বিজ্ঞাপন

বৈরুত পৌঁছেছেন ম্যাক্রো, বিস্ফোরণে মৃত্যু বেড়ে ১৪৫

August 7, 2020 | 12:13 am

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

লেবাননের রাজধানী বৈরুতের শক্তিশালী রাসায়ানিক বিস্ফোরণে মৃত্যু বেড়ে ১৪৫ এ দাঁড়িয়েছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে লেবানন সফরে গেছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো। ওই রাসায়ানিক বিস্ফোরণ ঘটার পর বিদেশি নেতাদের মধ্যে ম্যাক্রোই প্রথম বৈরুতে পৌঁছেছেন। খবর রয়টার্স।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) বৈরুতে পৌঁছে বিস্ফোরণস্থলসহ বৈরুতের ধ্বংস হয়ে যাওয়া রাস্তাঘাট ঘুরে দেখেন ফরাসী প্রেসিডেন্ট।

এদিকে, বন্দরের একটি গুদামে হাজার হাজার টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিরাপদে না রাখার কারণেই ওই মর্মান্তিক বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে বলা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

বিপজ্জনক অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিরাপদে কেন রাখা হল না? এর জন্য দায়ী কে? সে প্রশ্নের জবাব চেয়ে ক্ষোভে ফুঁসছে লেবানিজরা। বিস্ফোরণের ঘটনাকে বছরের পর বছর ধরে দেশের শাসক শ্রেনির অব্যবস্থাপনা এবং অবহেলার ফলাফল হিসেবে উল্লেখ করেছেন আন্দোলনরত লেবানিজরা।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রো বৈরুতের রাস্তা পরিদর্শনের সময় স্থানীয় অধিবাসীরা দেশের সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছে। তিনি সাহায্যের আশ্বাস দেওয়ার পরই এক বৈরুতবাসী বলেছেন, আশা করি এই সাহায্য লেবাননের জনগণ পাবে, দুর্নীতিগ্রস্ত নেতাদের হাতে যাবে না।

বিজ্ঞাপন

আরেকজন বলেন, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট সময় করে আমাদেরকে দেখতে আসতে পেরেছেন, অথচ লেবাননের প্রেসিডেন্ট সময় পাননি।

বৈরুতবাসীর উদ্দেশে ম্যাক্রো বলেন, আপনাদের মুখাবয়বে আবেগ, দুঃখ, যন্ত্রণার ছাপ দেখতে পাচ্ছি। সেকারণেই আমি এখানে। তাছাড়া, আন্তর্জাতিক সাহায্য দুর্নীতিবাজদের হাতে যেতে দেওয়া হবে না বলেও ম্যাক্রো আশ্বাস দেন।

বিজ্ঞাপন

এ সময় লেবাননের জন্য জরুরি আন্তর্জাতিক সাহায্যের আহ্বান জানান ম্যাক্রো। একই সঙ্গে লেবাননের সরকারকে অর্থনৈতিক সংস্কার ও দুর্নীতি দমনের পরামর্শ দেন তিনি।

এ ব্যাপারে তিনি বলেন, সংস্কার না হলে লেবানন ডুবতেই থাকবে। এখানে দরকার রাজনৈতিক পরিবর্তন। এই বিস্ফোরণের মধ্য দিয়ে লেবাননের নতুন যুগ শুরু হওয়া উচিত।

বিজ্ঞাপন

এর আগে, মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) স্থানীয় সময় বিকেলে বৈরুতের বন্দর এলাকায় বিস্ফোরণে পুরো বৈরুত শহর ভূমিকম্পের মতো কেঁপে ওঠে। ওই বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৪৫ এ দাঁড়িয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির নিরাপত্তা সুত্র। এছাড়াও, বিস্ফোরণে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে অন্তত পাঁচ হাজার মানুষ।

অন্যদিকে, এখনও নিখোঁজ বহু মানুষষের সন্ধান অব্যাহত থাকায় হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা করছে উদ্ধারকারী কর্তৃপক্ষ।

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন