বিজ্ঞাপন

বিপিএল আয়োজন খুবই কঠিন: বিসিবি সভাপতি

August 15, 2020 | 5:06 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

দেশব্যাপী করোনার যে পরিস্থিতি তাতে প্রথম রাউন্ড শেষে স্থগিত হয়ে যাওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ফেরানো নিয়েই এখনো কোনো সিদ্ধান্তেই আসতে পারেনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড-বিসিবি। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে কিংবা ভ্যাকসিন এলে তবেই এ নিয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত লাল সবুজের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ এই প্রশাসনের। এমতাবস্থায় বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটের (বিপিএল) অষ্টম আসর মাঠে গড়ানো বেশ কঠিন হবে বলে মত বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের মোড়কে বিদেশি ক্রিকেটারদের নিয়ে দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে জাঁকজমকপূর্ণ এই আসর এবার আদৌ গড়াবে কিনা তা নিয়েও তিনি নিশ্চয়তা দিতে পারেননি। একমাত্র করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে তবেই বিপিএলের ব্যাপারে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেবে লাল সবুজের সর্বোচ্চ এই প্রশাসন। আর যদি গড়ায়ও তাহলে সেই লক্ষ্যে পদক্ষেপটাও বেশ সতর্ক হবে বলেই জানালেন বিসিবি বস।

বিজ্ঞাপন

কারণগুলোও তো সঙ্গত। দেশের বর্তমান করোনা পরিস্থিতে বিদেশি ক্রিকেটার আসতে চাইবে কি না সেটিই প্রধান বিবেচ্য বিষয়। ধরেই নিচ্ছি ডিসেম্বর-জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হলো এবং তারাও এলেন। কিন্তু মহামারিকালে তাদের থাকার জায়গা, অনুশীলনের ব্যবস্থা করে দেওয়ার কাজটি মোটেও সহজ হবে না। এরপর যে ভাবনাটি রয়েছে তা হলো, করোনার সংক্রমণের ভয়। যে সকল বিদেশি ক্রিকেটার বিপিএলে খেলতে আসবেন তারা করোনামুক্ত কিনা, প্রশ্নটিও মোটেও অমুলক নয়। তাছাড়া করোনাভাইরাস যেহেতু মানুষের সংস্পর্শে ছড়ায় সেহেতু যে কোনো সময় যে কেউই সংক্রমিত হতে পারেন এই ভাবনাও বিসিবি'র আছে। সবমিলে এবারের বিপিএল আয়োজন কঠিন হবে বলেই মত বিসিবি সভপতি নাজমুল হাসান পাপনের।

শনিবার (১৫ আগস্ট) বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসে তিনি একথা জানান।

বিজ্ঞাপন

বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘কোথায়, বাংলাদেশে? এটা খুবই কঠিন। আমার মনে হয় না। আপনি দেখেন আইপিএলের খেলা ওরা ভারতে করতে পারছে না। বাইরে করবে বলছে তারপরেও অনেক খেলোয়াড় আসতে পারবে না। প্রথম দিকে তো না-ই। পরে যে আসতে পারবে সেই নিশ্চয়তাও নেই। আপনি খুব সাধারণ একটা ব্যাপার দেখেন প্রথম দিকে আপনি নেগেটিভ ২০-২৫টা ছেলেকে নিয়ে আমি খেলা শুরু করে দিলাম। কিন্তু মাঠে যখন খেলতে যাচ্ছে তখন কিন্তু পজিটিভ হচ্ছে। অতএব আমি আজকে নেগেটিভ আছি কালকে হবে না এই নিশ্চয়তা কেউ দিতে পারে না। আমরা বলছি এটা মানুষের সংস্পর্শে সংক্রমিত হয়। এটা যে কোনোভাবেই ছড়াতে পারে। কোনো নিশ্চয়তা নেই যে এখন নাই তো পরে হবে না। কাজেই নিশ্চয়তা যেহেতু নেই আমদের অবশ্যই অত্যন্ত সতর্কভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।’

সারাবাংলা/এমআরএফ/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন