বিজ্ঞাপন

কংক্রিটের সেতু নির্মাণ প্রকল্প: তৈরি হচ্ছে আলিশান বাংলো

August 8, 2020 | 8:47 am

জোসনা জামান,স্টাফ করেসপনডেন্ট

ঢাকা: খুলনা বিভাগের বিভিন্ন জেলায় ৪৯ সেতু নির্মাণ প্রকল্প তদারকির জন্য একটি আলিশান বাংলো তৈরি করা হবে। এ জন্য বরাদ্দ ধরা হচ্ছে  তিন কোটি ৯০ লাখ টাকা। খুলনা সড়ক বিভাগের জন্য চার তলা ফাউন্ডেশনের ওপর দুইতলা বিশিষ্ট এই  বাংলো নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

‘খুলনা সড়ক জোনের আওতাধীন মহাসড়কে বিদ্যমান সরু ও ঝুঁকিপূর্ণ পুরাতন কংক্রিট সেতু বা বেইলি সেতুর স্থলে কংক্রিট সেতু নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পে ঘটছে এমন ঘটনা। প্রকল্পের আওতায় ৪৯টি কংক্রিটের সেতু নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৩০ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) আগামী সভায় প্রকল্পটি উপস্থাপন করা হতে পারে। অনুমোদন পেলে চলতি বছর থেকে শুরু হয়ে ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করবে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর (সওজ)।

বিজ্ঞাপন

প্রকল্প এলাকা হচ্ছে খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, যশোর, মাগুরা, নড়াইল, ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া এবং চুয়াডাঙ্গা।

পরিকল্পনা কমিশনের দায়িত্বশীল একাধিক কর্মকর্তা সারাবাংলাকে জানান, ২০১৯ সালের ২৬ নভেম্বর একনেক সভায় উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কর্মকর্তাদের জন্য বাসভবন বা পরিদর্শন বাংলো ইত্যাদি নির্মাণ পরিহারের অনুশাসন দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ অনুশাসন দেওয়ার আগেই গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর প্রস্তাবিত প্রকল্পটি নিয়ে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়। ফলে সে সময় প্রকল্পের আওতায় পরিদর্শন বাংলো নির্মাণের বিষয়টি রাখা হয়েছিল। তবে খুলনা জোনের পরিদর্শন বাংলোটি অনেক পুরনো ও জরাজীর্ণ হওয়ায় সওজ এর নিজস্ব জমিতে পাঁচ হাজার বর্গমিটার এই পরিদর্শন বাংলোর সংস্থান রাখা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

জানতে চাইলে বিশ্বব্যাংক ঢাকা অফিসের সাবেক জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন সারাবাংলাকে বলেন, ‘এখন অত্যন্ত নাজুক সময় পার করছে বাংলাদেশ। করোনা মহামারির কারণে উন্নয়ন প্রকল্পে গাড়ি ক্রয় স্থগিত, সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ সফর স্থগিতসহ নানা  গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এরইমধ্যে। তাছাড়া প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশও রয়েছে প্রকল্পে ব্যয় সাশ্রয় করতে হবে। সেখানে সেতু নির্মাণ প্রকল্পে পরিদর্শন বাংলো নির্মাণের প্রস্তাব ঠিক হয়নি। কেননা একেবারেই অপরিহার্য না হলে এসব অপ্রয়োজনীয় ব্যয় থেকে প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের বেরিয়ে  আসতে হবে। কোনো খোঁড়া যুক্তি দেখিয়ে উন্নয়ন প্রকল্পে এমন ব্যয় কাম্য নয়।’

প্রকল্পের প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, খুলনা সড়ক জোনের আওতাধীন বিভিন্ন সড়কে বেশ কিছু বেইলি সেতু এবং সরু ও ঝুঁকিপূর্ণ কনক্রিট সেতু আছে। সেতুগুলো পুরাতন ও ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বেশি ওজনের পণ্যবাহী যানবাহনের কারণে বেইলি ব্রিজ ভেঙে দুর্ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

বর্তমানে খুলনা সড়ক জোনের বিভিন্ন সড়কে বিদ্যমান ক্ষতিগ্রস্ত, সরু ও ঝুঁকিপূর্ণ ২৫টি বেইলি ও ২৪টি পুরাতন কংক্রিট সেতুর স্থলে নতুন কংক্রিট সেতু নির্মাণ করা হলে সড়কগুলো যানবাহন চলাচলে ঝুঁকি হ্রাস পাবে। এ জন্য প্রস্তাবিত প্রকল্পটি হাতে নেওয়া হয়েছে।

আরও বলা হয়েছে, সওজ অধিদফতরের নিজস্ব জনবল দ্বারা মূল প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা সমীক্ষা সম্পাদন করা হয়েছে। এই সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে, খুলনা সড়ক জোনের আওতাধীন ৯টি সড়ক বিভাগের বিভিন্ন সড়কে বেশকিছু বেইলি সেতু এবং সরু ও ঝুঁকিপূর্ণ কংক্রিট সেতু রয়েছে। সেতুগুলো পুরাতন ও ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় কখনো কখনো বেশি ওজনের পণ্যবাহী যানবাহনের কারণে বেইলি ব্রিজ ভেঙে পড়ে যায় ও দুর্ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সড়কগুলো যানবাহন চলাচল ঝুঁকি হ্রাসসহ নিরাপদ, নিরবচ্ছিন্ন এবং সময় ও ব্যয় সাশ্রয়ী সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হবে। এ জন্য অর্থনৈতিক বিশ্লেষণে প্রকল্পটি লাভজনক হিসাবে সুপারিশ করা হয়েছে।

সারাবাংলা/জেজে/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন