মাসেই নেত্রীর ওপর গ্রেনেড হামলা, সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলা চালিয়েছিলো তারা।’

তিনি মহানগর আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের চোখ কান খোলা রাখার আহ্বান জানান তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রী পরিষদের অনেক নেতাই বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর খুনি মোশতাকের মন্ত্রী পরিষদের সদস্য হয়েছিলেন। এদের মধ্যে কেউ ষড়যন্ত্রে, কেউ সাহস ও দৃঢ়তার অভাবে, কেউ লোভে বা কেউ ক্ষোভে। এর প্রতিদান একদিন তারা পাবেই। ষড়যন্ত্রকারীরা ষড়যন্ত্র করে কোনোদিন টিকতে পারেনি আর ভবিষ্যতেও পারবে না। দলের ভেতরে কেউ ষড়যন্ত্র করলে কেউ পার পাবে না। আমরা এর জবাব দিতে প্রস্তুত আছি।’

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ‘যতবারই ষড়যন্ত্র হয়েছে, জননেত্রী শেখ হাসিনা তা সাহসিকতার সঙ্গে মোকাবিলা করেছেন। আপনাদের মনে আছে ১/১১ তে যারা ষড়যন্ত্র করেছিলো, তারা অনেকেই রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়েছে।’

সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী বলেন, ‘শেখ কামাল দেশের রাষ্ট্র প্রধানের ছেলে হওয়ার পরও অত্যন্ত সাদাসিধা জীবনযাপন করতেন। সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে মিশতেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি যুদ্ধে না গেলেও পারতেন। কিন্তু প্রচণ্ড দেশপ্রেম ও দায়িত্ববোধ থেকে তিনি শুধুমাত্র স্বশরীরে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণই করেননি, বরং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম একজন সংগঠক ও ছিলেন।’

সভা পরিচালনাকালে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির শহীদ শেখ কামালের সাথে তার ঘনিষ্ঠতার স্মৃতিচারণ করেন।

বিজ্ঞাপন

এরপর পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও বঙ্গবন্ধু পরিবারর সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সকলের সুস্থতা কামনা করে মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে মহানগর নেতৃবৃন্দ সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ধানমন্ডি আবাহনী মাঠে ও সকাল ৯টা ১৫ মিনিটের দিকে বনানী কবরস্থানে শহীদ শেখ কামালের সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন।

সারাবাংলা/এনআর/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন