বিজ্ঞাপন

চুয়াডাঙ্গায় ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

August 10, 2020 | 8:23 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

চুয়াডাঙ্গা: জেলার জীবননগর উপজেলায় ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগে স্কুলশিক্ষক আল-মামুনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। সোমবার (১০ আগস্ট) দপুরে ওই ছাত্রীর বাবা ধর্ষকের শাস্তির দাবি জানিয়ে নিজ বাড়িতে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

বিজ্ঞাপন

উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে লিখিত বক্তব্যে মেয়েটির বাবা জানান, তার মেয়ে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী। মোক্তারপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আল-মামুন তার মেয়েকে বাড়িতে এসে পড়াতো। গত ২৬ এপ্রিল নির্জন ঘরে আটকে হত্যার হুমকি দিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের জানালে তারা ব্যাপারটি নিয়ে পুলিশের কাছে না যাওয়ার জন্য পরিবারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রামের প্রভাবশালীরা উপযুক্ত বিচারের আশ্বাস দিয়ে কেবল সময়ক্ষেপণ করতেই থাকে। এ কারণে নিরাপত্তার অভাব বোধ করে মেয়ের পড়াশোনা আপাতত বন্ধ রাখা হয়েছে। এমনকি হুমকি উপেক্ষা করে জীবননগর থানায় গেলে সেখানেও নানাভাবে হেনস্তার শিকার হতে হয়।

বিজ্ঞাপন

“থানার অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলামসহ উপস্থিত অন্যান্য পুলিশ সদস্যরা আমাদের বলতে থাকে ‘তোমরা মেয়ে নিয়ে ব্যবসা করছো নাকি, এতদিন থানায় না এসে টাকা কামানোর ধান্দায় ছিলে?’ স্থানীয় ইউপি সদস্য ও প্রভাবশালীদের কারণেই থানায় মামলা করতে এসেও ফিরে যেতে হয়েছে এমন কথা বললে পুলিশ সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে”, বলেন ওই শিক্ষার্থীর বাবা। পরে অবশ্য পুলিশ মামলা নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

তবে খারাপ ব্যবহার করার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘গত রোববার (৯ আগস্ট) বিকাল ৫টার পর ধর্ষিত মেয়ের বাবা বাদি হয়ে মোক্তারপুর গ্রামের ফজলুল হক বিশ্বাসের ছেলে মোক্তারপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আল-মামুনের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নম্বর ১৪/২০২০।’ সোমবার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ধর্ষিত শিক্ষার্থীর ডাক্তারি পরীক্ষা শেষ হয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন